করোনা আক্রান্ত হওয়ায় নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন চেয়ারম্যান প্রার্থী!
jugantor
করোনা আক্রান্ত হওয়ায় নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন চেয়ারম্যান প্রার্থী!

  কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী)  প্রতিনিধি  

২৮ জানুয়ারি ২০২২, ০০:৩২:৪৪  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রচারণায় নেমে করোনা আক্রান্ত হওয়া নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ৩নং চরহাজারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. নুরুল হুদা এবারের নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় তিনি বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মো. নুরুল হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন। এবার উপজেলায় উন্মুক্ত নির্বাচন হচ্ছে। ফলে দলীয় প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়নি।

এরা আগে বুধবার রাতে নিজের ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে উপযুক্ত প্রার্থীকে নির্বাচিত করতে ইউনিয়নবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।

মো. নুরুল হুদা বলেন, আমি ও আমার বড় ছেলে নুরুল করিম জুয়েল করোনায় আক্রান্ত। ২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আমাদের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। আমি বিষয়টি নির্বাচন কমিশনে জানিয়েও কোনো সদুত্তর পাইনি। তাই আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালাম।

এর আগে গত ১৭ জানুয়ারি নির্বাচনী প্রচারণা শেষে অসুস্থ বোধ করায় করোনা পরীক্ষা দিয়ে পজিটিভ ফলাফল আসে মো. নুরুল হুদার। তার প্রতীক টেলিফোন। আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি সপ্তম ধাপে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে কোম্পানীগঞ্জের স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের বিবাদে কোনোপক্ষকেই নৌকা প্রতীক না দিয়ে উন্মুক্ত (স্বতন্ত্র) নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। এতে দুইপক্ষ আলাদা প্রার্থী দিয়ে ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছে।

করোনা আক্রান্ত হওয়ায় নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন চেয়ারম্যান প্রার্থী!

 কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী)  প্রতিনিধি 
২৮ জানুয়ারি ২০২২, ১২:৩২ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রচারণায় নেমে করোনা আক্রান্ত হওয়া নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ৩নং চরহাজারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো. নুরুল হুদা এবারের নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার (২৭ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় তিনি বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

মো. নুরুল হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন। এবার উপজেলায় উন্মুক্ত নির্বাচন হচ্ছে। ফলে দলীয় প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়নি।

এরা আগে বুধবার রাতে নিজের ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে উপযুক্ত প্রার্থীকে নির্বাচিত করতে ইউনিয়নবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।

মো. নুরুল হুদা বলেন, আমি ও আমার বড় ছেলে নুরুল করিম জুয়েল করোনায় আক্রান্ত। ২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত আমাদের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। আমি বিষয়টি নির্বাচন কমিশনে জানিয়েও কোনো সদুত্তর পাইনি। তাই আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালাম।

এর আগে গত ১৭ জানুয়ারি নির্বাচনী প্রচারণা শেষে অসুস্থ বোধ করায় করোনা পরীক্ষা দিয়ে পজিটিভ ফলাফল আসে মো. নুরুল হুদার। তার প্রতীক টেলিফোন। আগামী ৭ ফেব্রুয়ারি সপ্তম ধাপে এ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

এদিকে কোম্পানীগঞ্জের স্থানীয় আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের বিবাদে কোনোপক্ষকেই নৌকা প্রতীক না দিয়ে উন্মুক্ত (স্বতন্ত্র) নির্বাচনের ঘোষণা দিয়েছে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। এতে দুইপক্ষ আলাদা প্রার্থী দিয়ে ভোটযুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন