মুখে বিষ ঢেলে গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ
jugantor
মুখে বিষ ঢেলে গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ

  রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি  

২৮ জানুয়ারি ২০২২, ২১:২৬:৪৫  |  অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে রুমা আক্তার নামে (২২) এক গৃহবধূর মুখে বিষ ঢেলে হত্যার অভিযোগে স্বামী সোহেলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার দুপুরে উপজেলার দক্ষিণ কেরোয়া গ্রামের তজুমুদ্দিন মিঝিবাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

শুক্রবার সকালে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান রুমা। এ ঘটনায় স্বজন ও এলাকাবাসীর মাঝে তোলপাড় ও ক্ষোভ বিরাজ করছে।

নিহত রুমা কেরোয়া গ্রামের তজমুদ্দিন মিঝিবাড়ির ইউসুফের মেয়ে। অভিযুক্ত সোহেল একই এলাকার মৃত সেকান্দরের ছেলে।

পুলিশ ও নিহতের স্বজনরা জানান, প্রায় ১০ বছর আগে সোহেল প্রেম করে রুমাকে বিয়ে করেন। বিয়ের কয়েক মাস পরেই তাদের সংসারে অশান্তি শুরু হয়।

অপরদিকে স্বামী সোহেলের বিরুদ্ধে মাদক ও হত্যাসহ একাধিক মামলাও রয়েছে থানায়। তাদের সংসারে রিয়াদ (৮) নামে একটি ছেলেসন্তানও রয়েছে। ২৩ জানুয়ারি রোববার রাত ৮টায় রুমার মুখে কীটনাশক (বিষ) ঢেলে পালিয়ে যায় স্বামী সোহেল।

এ সময় রুমার চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এসে উদ্ধার করে রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। এতে রুমার অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে জেলা সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। সেখান থেকে কর্তব্যরত চিকিৎসক নোয়াখালী সদর হাসপাতালে পাঠান। এরপর অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

নিহত রুমার মা শুকুরি বেগম বলেন, আমার মেয়ের কাছ থেকে অনেক দিন ধরে সোহেলসহ তার পরিবার যৌতুক দাবি করে আসছিল। তা পূরণ না হওয়ায় সোহেল পরিবারের লোকজনের প্ররোচনায় বিষপান করিয়ে হত্যা করেছে। আমি এ হত্যার বিচার চাই।

রায়পুর থানার এসআই ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আল আমিন বলেন, নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা হয়েছে। অভিযুক্ত সোহেলকে আটক করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। নিহত রুমার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

মুখে বিষ ঢেলে গৃহবধূকে হত্যার অভিযোগ

 রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি 
২৮ জানুয়ারি ২০২২, ০৯:২৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে রুমা আক্তার নামে (২২) এক গৃহবধূর মুখে বিষ ঢেলে হত্যার অভিযোগে স্বামী সোহেলকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার দুপুরে উপজেলার দক্ষিণ কেরোয়া গ্রামের তজুমুদ্দিন মিঝিবাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। 

শুক্রবার সকালে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান রুমা। এ ঘটনায় স্বজন ও এলাকাবাসীর মাঝে তোলপাড় ও ক্ষোভ বিরাজ করছে।

নিহত রুমা কেরোয়া গ্রামের তজমুদ্দিন মিঝিবাড়ির ইউসুফের মেয়ে। অভিযুক্ত সোহেল একই এলাকার মৃত সেকান্দরের ছেলে।

পুলিশ ও নিহতের স্বজনরা জানান, প্রায় ১০ বছর আগে সোহেল প্রেম করে রুমাকে বিয়ে করেন। বিয়ের কয়েক মাস পরেই তাদের সংসারে অশান্তি শুরু হয়।

অপরদিকে স্বামী সোহেলের বিরুদ্ধে মাদক ও হত্যাসহ একাধিক মামলাও  রয়েছে থানায়। তাদের সংসারে রিয়াদ (৮) নামে একটি ছেলেসন্তানও রয়েছে। ২৩ জানুয়ারি রোববার রাত ৮টায় রুমার মুখে কীটনাশক (বিষ) ঢেলে পালিয়ে যায় স্বামী সোহেল। 

এ সময় রুমার চিৎকারে স্থানীয় লোকজন এসে উদ্ধার করে রায়পুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। এতে রুমার অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে জেলা সদর হাসপাতালে স্থানান্তর করেন। সেখান থেকে কর্তব্যরত চিকিৎসক নোয়াখালী সদর হাসপাতালে পাঠান। এরপর অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

নিহত রুমার মা শুকুরি বেগম বলেন, আমার মেয়ের কাছ থেকে অনেক দিন ধরে সোহেলসহ তার পরিবার যৌতুক দাবি করে আসছিল। তা পূরণ না হওয়ায় সোহেল পরিবারের লোকজনের প্ররোচনায় বিষপান করিয়ে হত্যা করেছে। আমি এ হত্যার বিচার চাই। 

রায়পুর থানার এসআই ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আল আমিন বলেন, নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা হয়েছে। অভিযুক্ত সোহেলকে আটক করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। নিহত রুমার লাশ ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে  পাঠানো হয়েছে। 
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন