কিশোরীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ-ভিডিও ধারণ, অতঃপর...
jugantor
কিশোরীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ-ভিডিও ধারণ, অতঃপর...

  ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

২৬ জুন ২০২২, ১৮:২১:২০  |  অনলাইন সংস্করণ

গণধর্ষণ

ময়মনসিংহের ভালুকায় এক কিশোরীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কৌশলে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ করে ভিডিও ধারণের পর ভয় দেখিয়ে টাকা দাবির ঘটনায় উজ্জল (২৩) ও বাচ্চু (৩০) নামে দুই যুবককে পুলিশ গ্রেফতার করেছে।

ভালুকা মডেল থানার পুলিশ গ্রেফতারকৃতদের আদালতে পাঠিয়েছে বলে জানা গেছে।

ভুক্তভোগীর পরিবার ও মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার সিডস্টোর এলাকায় অবস্থিত পাইওনিয়ার সুয়েটার ফ্যাক্টরিতে কাজ করে ওই কিশোরী। ফ্যাক্টরিতে কর্মরত একই উপজেলার অলহরি দুর্গাপুর গ্রামের আবুল কালামের ছেলে উজ্জল মিয়ার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সেই সুবাদে গত ২২ জুন রাতে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কৌশলে উজ্জল তার বন্ধু পানিভান্ডা গ্রামের আবু হানিফের বাড়িতে নিয়ে যায়।

পরদিন ওই কিশোরীকে উজ্জল তার সঙ্গী পানিভান্ডা গ্রামের জৈনাতলীর হোসেন আলীর ছেলে আহাম্মদ আলী ও ওই গ্রামের নতুনবাজার এলাকার মোখলেছুর রহমানের ছেলে বাচ্চু মিয়ার সহযোগিতায় বাড়ির কাছে একটি মাছের খামারের ঘরে নিয়ে উজ্জল ও তার বন্ধুরা ধর্ষণ করে এবং ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে। এ সময় কিশোরীর ডাক-চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসলে ধর্ষণকারীরা পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর বড়বোন বাদী হয়ে তিনজনকে আসামি করে শুক্রবার ভালুকা মডেল থানায় একটি মামলা করেন। পুলিশ এ ঘটনায় উজ্জল ও বাচ্চুকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠায়।

মামলার বাদী জানান, অভিযুক্ত উজ্জল, বাচ্চু ও আহাম্মদ তার বোনকে ধর্ষণ করে এবং ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে তা প্রকাশের হুমকি দিয়ে তার কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেছে। নিরুপায় হয়ে তিনি থানায় মামলা করেন।

ভালুকা মডেল থানার ওসি মো. কামাল হোসেন জানান, অভিযুক্ত দুই যুবককে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। অপর আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। ভিকটিমের স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে।

কিশোরীকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ-ভিডিও ধারণ, অতঃপর...

 ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
২৬ জুন ২০২২, ০৬:২১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ
গণধর্ষণ
প্রতীকী ছবি

ময়মনসিংহের ভালুকায় এক কিশোরীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কৌশলে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ করে ভিডিও ধারণের পর ভয় দেখিয়ে টাকা দাবির ঘটনায় উজ্জল (২৩) ও বাচ্চু (৩০) নামে দুই যুবককে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। 

ভালুকা মডেল থানার পুলিশ গ্রেফতারকৃতদের আদালতে পাঠিয়েছে বলে জানা গেছে। 
 
ভুক্তভোগীর পরিবার ও মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার সিডস্টোর এলাকায় অবস্থিত পাইওনিয়ার সুয়েটার ফ্যাক্টরিতে কাজ করে ওই কিশোরী। ফ্যাক্টরিতে কর্মরত একই উপজেলার অলহরি দুর্গাপুর গ্রামের আবুল কালামের ছেলে উজ্জল মিয়ার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সেই সুবাদে গত ২২ জুন রাতে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কৌশলে উজ্জল তার বন্ধু পানিভান্ডা গ্রামের আবু হানিফের বাড়িতে নিয়ে যায়। 

পরদিন ওই কিশোরীকে উজ্জল তার সঙ্গী পানিভান্ডা গ্রামের জৈনাতলীর হোসেন আলীর ছেলে আহাম্মদ আলী ও ওই গ্রামের নতুনবাজার এলাকার মোখলেছুর রহমানের ছেলে বাচ্চু মিয়ার সহযোগিতায় বাড়ির কাছে একটি মাছের খামারের ঘরে নিয়ে উজ্জল ও তার বন্ধুরা ধর্ষণ করে এবং ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে। এ সময় কিশোরীর ডাক-চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসলে ধর্ষণকারীরা পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগীর বড়বোন বাদী হয়ে তিনজনকে আসামি করে শুক্রবার ভালুকা মডেল থানায় একটি মামলা করেন। পুলিশ এ ঘটনায় উজ্জল ও বাচ্চুকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠায়।

মামলার বাদী জানান, অভিযুক্ত উজ্জল, বাচ্চু ও আহাম্মদ তার বোনকে ধর্ষণ করে এবং ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে তা প্রকাশের হুমকি দিয়ে তার কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেছে। নিরুপায় হয়ে তিনি থানায় মামলা করেন।

ভালুকা মডেল থানার ওসি মো. কামাল হোসেন জানান, অভিযুক্ত দুই যুবককে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। অপর আসামিকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। ভিকটিমের স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও জবানবন্দি রেকর্ড করা হয়েছে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন