ছিনতাইকারীদের দলে স্ত্রী, ভাই-বন্ধু
jugantor
ছিনতাইকারীদের দলে স্ত্রী, ভাই-বন্ধু

  রাজশাহী ব্যুরো  

২৩ জানুয়ারি ২০২২, ১৮:১৫:৩৫  |  অনলাইন সংস্করণ

সোহেল একজন পেশাদার ছিনতাইকারী। সম্প্রতি সে তার ছিনতাইয়ের কৌশল পাল্টেছে। এ কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত করেছে ছোটভাই সুমন হোসেন সাদ্দামকে। শুধু তাই নয়, সোহেল তার দলে রেখেছে নিজের স্ত্রী জেসমিন বেগম পলিকেও। পুলিশ তাদের সবাইকে গ্রেফতার করেছে। এদের সঙ্গে সুমনের বন্ধু হৃদয়কেও গ্রেফতার করা হয়েছে।

হৃদয়ের বাড়ি রাজশাহী শহরের কয়েরদাঁড়া এলাকায়। আর সোহেল, সুমন ও জেসমিন নগরীর বখতিয়ারবাদ মালদা কলোনির বাসিন্দা। রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) একটি দল শনিবার রাতে শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করে।

নগর ডিবি পুলিশের উপকমিশনার (ডিসি) আরেফিন জুয়েল জানান, সম্প্রতি নগরীর হেতেম খাঁ সবজিপাড়া এলাকার এক যুবকের সঙ্গে মোবাইল ফোনে বন্ধুত্ব গড়ে তোলেন জেসমিন। তারপর গত ১৫ জানুয়ারি রাত ৮টায় ওই যুবককে বিসিক শিল্প এলাকায় দেখা করতে ডাকেন জেসমিন। সরল বিশ্বাসে ওই যুবক সেখানে যান। জেসমিন কৌশলে কথা বলতে বলতে তাকে মথুরডাঙ্গা আটকুষি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে নিয়ে যায়।

এরপর সেখানে ওতপেতে থাকা জেসমিনের স্বামী সোহেল, দেবর সুমন ও হৃদয় ওই যুবককে ঘিরে ফেলে এবং চাকুর ভয় দেখিয়ে মোবাইল ফোন, নগদ টাকা ও জ্যাকেটটিও খুলে নেয়। এ ঘটনায় নগর ডিবি পুলিশে একটি অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী যুবক। এর পরিপ্রেক্ষিতে ডিবি পুলিশ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের শনাক্ত করে।

এরপর তাদের গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ছিনতাই করা মোবাইল ফোন, জ্যাকেট ও নগদ টাকা এবং ছিনতাই কাজে ব্যবহৃত তিনটি চাকু উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতার চারজনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলেও জানান নগর ডিবি পুলিশের কর্মকর্তা আরেফিন জুয়েল।

ছিনতাইকারীদের দলে স্ত্রী, ভাই-বন্ধু

 রাজশাহী ব্যুরো 
২৩ জানুয়ারি ২০২২, ০৬:১৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সোহেল একজন পেশাদার ছিনতাইকারী। সম্প্রতি সে তার ছিনতাইয়ের কৌশল পাল্টেছে। এ কাজের সঙ্গে সম্পৃক্ত করেছে ছোটভাই সুমন হোসেন সাদ্দামকে। শুধু তাই নয়, সোহেল তার দলে রেখেছে নিজের স্ত্রী জেসমিন বেগম পলিকেও। পুলিশ তাদের সবাইকে গ্রেফতার করেছে। এদের সঙ্গে সুমনের বন্ধু হৃদয়কেও গ্রেফতার করা হয়েছে। 

হৃদয়ের বাড়ি রাজশাহী শহরের কয়েরদাঁড়া এলাকায়। আর সোহেল, সুমন ও জেসমিন নগরীর বখতিয়ারবাদ মালদা কলোনির বাসিন্দা। রাজশাহী মহানগর পুলিশের (আরএমপি) গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) একটি দল শনিবার রাতে শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করে।

নগর ডিবি পুলিশের উপকমিশনার (ডিসি) আরেফিন জুয়েল জানান, সম্প্রতি নগরীর হেতেম খাঁ সবজিপাড়া এলাকার এক যুবকের সঙ্গে মোবাইল ফোনে বন্ধুত্ব গড়ে তোলেন জেসমিন। তারপর গত ১৫ জানুয়ারি রাত ৮টায় ওই যুবককে বিসিক শিল্প এলাকায় দেখা করতে ডাকেন জেসমিন। সরল বিশ্বাসে ওই যুবক সেখানে যান। জেসমিন কৌশলে কথা বলতে বলতে তাকে মথুরডাঙ্গা আটকুষি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে নিয়ে যায়। 

এরপর সেখানে ওতপেতে থাকা জেসমিনের স্বামী সোহেল, দেবর সুমন ও হৃদয় ওই যুবককে ঘিরে ফেলে এবং চাকুর ভয় দেখিয়ে মোবাইল ফোন, নগদ টাকা ও জ্যাকেটটিও খুলে নেয়। এ ঘটনায় নগর ডিবি পুলিশে একটি অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী যুবক। এর পরিপ্রেক্ষিতে ডিবি পুলিশ ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের শনাক্ত করে। 

এরপর তাদের গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ছিনতাই করা মোবাইল ফোন, জ্যাকেট ও নগদ টাকা এবং ছিনতাই কাজে ব্যবহৃত তিনটি চাকু উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতার চারজনের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলেও জানান নগর ডিবি পুলিশের কর্মকর্তা আরেফিন জুয়েল।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন