সালিশে গিয়ে খুন হলেন জয়নাল
jugantor
সালিশে গিয়ে খুন হলেন জয়নাল

  চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি  

২৩ জানুয়ারি ২০২২, ১৮:১৫:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

কক্সবাজারের চকরিয়ার বদরখালীতে জমিসংক্রান্ত সালিশে অংশ নিতে এসে খুন হলেন জয়নাল আবেদীন বদন (৪০) নামে এক ব্যক্তি। এ সময় অন্তত ৩ জন আহত হয়েছেন। রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বদরখালী সমবায় সমিতির কার্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

মৃত জয়নাল আবেদীন বদন ওই ইউনিয়নের ঠুটিয়াখালীপাড়া গ্রামের মৃত আবদুস সোবাহানের ছেলে।

আহতরা হলেন- নিহতের ভাই এহেছান (২৯) ও উচমান (২২) এবং নিহতের ভাতিজা সাগর (২৪)। আহতদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জমিসংক্রান্ত সৃষ্ট বিরোধ নিরসনের জন্য বদরখালী সমবায় সমিতি কার্যালয়ে এসেছিলেন মো. জয়নাল আবেদীন বদন ও তার ভাইয়েরা। তাদের প্রতিপক্ষের লোকজনও সেখানে উপস্থিত হন। একপর্যায়ে প্রতিপক্ষ আবদুল জলিলের ছেলে ছোটন, সাগর ও রাজিব লম্বা দা ও ছুরি নিয়ে হামলে পড়ে।

তাদের এলোপাতাড়ি দায়ের কোপ ও ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন মো. জয়নাল আবেদীন বদন ও তার ভাইয়েরা। এতে ঘটনাস্থলে বদনের মৃত্যু হয় এবং অন্য তিনজন গুরুতর আহত হন।

বদরখালী সমবায় কৃষি ও উপনিবেশ সমিতির সাধারণ সম্পাদক নুরুল আমিন জনি জানান, আবদুল জলিল বাদী হয়ে সমিতি বরাবর জমিজমা নিয়ে অভিযোগ দায়ের করে। ওই অভিযোগে নিহতের ভাই আবদুল কাদের একমাত্র বিবাদী। বিচার শুরু হওয়ার আগেই সমিতির কার্যালয়ের বাইরে রাস্তায় দুইপক্ষ সংঘর্ষে লিপ্ত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, সমিতির বাইরে পরিকল্পিতভাবে ওতপেতে থাকা আবদুল জলিলের ছেলে সন্ত্রাসী ছোটনের নেতৃত্বে ৫-৬ জন লোক দা, ছোরা ইত্যাদি নিয়ে নিহতের ওপর হামলে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান জয়নাল আবেদীন বদন।

চকরিয়া সার্কেলের সিনিয়র এএসপি তফিকুল আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

চকরিয়া থানার ওসি মোহাম্মদ ওসমান গণি জানান, ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশের একটি টিম নিয়ে ঘটনাস্থলে যায়। লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সালিশে গিয়ে খুন হলেন জয়নাল

 চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি 
২৩ জানুয়ারি ২০২২, ০৬:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কক্সবাজারের চকরিয়ার বদরখালীতে জমিসংক্রান্ত সালিশে অংশ নিতে এসে খুন হলেন জয়নাল আবেদীন বদন (৪০) নামে এক ব্যক্তি। এ সময় অন্তত ৩ জন আহত হয়েছেন। রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বদরখালী সমবায় সমিতির কার্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটে।

মৃত জয়নাল আবেদীন বদন ওই ইউনিয়নের ঠুটিয়াখালীপাড়া গ্রামের মৃত আবদুস সোবাহানের ছেলে।

আহতরা হলেন- নিহতের ভাই এহেছান (২৯) ও উচমান (২২) এবং নিহতের ভাতিজা সাগর (২৪)। আহতদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, জমিসংক্রান্ত সৃষ্ট বিরোধ নিরসনের জন্য বদরখালী সমবায় সমিতি কার্যালয়ে এসেছিলেন মো. জয়নাল আবেদীন বদন ও তার ভাইয়েরা। তাদের প্রতিপক্ষের লোকজনও সেখানে উপস্থিত হন। একপর্যায়ে প্রতিপক্ষ আবদুল জলিলের ছেলে ছোটন, সাগর ও রাজিব লম্বা দা ও ছুরি নিয়ে হামলে পড়ে।

তাদের এলোপাতাড়ি দায়ের কোপ ও ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন মো. জয়নাল আবেদীন বদন ও তার ভাইয়েরা। এতে ঘটনাস্থলে বদনের মৃত্যু হয় এবং অন্য তিনজন গুরুতর আহত হন।

বদরখালী সমবায় কৃষি ও উপনিবেশ সমিতির সাধারণ সম্পাদক নুরুল আমিন জনি জানান, আবদুল জলিল বাদী হয়ে সমিতি বরাবর জমিজমা নিয়ে অভিযোগ দায়ের করে। ওই অভিযোগে নিহতের ভাই আবদুল কাদের একমাত্র বিবাদী। বিচার শুরু হওয়ার আগেই সমিতির কার্যালয়ের বাইরে রাস্তায় দুইপক্ষ সংঘর্ষে লিপ্ত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, সমিতির বাইরে পরিকল্পিতভাবে ওতপেতে থাকা আবদুল জলিলের ছেলে সন্ত্রাসী ছোটনের নেতৃত্বে ৫-৬ জন লোক দা, ছোরা ইত্যাদি নিয়ে নিহতের ওপর হামলে পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান জয়নাল আবেদীন বদন।

চকরিয়া সার্কেলের সিনিয়র এএসপি তফিকুল আলম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

চকরিয়া থানার ওসি মোহাম্মদ ওসমান গণি জানান, ঘটনার খবর পেয়ে পুলিশের একটি টিম নিয়ে ঘটনাস্থলে যায়। লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন