বাঞ্ছারামপুরে আ’লীগ সভাপতির নির্দেশে তিতাস থেকে বালু উত্তোলন

  বাঞ্ছারামপুর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি ২২ মে ২০১৮, ২২:২৬ | অনলাইন সংস্করণ

শ্যালোচালিত মেশিনের মাধ্যমে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন
শ্যালোচালিত মেশিনের মাধ্যমে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন। ছবি: যুগান্তর

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুরে তিতাস নদী থেকে ফরদাবাদ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল আজিজের নির্দেশে শ্যালোচালিত মেশিনের মাধ্যমে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করছে স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী ব্যক্তি।

এই বালি উত্তোলন করে দুই টাকা ঘনফুট হিসেবে বিক্রি করা হচ্ছে। বালু উত্তোলনের কারণে নদীর দুই তীরে ফসলি জমি ভাঙনের আশঙ্কা করছেন কৃষকরা।

গত ১০ দিন ধরে একই স্থান থেকে বালু উত্তোলন করে এক বিঘা ফসলি জমি ও গর্ত ভরাট করা হয়েছে। ভূমি অফিস কেনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না এই বিষয়ে জনমনে বিভিন্ন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

তবে বাঞ্ছারামপুর ভূমি অফিসের সহকারী কমিশনার (ভূমি) আলমগীর হোসেন বলেন, বিষয়টি আমরা জানি না।

সোমবার সকালে বাঞ্ছারামপুর উপজেলার ফরদাবাদ ইউনিয়নের পূর্বহাটি মধ্যপাড়ার (সরকার বাড়ির) পশ্চিম পাশে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় তিতাস নদী থেকে শ্যালোচালিত ইঞ্জিন দিয়ে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে।

এই বালু একই গ্রামের আমজাদ বেগের জমি ভরাট করা হচ্ছে। তার জমির সঙ্গে আরও কয়েক বিঘা জমিতেও বাঁধ দেয়া হয়েছে বালু ভরাট করার জন্য।

এই বালু উত্তোলনের বিষয়টি তদারকি করছেন পূর্বহাটি গ্রামের জসিম উদ্দিন জেসমিন, মির্জা ময়নাল বেগ ও আমজাদ বেগ। ইতিমধ্যে প্রায় ৬০ হাজার ঘনফুট বালি উত্তোলন করা হয়েছে।

এ বিষয়ে ছলিমাবাদ ইউনিয়ন সহকারী ভূমি কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম জানান, তিতাশ নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের বিষয়টি এসিল্যান্ড স্যার আমকে টেলিফোনে বলেছেন। আমি ঘটনাস্থলে যাচ্ছি ব্যবস্থা নেয়ার জন্য।

এ বিষয়ে ড্রেজার মালিক গাওরাটলি গ্রামের অলি আহমেদ জানান, পূর্বহাটি গ্রামের জসিম উদ্দিন জেসমিন আমার সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদের কবরস্থান ও কিছু জমি ভরাট করার জন্য। দুই টাকা প্রতি ফুট হিসেবে তিতাস নদী থেকে বালু উত্তোলনের বিষয়ে আমার সঙ্গে কথা চূড়ান্ত হয়। সেই হিসেবে আমি গত কয়েক দিন ধরে বালু উত্তোলন করছি। ইতিমধ্যেই আমজাদ বেগ ও কবরস্থানের কিছু যায়গায় প্রায় ৬০ হাজার ঘনফুট বালু উত্তোলন করছি। আরও দুই লাখ বালু উত্তোলন করব একই জায়গায়।

এবিষয়ে বালু উত্তোলনকারী জসিম উদ্দিন জেসমিন বলেন, আমরা কবরস্থানের তিন বিঘা জমি ভরাটের জন্য নদী থেকে মাটি কাটছি। প্রতি ফিট দুই টাকা হারে ড্রেজার মালিককে দিচ্ছি। আওয়ামী লীগ সভাপতি আজিজ ভাই মাটি কাটার ব্যাপারে উপরের পর্যায় থেকে আমাদের ব্যবস্থা করে দিয়েছে। কবরস্থানের পাশে আমজাদ মিয়ার জায়গাটাও ভরাট করেছি কৌশলগত কারণে। আমজাদ মিয়াও আমাদের টাকা দিয়ে দেবে।

এ ব্যাপারে ফরদাবাদ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল আজিজ বলেন, পূর্বহাটি গ্রামের কয়েকজন আমার কাছে এসেছিল তাদের কবরস্থান তিতাশ নদী থেকে মাটি উঠিয়ে ভরাট করার জন্য। আমি উপরের লেবেলে কথা বলে তাদের মৌখিকভাবে অনুমিত এনে দিয়েছি। কিন্তু তারা অন্যের জমিতে মাটি ভরাট করেছে শুনে আমি তাদের নিষেধ করেছি, আর যেন অন্য জমি না ভরাট করতে।

এ বিষয়ে বাঞ্ছারামপুরের সহকারী কমিশনার (ভূমি) আলমগীর হোসেন জানান, পূর্বহাটি গ্রামের তিতাস নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের বিষয়টি আমি জানি না। তবে আজকে যেহেতু জানলাম বুধবারের মধ্যেই তা বন্ধের ব্যবস্থা নেব।

 

 

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.