বিয়ের ৬ মাস পর পৈশাচিক কায়দায় স্ত্রীকে হত্যা
jugantor
বিয়ের ৬ মাস পর পৈশাচিক কায়দায় স্ত্রীকে হত্যা

  নবীনগর প্রতিনিধি  

২১ জানুয়ারি ২০২২, ১৯:১৭:১৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে বিয়ের ৬ মাস পর গোপনাঙ্গে বিষাক্ত ট্যাবলেট ঢুকিয়ে স্ত্রীকে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রিয়া মনি (২০) ওই গ্রামের মো. ফরিদ মিয়ার ছেলে নেয়ামতুল্লাহ বাবুর (২২) স্ত্রী। তিনি একই গ্রামের মো. হুমায়ুন সরকারের মেয়ে।

এ ঘটনায় নিহত রিয়া মনির মা মাজেদা বেগম শুক্রবার সকালে নবীনগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ ঘাতক স্বামীকে গ্রেফতার করার পর প্রাথমিকভাবে হত্যার দায় স্বীকার করেছেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে পারিবারিক কলহ হয়। এর জের ধরে রাতে তার স্ত্রীর গোপনাঙ্গে কৌশলে বিষয়াক্ত ট্যাবলেট ঢুকিয়ে দেয় তার স্বামী নেয়ামতুল্লাহ বাবু। পরবর্তীতে শুক্রবার সকালে রিয়া মনি ঘুম থেকে উঠে ছটফট ও বমি করলে স্থানীয় লোকজন টের পেয়ে তাকে দ্রুত চিকিৎসার জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঘণ্টা দুয়েক পর তার মৃত্যু হয়।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ৬ মাস আগে তাদের বিয়ে হয়। পারিবারিক কলহের জের ধরে সুকৌশলে পাষণ্ড স্বামী শারীরিক সম্পর্ক করার অজুহাতে গোপনাঙ্গে বিষাক্ত ট্যাবলেট ঢুকিয়ে দেয়। এরপর ভোর ৫টার দিকে রিয়া মনি ঘুম থেকে ওঠে অনবরত বমিসহ ছটফট করতে থাকলে স্থানীয় লোকজন তাকে চিকিৎসার জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঘণ্টা দুয়েক পর তার মৃত্যু হয়।

নবীনগর থানার ওসি আমিনুর রশিদ জানান, স্বামীকে গ্রেফতার করার পর প্রাথমিকভাবে সে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। তাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

বিয়ের ৬ মাস পর পৈশাচিক কায়দায় স্ত্রীকে হত্যা

 নবীনগর প্রতিনিধি 
২১ জানুয়ারি ২০২২, ০৭:১৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরে বিয়ের ৬ মাস পর গোপনাঙ্গে বিষাক্ত ট্যাবলেট ঢুকিয়ে স্ত্রীকে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার রাতে উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত রিয়া মনি (২০) ওই গ্রামের মো. ফরিদ মিয়ার ছেলে নেয়ামতুল্লাহ বাবুর (২২) স্ত্রী। তিনি একই গ্রামের মো. হুমায়ুন সরকারের মেয়ে।

এ ঘটনায় নিহত রিয়া মনির মা মাজেদা বেগম শুক্রবার সকালে নবীনগর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ ঘাতক স্বামীকে গ্রেফতার করার পর প্রাথমিকভাবে হত্যার দায় স্বীকার করেছেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে পারিবারিক কলহ হয়। এর জের ধরে রাতে তার স্ত্রীর গোপনাঙ্গে কৌশলে বিষয়াক্ত ট্যাবলেট ঢুকিয়ে দেয় তার স্বামী নেয়ামতুল্লাহ বাবু। পরবর্তীতে শুক্রবার সকালে রিয়া মনি ঘুম থেকে উঠে ছটফট ও বমি করলে স্থানীয় লোকজন টের পেয়ে তাকে দ্রুত চিকিৎসার জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঘণ্টা দুয়েক পর তার মৃত্যু হয়।

পুলিশ ও স্থানীয়রা জানান, ৬ মাস আগে তাদের বিয়ে হয়। পারিবারিক কলহের জের ধরে সুকৌশলে পাষণ্ড স্বামী শারীরিক সম্পর্ক করার অজুহাতে গোপনাঙ্গে বিষাক্ত ট্যাবলেট ঢুকিয়ে দেয়। এরপর ভোর ৫টার দিকে রিয়া মনি ঘুম থেকে ওঠে অনবরত বমিসহ ছটফট করতে থাকলে স্থানীয় লোকজন তাকে চিকিৎসার জন্য ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঘণ্টা দুয়েক পর তার মৃত্যু হয়।

নবীনগর থানার ওসি আমিনুর রশিদ জানান, স্বামীকে গ্রেফতার করার পর প্রাথমিকভাবে সে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। তাকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন