হাসপাতালে রোগীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ 
jugantor
হাসপাতালে রোগীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ 

  দেলদুয়ার (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি  

২৫ জুন ২০২২, ১৮:৫৬:০৮  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে এক নারী রোগীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে সিনিয়র স্টাফ নার্স আবুল হোসেন শিশিরের বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার বিকালে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে এ ঘটনা ঘটে।

ভিকটিমের অভিযোগ, ঘটনার দিন বিকাল ৩টায় পিঠে অস্ত্রোপচারের সেলাই কাটাতে জরুরি বিভাগে আসেন। সেখানে দায়িত্বরত সিনিয়র স্টাফ নার্স আবুল হোসেন শিশির প্রথমে তাকে পিঠের কাপড় সরাতে বলেন। পরে পিঠের ক্ষতস্থানে জোরে চাপ দেন। একপর্যায়ে শিশির কৌশলে তার শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেন।

এদিকে ঘটনাটি জানাজানি হলে শনিবার দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা প্রবির কুমার সরকার তার দপ্তরে জরুরি বৈঠক করেন। বৈঠকে উভয়পক্ষকে মীমাংসার জন্য একদিনের সময় বেঁধে দেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত আবুল হোসেন শিশির বলেন, ক্ষতস্থানে জোরে চাপ দিলে রোগী ভারসাম্য হারিয়ে নিচে পড়ে যাওয়ার অবস্থা হয়। আমি তাকে ধরে বসানোর চেষ্টা করেছি মাত্র।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা প্রবির কুমার সরকার বলেন, ভিকটিম এখনো লিখিত অভিযোগ দেননি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে জরুরি বিভাগের দায়িত্ব থেকে শিশিরকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

হাসপাতালে রোগীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ 

 দেলদুয়ার (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি 
২৫ জুন ২০২২, ০৬:৫৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে এক নারী রোগীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ উঠেছে সিনিয়র স্টাফ নার্স আবুল হোসেন শিশিরের বিরুদ্ধে। 

বৃহস্পতিবার বিকালে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে এ ঘটনা ঘটে। 

ভিকটিমের অভিযোগ, ঘটনার দিন বিকাল ৩টায় পিঠে অস্ত্রোপচারের সেলাই কাটাতে জরুরি বিভাগে আসেন। সেখানে দায়িত্বরত সিনিয়র স্টাফ নার্স আবুল হোসেন শিশির প্রথমে তাকে পিঠের কাপড় সরাতে বলেন। পরে পিঠের ক্ষতস্থানে জোরে চাপ দেন। একপর্যায়ে শিশির কৌশলে তার শরীরের বিভিন্ন স্পর্শকাতর স্থানে হাত দেন।

এদিকে ঘটনাটি জানাজানি হলে শনিবার দুপুরে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা প্রবির কুমার সরকার তার দপ্তরে জরুরি বৈঠক করেন। বৈঠকে উভয়পক্ষকে মীমাংসার জন্য একদিনের সময় বেঁধে দেন। 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে অভিযুক্ত আবুল হোসেন শিশির বলেন, ক্ষতস্থানে জোরে চাপ দিলে রোগী ভারসাম্য হারিয়ে নিচে পড়ে যাওয়ার অবস্থা হয়। আমি তাকে ধরে বসানোর চেষ্টা করেছি মাত্র।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা প্রবির কুমার সরকার বলেন, ভিকটিম এখনো লিখিত অভিযোগ দেননি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে জরুরি বিভাগের দায়িত্ব থেকে শিশিরকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন