শাবিতে অবরোধ তুলে নিলেন শিক্ষার্থীরা, খুলেছে অফিস
jugantor
শাবিতে অবরোধ তুলে নিলেন শিক্ষার্থীরা, খুলেছে অফিস

  শাবি প্রতিনিধি  

২৭ জানুয়ারি ২০২২, ১৮:৪৬:৪৯  |  অনলাইন সংস্করণ

অবশেষে ১০ দিন পর শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের অবরোধ তুলে নেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে এ অবরোধ তুলে নেন শিক্ষার্থীরা।

এদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক, রেজিস্ট্রার ভবন, কন্ট্রোলার ভবন এবং সব একাডেমিক ভবনের তালা খুলে দেওয়া হয়। সচল হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিসিয়াল কার্যক্রম।

এর আগে বুধবার উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমদের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনে অনশনে থাকার পর ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল এবং তার স্ত্রী ড. ইয়াসমিন হকের অনুরোধে শিক্ষার্থীরা অনশন থেকে সরে আসেন। তবে উপাচার্যের পদত্যাগের আগপর্যন্ত শান্তিপূর্ণ আন্দোলন অব্যাহত থাকবে বলে জানান শিক্ষার্থীরা।

শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের অংশ হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড, রোড পেইন্টিং, সভা- সমাবেশ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক, রেজিস্ট্রার ভবন, কন্ট্রোলার ভবন এবং সব একাডেমিক ভবনের তালা খুলে দেওয়া হবে বলে জানান শিক্ষার্থীরা। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী তালা খুলে দেন শিক্ষার্থীরা। সচল হয় বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বাভাবিক চলাচল এবং শুরু হয় সব অফিসিয়াল কার্যক্রম।

এর আগে গত ১৭ জানুয়ারি উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে পুলিশের প্রবেশ ঠেকাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকসহ সব প্রবেশপথ বন্ধ করে দেন। আন্দোলনের অংশ হিসেবে তালা ঝুলিয়ে দেন রেজিস্ট্রার ভবন, কন্ট্রোলার ভবনসহ সব একাডেমিক ভবনে।

এর আগে বুধবার রাত সাড়ে ১০টায় এক সংবাদ সম্মেলনে আন্দোলনরত শিক্ষার্থী মোহাইমিনুল বাশার রাজ বলেন, আমরা আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব অবরোধ তুলে নেব। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকসহ সব ফটক খুলে দেব। সব একাডেমিক ভবনের তালাও খুলে দেওয়া হবে।

উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে প্রায় ১৬৩ ঘণ্টা অনশনের পর ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল এবং তার স্ত্রী ড. ইয়াসমিন হকের অনুরোধে অনশন থেকে সরে আসেন শিক্ষার্থীরা। তবে শিক্ষার্থীদের এক দফা দাবি উপাচার্যের পদত্যাগের আগপর্যন্ত শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চালিয়ে যাবেন শিক্ষার্থীরা বলে ঘোষণা দেন।

শাবিতে অবরোধ তুলে নিলেন শিক্ষার্থীরা, খুলেছে অফিস

 শাবি প্রতিনিধি 
২৭ জানুয়ারি ২০২২, ০৬:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

অবশেষে ১০ দিন পর শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের অবরোধ তুলে নেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে এ অবরোধ তুলে নেন শিক্ষার্থীরা।

এদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক, রেজিস্ট্রার ভবন, কন্ট্রোলার ভবন এবং সব একাডেমিক ভবনের তালা খুলে দেওয়া হয়। সচল হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অফিসিয়াল কার্যক্রম।

এর আগে বুধবার উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমদের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলনে অনশনে থাকার পর ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল এবং তার স্ত্রী ড. ইয়াসমিন হকের অনুরোধে শিক্ষার্থীরা অনশন থেকে সরে আসেন। তবে উপাচার্যের পদত্যাগের আগপর্যন্ত শান্তিপূর্ণ আন্দোলন অব্যাহত থাকবে বলে জানান শিক্ষার্থীরা।

শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের অংশ হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড, রোড পেইন্টিং, সভা- সমাবেশ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক, রেজিস্ট্রার ভবন, কন্ট্রোলার ভবন এবং সব একাডেমিক ভবনের তালা খুলে দেওয়া হবে বলে জানান শিক্ষার্থীরা। পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী তালা খুলে দেন শিক্ষার্থীরা। সচল হয় বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বাভাবিক চলাচল এবং শুরু হয় সব অফিসিয়াল কার্যক্রম।

এর আগে গত ১৭ জানুয়ারি উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে পুলিশের প্রবেশ ঠেকাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকসহ সব প্রবেশপথ বন্ধ করে দেন। আন্দোলনের অংশ হিসেবে তালা ঝুলিয়ে দেন রেজিস্ট্রার ভবন, কন্ট্রোলার ভবনসহ সব একাডেমিক ভবনে।

এর আগে বুধবার রাত সাড়ে ১০টায় এক সংবাদ সম্মেলনে আন্দোলনরত শিক্ষার্থী মোহাইমিনুল বাশার রাজ বলেন, আমরা আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব অবরোধ তুলে নেব। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকসহ সব ফটক খুলে দেব। সব একাডেমিক ভবনের তালাও খুলে দেওয়া হবে।

উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে প্রায় ১৬৩ ঘণ্টা অনশনের পর ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল এবং তার স্ত্রী ড. ইয়াসমিন হকের অনুরোধে অনশন থেকে সরে আসেন শিক্ষার্থীরা। তবে শিক্ষার্থীদের এক দফা দাবি উপাচার্যের পদত্যাগের আগপর্যন্ত শান্তিপূর্ণ আন্দোলন চালিয়ে যাবেন শিক্ষার্থীরা বলে ঘোষণা দেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন