বন্ধুকে তাড়িয়ে ছাত্রীকে সড়ক থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ
jugantor
বন্ধুকে তাড়িয়ে ছাত্রীকে সড়ক থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ

  শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি  

২৩ জানুয়ারি ২০২২, ১৩:৩৯:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

গ্রেফতার

মাদারীপুরের শিবচর উপজেলায় বন্ধুকে তাড়িয়ে দিয়ে সড়ক থেকে তুলে নিয়ে নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মূল অভিযুক্ত নাহিদ শেখ (২৮) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার সকালে ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য মাদারীপুর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত নাহিদকে গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় একজন পলাতক রয়েছে।

গ্রেফতার নাহিদ শেখ বন্দরখোলা ইউনিয়নের রাজারচর মোল্লা কান্দি গ্রামের কায়ুম শেখের ছেলে। পলাতক আল আমিন হাওলাদার একই গ্রামের। তারা মিয়া হাওলাদারের ছেলে ।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, শনিবার সকালে ওই ছাত্রী বাড়ি থেকে বাজারের দিক যাচ্ছিল। পথিমধ্যে তার এক বন্ধুর সঙ্গে দেখা হয়। এর পর তারা বীনা পানি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে কথা বলছিল। এ সময় ওই এলাকার নাহিদ শেখ ও আল আমিন হাওলাদার একটি মোটরসাইকেলে এসে ভয়ভীতি দেখিয়ে মেয়েটির বন্ধুকে তাড়িয়ে দেয়।

পরে ওই ছাত্রীকে বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে মোটরসাইকেলে উঠিয়ে পার্শ্ববর্তী সন্ন্যাসীরচরের মাদবরকান্দির একটি কলাবাগানে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে নাহিদ শেখ তাকে ধর্ষণ করে। মেয়েটির চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এলে তারা পালিয়ে যায়।

পরে রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে নাহিদ শেখকে গ্রেফতার করে। তবে আল আমিন এখনও পলাতক রয়েছে।

শিবচর থানার ওসি মো. মিরাজ হোসেন বলেন, ওই শিক্ষার্থীর ভাই বাদী হয়ে মামলা করেছে। রাতেই ধর্ষককে গ্রেফতার করা হয়েছে। রোববার সকালে ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য মাদারীপুর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

বন্ধুকে তাড়িয়ে ছাত্রীকে সড়ক থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ

 শিবচর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি 
২৩ জানুয়ারি ২০২২, ০১:৩৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
গ্রেফতার
ছবি: যুগান্তর

মাদারীপুরের শিবচর উপজেলায় বন্ধুকে তাড়িয়ে দিয়ে সড়ক থেকে তুলে নিয়ে নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মূল অভিযুক্ত নাহিদ শেখ (২৮) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার সকালে ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য মাদারীপুর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এর আগে রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত নাহিদকে গ্রেফতার করে। এ ঘটনায় একজন পলাতক রয়েছে।

গ্রেফতার নাহিদ শেখ বন্দরখোলা ইউনিয়নের রাজারচর মোল্লা কান্দি গ্রামের কায়ুম শেখের ছেলে। পলাতক আল আমিন হাওলাদার একই গ্রামের। তারা মিয়া হাওলাদারের ছেলে ।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, শনিবার সকালে ওই ছাত্রী বাড়ি থেকে বাজারের দিক যাচ্ছিল। পথিমধ্যে তার এক বন্ধুর সঙ্গে দেখা হয়। এর পর তারা বীনা পানি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে কথা বলছিল। এ সময় ওই এলাকার নাহিদ শেখ ও আল আমিন হাওলাদার একটি মোটরসাইকেলে এসে ভয়ভীতি দেখিয়ে মেয়েটির বন্ধুকে তাড়িয়ে দেয়।

পরে ওই ছাত্রীকে বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে মোটরসাইকেলে উঠিয়ে পার্শ্ববর্তী সন্ন্যাসীরচরের মাদবরকান্দির একটি কলাবাগানে নিয়ে যায়। সেখানে নিয়ে নাহিদ শেখ তাকে ধর্ষণ করে। মেয়েটির চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এলে তারা পালিয়ে যায়।

পরে রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে নাহিদ শেখকে গ্রেফতার করে। তবে আল আমিন এখনও পলাতক রয়েছে।

শিবচর থানার ওসি মো. মিরাজ হোসেন বলেন, ওই শিক্ষার্থীর ভাই বাদী হয়ে মামলা করেছে। রাতেই ধর্ষককে গ্রেফতার করা হয়েছে। রোববার সকালে ভিকটিমকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য মাদারীপুর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন