বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ানোর আহবান হেফাজতে ইসলাম নেতাদের
jugantor
বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ানোর আহবান হেফাজতে ইসলাম নেতাদের

  হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি  

২০ মে ২০২২, ০০:৪৩:৫৭  |  অনলাইন সংস্করণ

বন্যার্ত অসহায় মানুষের যার যার সামর্থ্যানুযায়ী পাশে দাঁড়ানোর উদাত্ত আহবান জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় নেতারা। বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে হেফাজত নেতারা এ আহবান জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে হেফাজতের কেন্দ্রীয় আমীর আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী ও মহাসচিব আল্লামা সাজিদুর রহমান বলেন, সিলেটের বন্যাকবলিত অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো আমাদের ইমানি দায়িত্ব। ইসলাম মানবতার ধর্ম। এক মুসলমান অপর মুসলমানের ভাই। মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত ও বিপদগ্রস্ত হলে তাদের পাশে দাঁড়ানো, বিপদ মুক্তির জন্য সাহায্য করা ইসলামের শিক্ষা। তাদের দুর্দিনে আর্থিক সহায়তা, খাবার-দাবার, ত্রাণ ও পুনর্বাসন এবং চিকিৎসাসেবায় এগিয়ে আসা ইমানের দাবি। নামাজ, রোজা, হজ, জাকাতের মতো অসহায়-দুর্গত মানুষদের সাহায্য করাও ইবাদত।

হেফাজত নেতৃদ্বয় বলেন, তবে এ ব্যয়, দান ও দয়া হতে হবে নিঃস্বার্থভাবে, অভাবী ও বিপন্ন মানুষের কাছ থেকে কোনোরকম প্রতিদানের আশা ছাড়া, কেবল আল্লাহতায়ালার সন্তুষ্টির জন্য। যেমন আল্লাহ-তায়ালা সেদিকে ইঙ্গিত দিয়ে বলেন, তারা আল্লাহর প্রেমে অভাবগ্রস্ত এতিম ও বন্দিদের খাবার দান করে।

তারা আরও বলেন, মানুষের বিপদে এগিয়ে এসে তার জন্য খরচ করাকে মহান আল্লাহ বিনিয়োগ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। আর তা তিনি বহুগুণ ফেরত দেওয়ার ওয়াদা করেছেন। এছাড়া মানবতার নবী মুহাম্মদ (সা.) সব সময় অসহায় ও বিপন্ন মানুষের পাশে দাঁড়াতেন, তাদের প্রতি সহযোগিতা ও সহমর্মিতার হাত বাড়িয়ে দিতেন। মদিনার আনসার সাহাবিরা মুহাজির সাহাবিদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন।

বন্যার্তদের পাশে দাঁড়ানোর আহবান হেফাজতে ইসলাম নেতাদের

 হাটহাজারী (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি 
২০ মে ২০২২, ১২:৪৩ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বন্যার্ত অসহায় মানুষের যার যার সামর্থ্যানুযায়ী পাশে দাঁড়ানোর উদাত্ত আহবান জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় নেতারা। বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে হেফাজত নেতারা এ আহবান জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে হেফাজতের কেন্দ্রীয় আমীর আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী ও মহাসচিব আল্লামা সাজিদুর রহমান বলেন, সিলেটের বন্যাকবলিত অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ানো আমাদের ইমানি দায়িত্ব। ইসলাম মানবতার ধর্ম। এক মুসলমান অপর মুসলমানের ভাই। মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত ও বিপদগ্রস্ত হলে তাদের পাশে দাঁড়ানো, বিপদ মুক্তির জন্য সাহায্য করা ইসলামের শিক্ষা। তাদের দুর্দিনে আর্থিক সহায়তা, খাবার-দাবার, ত্রাণ ও পুনর্বাসন এবং চিকিৎসাসেবায় এগিয়ে আসা ইমানের দাবি। নামাজ, রোজা, হজ, জাকাতের মতো অসহায়-দুর্গত মানুষদের সাহায্য করাও ইবাদত।

হেফাজত নেতৃদ্বয় বলেন, তবে এ ব্যয়, দান ও দয়া হতে হবে নিঃস্বার্থভাবে, অভাবী ও বিপন্ন মানুষের কাছ থেকে কোনোরকম প্রতিদানের আশা ছাড়া, কেবল আল্লাহতায়ালার সন্তুষ্টির জন্য। যেমন আল্লাহ-তায়ালা সেদিকে ইঙ্গিত দিয়ে বলেন, তারা আল্লাহর প্রেমে অভাবগ্রস্ত এতিম ও বন্দিদের খাবার দান করে। 

তারা আরও বলেন, মানুষের বিপদে এগিয়ে এসে তার জন্য খরচ করাকে মহান আল্লাহ বিনিয়োগ হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন। আর তা তিনি বহুগুণ ফেরত দেওয়ার ওয়াদা করেছেন। এছাড়া মানবতার নবী মুহাম্মদ (সা.) সব সময় অসহায় ও বিপন্ন মানুষের পাশে দাঁড়াতেন, তাদের প্রতি সহযোগিতা ও সহমর্মিতার হাত বাড়িয়ে দিতেন। মদিনার আনসার সাহাবিরা মুহাজির সাহাবিদের প্রতি সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে গেছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন