৭ বছর পালিয়ে থেকেও শেষ রক্ষা হলো না
jugantor
৭ বছর পালিয়ে থেকেও শেষ রক্ষা হলো না

  সোনাগাজী (ফেনী) প্রতিনিধি  

২৮ মে ২০২২, ২৩:৪৬:৫৩  |  অনলাইন সংস্করণ

১৬টি ডাকাতি মামলার গ্রেফতারি পরোয়ানা মাথায় নিয়ে ৭ বছর পলাতক থাকার পর মোহাম্মদ সোলাইমান (৪৫) নামে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের এক সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শনিবার রাতে তাকে চট্টগ্রাম জেলার মীরসরাই উপজেলার বারাইয়ার হাট রেললাইনের উপর থেকে গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃত সোলাইমান সোনাগাজী উপজেলার চরচান্দিয়া ইউনিয়নের চরচান্দিয়া গ্রামের মৃত মো. সেকান্তর মিয়ার ছেলে। তার বিরুদ্ধে সোনাগাজী, দাগনভূঞা, ফেনী মডেল থানা, কোম্পানীগঞ্জ ও চট্টগ্রামের কোতোয়ালি থানায় ১৬টি ডাকাতি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে।

পুলিশ জানায়, আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য মোহাম্মদ সোলাইমান দীর্ঘ সাত বছর পূর্বে ১৬টি ডাকাতি মামলায় কারাগার থেকে জামিন পান। জামিন লাভের পর আদালতে হাজিরা না দিয়ে স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে চট্টগ্রাম শহরে অজ্ঞাত স্থানে ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন। এদিকে র‌্যাব ও পুলিশ সদস্যরা তাকে গ্রেফতার করতে খুঁজতে থাকে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে পুলিশ সদস্যরা রিকশাচালক, পাঞ্জাবি ও টুপি পরে হুজুর সেজে রাত ৮টার দিকে তাকে গ্রেফতার করে।

সোনাগাজী মডেল থানার ওসি মুহাম্মদ খালেদ দাইয়্যান তাকে গ্রেফতারের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে সোলাইমান অর্ধশতাধিক বাড়িতে ডাকাতির কথা স্বীকার করলেও তার বিরুদ্ধে ১৬টি ডাকাতি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। অন্যান্য ঘটনাগুলোতে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়নি।

৭ বছর পালিয়ে থেকেও শেষ রক্ষা হলো না

 সোনাগাজী (ফেনী) প্রতিনিধি 
২৮ মে ২০২২, ১১:৪৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

১৬টি ডাকাতি মামলার গ্রেফতারি পরোয়ানা মাথায় নিয়ে ৭ বছর পলাতক থাকার পর মোহাম্মদ সোলাইমান (৪৫) নামে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের এক সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

শনিবার রাতে তাকে চট্টগ্রাম জেলার মীরসরাই উপজেলার বারাইয়ার হাট রেললাইনের উপর থেকে গ্রেফতার করে। 

গ্রেফতারকৃত সোলাইমান সোনাগাজী উপজেলার চরচান্দিয়া ইউনিয়নের চরচান্দিয়া গ্রামের মৃত মো. সেকান্তর মিয়ার ছেলে। তার বিরুদ্ধে সোনাগাজী, দাগনভূঞা, ফেনী মডেল থানা, কোম্পানীগঞ্জ ও চট্টগ্রামের কোতোয়ালি থানায় ১৬টি ডাকাতি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে।

পুলিশ জানায়, আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য মোহাম্মদ সোলাইমান দীর্ঘ সাত বছর পূর্বে ১৬টি  ডাকাতি মামলায় কারাগার থেকে জামিন পান। জামিন লাভের পর আদালতে হাজিরা না দিয়ে স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে চট্টগ্রাম শহরে অজ্ঞাত স্থানে ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন। এদিকে র‌্যাব ও পুলিশ সদস্যরা তাকে গ্রেফতার করতে খুঁজতে থাকে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে পুলিশ সদস্যরা রিকশাচালক, পাঞ্জাবি ও টুপি পরে হুজুর সেজে রাত ৮টার দিকে তাকে গ্রেফতার করে। 

সোনাগাজী মডেল থানার ওসি মুহাম্মদ খালেদ দাইয়্যান তাকে গ্রেফতারের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে সোলাইমান অর্ধশতাধিক বাড়িতে ডাকাতির কথা স্বীকার করলেও তার বিরুদ্ধে ১৬টি ডাকাতি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা রয়েছে। অন্যান্য ঘটনাগুলোতে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়নি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন