২০১০ সালের বেতন গ্যাজেট পুনর্বহাল দাবিতে ভূমি কর্মকর্তাদের কালোব্যাজ ধারণ
jugantor
২০১০ সালের বেতন গ্যাজেট পুনর্বহাল দাবিতে ভূমি কর্মকর্তাদের কালোব্যাজ ধারণ

  বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি  

১৮ জানুয়ারি ২০২২, ১৬:৩১:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

২০১০ সালের বেতন গ্যাজেট পুনর্বহাল দাবিতে ভূমি কর্মকর্তাদের কালোব্যাজ ধারণ

বাতিল করা ২০১০ সালের বেতন গ্যাজেট পুনর্বহাল দাবিতে রাজশাহীর বাঘায় সহকারী ভূমি কর্মকর্তারা অফিস করছেন কালোব্যাজ ধারণ করে। মঙ্গলবার তারা এ কর্মসূচি পালন করেন।

বাংলাদেশ ভূমি অফিসার্স কল্যাণ সমিতির আহ্বানে দেশব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে বাঘা উপজেলার সহকারী ভূমি কর্মকর্তারা সোমবার থেকে কালোব্যাজ ধারণ করে এ কর্মসূচি পালন করছেন।

এ বিষয়ে বাঘা উপজেলার মীরগঞ্জ অফিসের সহকারী ভূমি অফিসার ও বাংলাদেশ ভূমি অফিসার্স কল্যাণ সমিতির রাজশাহী জেলা শাখার সহসাংগঠনিক সম্পাদক নরশাদ আলী বলেন, ভূমি অফিসে জনবল নিয়োগ ও ২০১০ সালে আমাদের বিষয়ে যে গ্যাজেট প্রকাশ করা হয়েছিল, তা বাস্তবায়নের দাবিতে সোমবার থেকে কালোব্যাজ ধারণ করে অফিস করছি।

এদিকে রুইমারি ভূমি অফিসের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা শওকত আলীকেও কালোব্যাজ ধারণ করে অফিস করতে দেখা গেছে।

বাঘা উপজেলার মীরগঞ্জ অফিসের সহকারী ভূমি অফিসার ও বাংলাদেশ ভূমি অফিসার্স কল্যাণ সমিতির রাজশাহী জেলা শাখার সভাপতি খায়রুল আমিন সরকার বলেন, রাজশাহী জেলায় ভূমি অফিস রয়েছে ৩৬টি। এর মধ্যে বাঘা উপজেলায় তিনটি ভূমি অফিস রয়েছে। ৩৬ কর্মকর্তা থাকার বিধান রয়েছে। কিন্তু কর্মকর্তা রয়েছে মাত্র ৬ জন। ২০১২ সাল থেকে নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধ থাকার কারণে এই পদগুলোতে কোনো জনবল নেই। ফলে কাজ করতে গিয়েও হিমশিম খেতে হচ্ছে বলে জানান তিনি।

২০১০ সালের বেতন গ্যাজেট পুনর্বহাল দাবিতে ভূমি কর্মকর্তাদের কালোব্যাজ ধারণ

 বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি 
১৮ জানুয়ারি ২০২২, ০৪:৩১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
২০১০ সালের বেতন গ্যাজেট পুনর্বহাল দাবিতে ভূমি কর্মকর্তাদের কালোব্যাজ ধারণ
ছবি: যুগান্তর

বাতিল করা ২০১০ সালের বেতন গ্যাজেট পুনর্বহাল দাবিতে রাজশাহীর বাঘায় সহকারী ভূমি কর্মকর্তারা অফিস করছেন কালোব্যাজ ধারণ করে।  মঙ্গলবার তারা এ কর্মসূচি পালন করেন।

বাংলাদেশ ভূমি অফিসার্স কল্যাণ সমিতির আহ্বানে দেশব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে বাঘা উপজেলার সহকারী ভূমি কর্মকর্তারা সোমবার থেকে কালোব্যাজ ধারণ করে এ কর্মসূচি পালন করছেন।

এ বিষয়ে বাঘা উপজেলার মীরগঞ্জ অফিসের সহকারী ভূমি অফিসার ও বাংলাদেশ ভূমি অফিসার্স কল্যাণ সমিতির রাজশাহী জেলা শাখার সহসাংগঠনিক সম্পাদক নরশাদ আলী বলেন, ভূমি অফিসে জনবল নিয়োগ ও ২০১০ সালে আমাদের বিষয়ে যে গ্যাজেট প্রকাশ করা হয়েছিল, তা বাস্তবায়নের দাবিতে সোমবার থেকে কালোব্যাজ ধারণ করে অফিস করছি।

এদিকে রুইমারি ভূমি অফিসের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা শওকত আলীকেও কালোব্যাজ ধারণ করে অফিস করতে দেখা গেছে।

বাঘা উপজেলার মীরগঞ্জ অফিসের সহকারী ভূমি অফিসার ও বাংলাদেশ ভূমি অফিসার্স কল্যাণ সমিতির রাজশাহী জেলা শাখার সভাপতি খায়রুল আমিন সরকার বলেন, রাজশাহী জেলায় ভূমি অফিস রয়েছে ৩৬টি। এর মধ্যে বাঘা উপজেলায় তিনটি ভূমি অফিস রয়েছে। ৩৬ কর্মকর্তা থাকার বিধান রয়েছে। কিন্তু কর্মকর্তা রয়েছে মাত্র ৬ জন। ২০১২ সাল থেকে নিয়োগ প্রক্রিয়া বন্ধ থাকার কারণে এই পদগুলোতে কোনো জনবল নেই। ফলে কাজ করতে গিয়েও হিমশিম খেতে হচ্ছে বলে জানান তিনি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন