নদীতে মাটি কাটায় ট্রাক্টর জ্বালিয়ে দিলেন ইউএনও
jugantor
নদীতে মাটি কাটায় ট্রাক্টর জ্বালিয়ে দিলেন ইউএনও

  দেবিদ্বার (কুমিল্লা) প্রতিনিধি  

১৮ জানুয়ারি ২০২২, ২০:২০:৩৮  |  অনলাইন সংস্করণ

নদীতে মাটি কাটায় ট্রাক্টর জ্বালিয়ে দিলেন ইউএনও

কুমিল্লার দেবিদ্বারে গোমতী নদীর দুই পাড়ে মাটি কাটার মহোৎসব চলছে। শীত আসার পরপরই দুই পাড়ের প্রায় ৭০ কিলোমিটার বাঁধজুড়ে রাত-দিন শত শত ট্রাক্টর ওঠানামা করে। নদীর ভেতরের মাটি কাটার কারণে হুমকির মুখে পড়েছে বাঁধ, সড়ক ও সেতু। এরই মধ্যে উপজেলা প্রশাসন মঙ্গলবার দুপুরে নদীর বেগমাবাদ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন।

এ সময় নদী থেকে মাটি কাটায় একটি ট্রাক্টর জ্বালিয়ে দেওয়া হয় এবং তিনজনকে আটক করে। আটকদের কাছ থেকে নগদ সাড়ে তিন লাখ টাকা আদায় করা হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. আশিক উন নবী তালুকদারের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

আটককৃতরা হলেন- চরবাকর এলাকার ময়নাল হোসেনের ছেলে মো. সোহাগ, একই এলাকার ফজলুর রহমানের ছেলে মো. মজিবুর রহমান ও কবির হোসেনের ছেলে মো. শরীফুল ইসলাম।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, প্রতি বছর শীত আসলে এ এলাকায় ধুলাবালিতে আচ্ছন্ন হয়ে যায়। ঘরবাড়ি বিছানাপত্রে বালুর স্তূপ পড়ে। দুর্ভোগ পোহাতে হয় রাস্তা-ঘাটে চলাচল করা মানুষের। নদীর মাটি কাটার পেছনে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কিছু অসাধু চক্র জড়িত। তারা মাটি কাটার সিন্ডিকেট থেকে প্রতি মাসে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়। উপজেলা প্রশাসন বারবার অভিযান পরিচালনা করলেও সিন্ডিকেটকে বন্ধ করা যাচ্ছে না।

ইউএনও আশিক উন নবী তালুকদার বলেন, বালু মহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০ এর ৪ ধারায় আটক ব্যক্তিকে সাড়ে তিন লাখ টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে এক বছরের জেল দেওয়া হবে। গোমতী নদীকে বাঁচাতে আরও কঠোর হবে উপজেলা প্রশাসন। যারা মাটি কাটার সঙ্গে জড়িত তাদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।

নদীতে মাটি কাটায় ট্রাক্টর জ্বালিয়ে দিলেন ইউএনও

 দেবিদ্বার (কুমিল্লা) প্রতিনিধি 
১৮ জানুয়ারি ২০২২, ০৮:২০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
নদীতে মাটি কাটায় ট্রাক্টর জ্বালিয়ে দিলেন ইউএনও
ছবি: সংগৃহিত

কুমিল্লার দেবিদ্বারে গোমতী নদীর দুই পাড়ে মাটি কাটার মহোৎসব চলছে। শীত আসার পরপরই দুই পাড়ের প্রায় ৭০ কিলোমিটার বাঁধজুড়ে রাত-দিন শত শত ট্রাক্টর ওঠানামা করে। নদীর ভেতরের মাটি কাটার কারণে হুমকির মুখে পড়েছে বাঁধ, সড়ক ও সেতু। এরই মধ্যে উপজেলা প্রশাসন মঙ্গলবার দুপুরে নদীর বেগমাবাদ এলাকায় অভিযান পরিচালনা করেন। 

এ সময় নদী থেকে মাটি কাটায় একটি ট্রাক্টর জ্বালিয়ে দেওয়া হয় এবং তিনজনকে আটক করে। আটকদের কাছ থেকে নগদ সাড়ে তিন লাখ টাকা আদায় করা হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. আশিক উন নবী তালুকদারের নেতৃত্বে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। 

আটককৃতরা হলেন- চরবাকর এলাকার ময়নাল হোসেনের ছেলে মো. সোহাগ, একই এলাকার ফজলুর রহমানের ছেলে মো. মজিবুর রহমান ও কবির হোসেনের ছেলে মো. শরীফুল ইসলাম।  

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, প্রতি বছর শীত আসলে এ এলাকায় ধুলাবালিতে আচ্ছন্ন হয়ে যায়। ঘরবাড়ি বিছানাপত্রে বালুর স্তূপ পড়ে। দুর্ভোগ পোহাতে হয় রাস্তা-ঘাটে চলাচল করা মানুষের। নদীর মাটি কাটার পেছনে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কিছু অসাধু চক্র জড়িত। তারা মাটি কাটার সিন্ডিকেট থেকে প্রতি মাসে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়। উপজেলা প্রশাসন বারবার অভিযান পরিচালনা করলেও সিন্ডিকেটকে বন্ধ করা যাচ্ছে না। 

ইউএনও আশিক উন নবী তালুকদার বলেন, বালু মহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০ এর ৪ ধারায় আটক ব্যক্তিকে সাড়ে তিন লাখ টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে এক বছরের জেল দেওয়া হবে। গোমতী নদীকে বাঁচাতে আরও কঠোর হবে উপজেলা প্রশাসন। যারা মাটি কাটার সঙ্গে জড়িত তাদের কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন