পুরুষ সেজে আরেক মেয়েকে বিয়ে, অতঃপর...
jugantor
পুরুষ সেজে আরেক মেয়েকে বিয়ে, অতঃপর...

  রাজশাহী ব্যুরো  

২৭ মে ২০২২, ১৭:৩৩:০৯  |  অনলাইন সংস্করণ

মেয়ে হয়েও পুরুষ সেজে আরেক মেয়েকে বিয়ে করে গত কয়েক দিন ধরে একসঙ্গে থাকছিল তারা। কয়েক দিন আগে তারা বাড়ি থেকে পালিয়ে আত্মগোপন করেন। পরে তারা বিয়ে করেন। বিষয়টি দুই পরিবারের কেউই আগে জানতে পারেননি।

গত বৃহস্পতিবার এক মেয়ের পরিবার রাজশাহীর গোদাগাড়ী থানাধীন প্রেমতলী পুলিশ ফাঁড়িতে একটি অভিযোগ দেন। শুক্রবার সকালে পুলিশ গোদাগাড়ী পৌর এলাকার একটি বাড়ি থেকে দুই মেয়েকে উদ্ধার করে নিজ নিজ অভিভাবকের জিম্মায় পাঠিয়ে দিয়েছেন।

এক মেয়ের কাছ থেকে একটি কৃত্রিম পুরুষাঙ্গ উদ্ধার করেছে পুলিশ। দুই মেয়ের একত্রে বসবাসের ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার এক মেয়ের (২৩) বছর দুয়েক আগে বিয়ে হয় পৌর এলাকায়। তাদের একটি মেয়েসন্তান আছে।

পারিবারিক ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ওই মেয়ের সঙ্গে একই গ্রামের আরেকজনের স্ত্রীর এক ধরনের বিশেষ সম্পর্ক গড়ে উঠে। তাদের এ সম্পর্ক গভীর হয়ে উঠলে মেয়েটি স্বামীর বাড়িতে যাওয়া বন্ধ করে দেন। সেই থেকে তিনি বাপের বাড়িতে থাকছিলেন।

এদিকে গত বছর নভেম্বরে মেয়েটি হঠাৎ করে তার পরিবারকে জানান, তিনি প্রকৃতির নিয়মে মেয়ে থেকে ছেলেতে রূপান্তরিত হয়েছেন। তিনি মেয়েদের পোশাক ছেড়ে ছেলেদের মতো জিন্স প্যান্ট ও টিশার্ট পরা শুরু করেন। ছেলেদের মতো করে চুল কাটেন। গত ২ নভেম্বর কাজী অফিসের মাধ্যমে তার স্বামীকে তালাক দেন।

একই সঙ্গে তার সঙ্গে অপরজনের স্ত্রীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক আরও গভীর হয়। তারা পরস্পর নিজেদের মধ্যে দেখা সাক্ষাৎ ছাড়াও মোবাইল ফোনে গল্প করতেন গভীর রাত পর্যন্ত। মেয়েটি ছেলেদের মতো করে গ্রামে চলাফেরা করতেন। পরিবার ও পাড়াপ্রতিবেশীরা বিষয়টি তেমন গুরুত্বের সঙ্গে নেননি। বরং তারা তার পুরুষালি চলাফেরার ঘটনা উপভোগই করতেন। ঠাট্টা মজা করতেন এ নিয়ে।

এলাকাবাসী আরও জানান, গত ১৭ মে অপর মেয়ে স্বামীকে তালাকনামা পাঠান। পরে রাতের বেলা মেয়েটির সঙ্গে গৃহত্যাগ করে আত্মগোপনে চলে যান। তারা ঢাকায় গিয়ে এক আত্মীয়র বাড়িতে উঠেন। সেখানে এক কাজী অফিসে গিয়ে তারা বিয়ে করেন। বিয়ের কাবিননামায় মেয়েটির নাম দেওয়া হয় ফাহিম হোসেন।

ঢাকায় এক আত্মীয়র বাড়িতে অবস্থান শেষে বৃহস্পতিবার রাতে ফাহিম ও অপর মেয়েটি গোদাগাড়ীর মাদারপুর এলাকার আত্মীয় জুয়েল রানার বাড়িতে উঠেন। এলাকায় ফেরার পরপরই লোকজনের মাধ্যমে ঘটনাটি জানাজানি হয়। শুক্রবার সকাল থেকেই এলাকার লোকজন জুয়েল রানার বাড়িতে ভিড় করেন তাদের একনজর দেখার জন্য। ঘটনা শুনে দূরের লোকজনও ভিড় করেন সেখানে।

অন্যদিকে গত বৃহস্পতিবার রাতে ছেলে বলে পরিচয় দেওয়া মেয়েটির চাচা গোদাগাড়ী থানায় একটি অভিযোগ করেন। এ অভিযোগে তিনি দাবি করেন- তার ভাতিজি ছেলেতে রূপান্তরিত হয়েছে কিছুদিন আগে। আর তাকে অপহরণ করে গুম করেছে অপর মেয়েটি ও তার পরিবার। পুলিশ অভিযোগের সূত্র ধরে শুক্রবার সকালে মাদারপুর মহল্লার জুয়েল রানার বাড়ি থেকে জিন্স প্যান্ট ও টি-সার্ট পরা ছেলেরূপী মেয়ে ও অপর মেয়েকে উদ্ধার করে।

সেখানে এলাকাবাসীর দাবির মুখে মহল্লার দুইজন নারী ছেলেরূপী মেয়েকে আলাদা ঘরে নিয়ে তার অঙ্গ ও শারীরিক পরীক্ষা করেন। সেখানে মেয়েটির কোমরে বাধা অবস্থায় একটি কৃত্রিম পুরুষাঙ্গ উদ্ধার করা হয়। কৃত্রিম পুরুষাঙ্গটি পুলিশ অবশ্য পরে জব্দ করে।

এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই নারীদের একজন যুগান্তরকে জানান, মেয়েটি পরিবার ও অপর মেয়েকে ধোঁকা দিয়েছে। তারা ছেলেরূপী মেয়েটির শারীরিক পরীক্ষা করেছেন বেশ ভালোভাবেই। তিনি পুরোপুরি মেয়েই আছেন। পুরুষে রূপান্তরের কোনো লক্ষণই তার শরীরে নেই। তিনি পুরুষ সেজে প্রতারণা করে অপর মেয়েকে বিয়ে করেছেন। এটা তাদের মানসিক সমস্যা হতে পারে। পরে দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে পুলিশ নিজ নিজ পরিবারের জিম্মায় পাঠিয়ে দেন।

ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে গোদাগাড়ী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামরুল ইসলাম জানান, মেয়েটি নিজের নাম ফাহিম উল্লেখ করে অপর মেয়ের সঙ্গে ঢাকার কোনো এক কাজী অফিসে বিয়ে করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। কিন্তু কাবিননামাটি পুলিশ উদ্ধার করতে পারেনি। বিষয়টি স্পর্শকাতর। দুই মেয়ের বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ অথবা একসঙ্গে বসবাস কোনোটারই আইনি বৈধতা নেই। আর এমন ব্যতিক্রমী ঘটনা সামাজিকভাবেও গ্রহণযোগ্য নয়। ফলে তাদের নিজ নিজ অভিভাবকের জিম্মায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

পুরুষ সেজে আরেক মেয়েকে বিয়ে, অতঃপর...

 রাজশাহী ব্যুরো 
২৭ মে ২০২২, ০৫:৩৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মেয়ে হয়েও পুরুষ সেজে আরেক মেয়েকে বিয়ে করে গত কয়েক দিন ধরে একসঙ্গে থাকছিল তারা। কয়েক দিন আগে তারা বাড়ি থেকে পালিয়ে আত্মগোপন করেন। পরে তারা বিয়ে করেন। বিষয়টি দুই পরিবারের কেউই আগে জানতে পারেননি।

গত বৃহস্পতিবার এক মেয়ের পরিবার রাজশাহীর গোদাগাড়ী থানাধীন প্রেমতলী পুলিশ ফাঁড়িতে একটি অভিযোগ দেন। শুক্রবার সকালে পুলিশ গোদাগাড়ী পৌর এলাকার একটি বাড়ি থেকে দুই মেয়েকে উদ্ধার করে নিজ নিজ অভিভাবকের জিম্মায় পাঠিয়ে দিয়েছেন।

এক মেয়ের কাছ থেকে একটি কৃত্রিম পুরুষাঙ্গ উদ্ধার করেছে পুলিশ। দুই মেয়ের একত্রে বসবাসের ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার এক মেয়ের (২৩) বছর দুয়েক আগে বিয়ে হয় পৌর এলাকায়। তাদের একটি মেয়েসন্তান আছে।

পারিবারিক ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ওই মেয়ের সঙ্গে একই গ্রামের আরেকজনের স্ত্রীর এক ধরনের বিশেষ সম্পর্ক গড়ে উঠে। তাদের এ সম্পর্ক গভীর হয়ে উঠলে মেয়েটি স্বামীর বাড়িতে যাওয়া বন্ধ করে দেন। সেই থেকে তিনি বাপের বাড়িতে থাকছিলেন।

এদিকে গত বছর নভেম্বরে মেয়েটি হঠাৎ করে তার পরিবারকে জানান, তিনি প্রকৃতির নিয়মে মেয়ে থেকে ছেলেতে রূপান্তরিত হয়েছেন। তিনি মেয়েদের পোশাক ছেড়ে ছেলেদের মতো জিন্স প্যান্ট ও টিশার্ট পরা শুরু করেন। ছেলেদের মতো করে চুল কাটেন। গত ২ নভেম্বর কাজী অফিসের মাধ্যমে তার স্বামীকে তালাক দেন।

একই সঙ্গে তার সঙ্গে অপরজনের স্ত্রীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক আরও গভীর হয়। তারা পরস্পর নিজেদের মধ্যে দেখা সাক্ষাৎ ছাড়াও মোবাইল ফোনে গল্প করতেন গভীর রাত পর্যন্ত। মেয়েটি ছেলেদের মতো করে গ্রামে চলাফেরা করতেন। পরিবার ও পাড়াপ্রতিবেশীরা বিষয়টি তেমন গুরুত্বের সঙ্গে নেননি। বরং তারা তার পুরুষালি চলাফেরার ঘটনা উপভোগই করতেন। ঠাট্টা মজা করতেন এ নিয়ে।

এলাকাবাসী আরও জানান, গত ১৭ মে অপর মেয়ে স্বামীকে তালাকনামা পাঠান। পরে রাতের বেলা মেয়েটির সঙ্গে গৃহত্যাগ করে আত্মগোপনে চলে যান। তারা ঢাকায়  গিয়ে এক আত্মীয়র বাড়িতে উঠেন। সেখানে এক কাজী অফিসে গিয়ে তারা বিয়ে করেন। বিয়ের কাবিননামায় মেয়েটির নাম দেওয়া হয় ফাহিম হোসেন।

ঢাকায় এক আত্মীয়র বাড়িতে অবস্থান শেষে বৃহস্পতিবার রাতে ফাহিম ও অপর মেয়েটি গোদাগাড়ীর মাদারপুর এলাকার আত্মীয় জুয়েল রানার বাড়িতে উঠেন। এলাকায় ফেরার পরপরই লোকজনের মাধ্যমে ঘটনাটি জানাজানি হয়। শুক্রবার সকাল থেকেই এলাকার লোকজন জুয়েল রানার বাড়িতে ভিড় করেন তাদের একনজর দেখার জন্য। ঘটনা শুনে দূরের লোকজনও ভিড় করেন সেখানে।

অন্যদিকে গত বৃহস্পতিবার রাতে ছেলে বলে পরিচয় দেওয়া মেয়েটির চাচা গোদাগাড়ী থানায় একটি অভিযোগ করেন। এ অভিযোগে তিনি দাবি করেন- তার ভাতিজি ছেলেতে রূপান্তরিত হয়েছে কিছুদিন আগে। আর তাকে অপহরণ করে গুম করেছে অপর মেয়েটি ও তার পরিবার। পুলিশ অভিযোগের সূত্র ধরে শুক্রবার সকালে মাদারপুর মহল্লার জুয়েল রানার বাড়ি থেকে জিন্স প্যান্ট ও টি-সার্ট পরা ছেলেরূপী মেয়ে ও অপর মেয়েকে উদ্ধার করে।

সেখানে এলাকাবাসীর দাবির মুখে মহল্লার দুইজন নারী ছেলেরূপী  মেয়েকে আলাদা ঘরে নিয়ে তার অঙ্গ ও শারীরিক পরীক্ষা করেন। সেখানে মেয়েটির কোমরে বাধা অবস্থায় একটি কৃত্রিম পুরুষাঙ্গ উদ্ধার করা হয়। কৃত্রিম পুরুষাঙ্গটি পুলিশ অবশ্য পরে জব্দ করে।

এদিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই নারীদের একজন যুগান্তরকে জানান, মেয়েটি পরিবার ও অপর মেয়েকে ধোঁকা দিয়েছে। তারা ছেলেরূপী মেয়েটির শারীরিক পরীক্ষা করেছেন বেশ ভালোভাবেই। তিনি পুরোপুরি মেয়েই আছেন। পুরুষে রূপান্তরের কোনো লক্ষণই তার শরীরে নেই। তিনি পুরুষ সেজে প্রতারণা করে অপর মেয়েকে বিয়ে করেছেন। এটা তাদের মানসিক সমস্যা হতে পারে। পরে দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে পুলিশ নিজ নিজ পরিবারের জিম্মায় পাঠিয়ে দেন।

ঘটনার বিষয়ে জানতে চাইলে গোদাগাড়ী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কামরুল ইসলাম জানান, মেয়েটি নিজের নাম ফাহিম উল্লেখ করে অপর মেয়ের সঙ্গে ঢাকার কোনো এক কাজী অফিসে বিয়ে করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। কিন্তু কাবিননামাটি পুলিশ উদ্ধার করতে পারেনি। বিষয়টি স্পর্শকাতর। দুই মেয়ের বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ অথবা একসঙ্গে বসবাস কোনোটারই আইনি বৈধতা নেই। আর এমন ব্যতিক্রমী ঘটনা সামাজিকভাবেও গ্রহণযোগ্য নয়। ফলে তাদের নিজ নিজ অভিভাবকের জিম্মায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন