মেয়ে হারানো বন্ধুকে সান্ত্বনা দিয়ে বাড়ি ফিরে দেখেন ছেলের লাশ
jugantor
মেয়ে হারানো বন্ধুকে সান্ত্বনা দিয়ে বাড়ি ফিরে দেখেন ছেলের লাশ

  কুমিল্লা ব্যুরো  

২৮ জুলাই ২০২২, ১৯:৫২:৪০  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে পুকুরে গোসল করতে গিয়ে পানিতে ডুবে প্রাণ গেল দুই স্কুলছাত্রের।

বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার বাতিশা ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে।

নিহতরা হলো- আবদুল কাইয়ুম ফাহমিদ (৯) ও আবদুর রহমান ফওয়াজ (৮)। দু’জনই আপন চাচাতো ভাই।

স্থানীয়রা জানান, স্কুলছাত্র ফাহমিদ ও ফওয়াজ সমবয়সী হওয়াতে তারা একসাথে চলাফেরা করত। স্থানীয় সোনাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র তারা।

বৃহস্পতিবার স্কুল ছুটির পর সবার অগোচরে দু’জনই বাড়ির পাশের মসজিদের পুকুরে গোসল করতে যায়। বিষয়টি কেউ জানতো না। বাড়িতে ফিরতে দেরি হওয়াতে ফাহিমের বাবা জালাল উদ্দিন ও ফওয়াজের বাবা বেলাল হোসেনসহ আত্মীয়স্বজনরা গ্রামের বিভিন্ন জায়গায় তাদের খোঁজাখুজি করেন। অবশেষে ওই পুকুরে স্থানীয়রা গোসল করতে নেমে দু’জনের লাশের সন্ধান পায়। দুইজনের মৃত্যুতে পরিবারসহ আত্মীয়স্বজনের মাঝে চলছে শোকের মাতম।

নিহত দুই শিশুর জেঠা মীর হোসেন বলেন, ফাওয়াজ ও ফাহমিদ স্কুল ছুটি শেষে গোসল করতে সবার অগোচরে বাড়ি থেকে বের হয়। আমরা কেউ জানতাম না। তাদের বাবা এবং আমরাসহ গ্রামের অনেক জায়গায় খোঁজাখুজি করেও তাদের পাইনি। তারপর বাড়ির পাশের মসজিদের পুকুরের ঘাটে দু’জনের গেঞ্জি এবং প্যান্ট দেখতে পাই। এতে আমাদের সন্দেহ হলে পুকুরে নামার সাথে সাথেই আমার পায়ের সাথে মানুষের শরীরের স্পর্শ পাই। স্থানীয়দের সহায়তায় ডুব দিয়ে তুলে দেখি-দু’জন একে অপরকে জড়িয়ে ধরে আছে। তাদের চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ফাহমিদের বাবা জালাল উদ্দিন কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় আমার এক বন্ধুর মেয়ে মারা যায়। তাকে দেখতে গিয়ে ওখানে দেরি হয়ে যায়। প্রতিদিন ফাহমিদ ও ফাওয়াজকে আমি নিজ হাতে গোসল করাই। আজ তারা নিজেরা গোসল করতে গিয়ে আমাদের দুই ভাইয়ের বুক খালি করে চলে গেল।

সোনাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক হোসনেয়ারা বেগম বলেন, ফাওয়াজ ও ফাহমিদ দুইজনই আমার স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র। বৃহস্পতিবার তারা স্কুলে এসেছিল। ছুটি শেষে বাড়িতে গিয়ে গোসল করতে নেমে দুইজনই মারা যায়। বিষয়টি অত্যন্ত হৃদয়বিদারক।

চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শুভ রঞ্জন চাকমা বলেন, ফাহমিদ ও ফাওয়াজ আপন চাচাতো-জেঠাতো ভাই। তারা সাঁতার জানতো না। বাড়ির পাশের পুকুরে গোসল করতে নেমে তাদের মৃত্যু হয়েছে।

মেয়ে হারানো বন্ধুকে সান্ত্বনা দিয়ে বাড়ি ফিরে দেখেন ছেলের লাশ

 কুমিল্লা ব্যুরো 
২৮ জুলাই ২০২২, ০৭:৫২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে পুকুরে গোসল করতে গিয়ে পানিতে ডুবে প্রাণ গেল দুই স্কুলছাত্রের। 

বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার বাতিশা ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটেছে। 

নিহতরা হলো- আবদুল কাইয়ুম ফাহমিদ (৯) ও আবদুর রহমান ফওয়াজ (৮)। দু’জনই আপন চাচাতো ভাই। 

স্থানীয়রা জানান, স্কুলছাত্র ফাহমিদ ও ফওয়াজ সমবয়সী হওয়াতে তারা একসাথে চলাফেরা করত। স্থানীয় সোনাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র তারা। 

বৃহস্পতিবার স্কুল ছুটির পর সবার অগোচরে দু’জনই বাড়ির পাশের মসজিদের পুকুরে গোসল করতে যায়। বিষয়টি কেউ জানতো না। বাড়িতে ফিরতে দেরি হওয়াতে ফাহিমের বাবা জালাল উদ্দিন ও ফওয়াজের বাবা বেলাল হোসেনসহ আত্মীয়স্বজনরা গ্রামের বিভিন্ন জায়গায় তাদের খোঁজাখুজি করেন। অবশেষে ওই পুকুরে স্থানীয়রা গোসল করতে নেমে দু’জনের লাশের সন্ধান পায়। দুইজনের মৃত্যুতে পরিবারসহ আত্মীয়স্বজনের মাঝে চলছে শোকের মাতম। 

নিহত দুই শিশুর জেঠা মীর হোসেন বলেন, ফাওয়াজ ও ফাহমিদ স্কুল ছুটি শেষে গোসল করতে সবার অগোচরে বাড়ি থেকে বের হয়। আমরা কেউ জানতাম না। তাদের বাবা এবং আমরাসহ গ্রামের অনেক জায়গায় খোঁজাখুজি করেও তাদের পাইনি। তারপর বাড়ির পাশের মসজিদের পুকুরের ঘাটে দু’জনের গেঞ্জি এবং প্যান্ট দেখতে পাই। এতে আমাদের সন্দেহ হলে পুকুরে নামার সাথে সাথেই আমার পায়ের সাথে মানুষের শরীরের স্পর্শ পাই। স্থানীয়দের সহায়তায় ডুব দিয়ে তুলে দেখি-দু’জন একে অপরকে জড়িয়ে ধরে আছে। তাদের চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। 

ফাহমিদের বাবা জালাল উদ্দিন কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় আমার এক বন্ধুর মেয়ে মারা যায়। তাকে দেখতে গিয়ে ওখানে দেরি হয়ে যায়। প্রতিদিন ফাহমিদ ও ফাওয়াজকে আমি নিজ হাতে গোসল করাই। আজ তারা নিজেরা গোসল করতে গিয়ে আমাদের দুই ভাইয়ের বুক খালি করে চলে গেল। 

সোনাপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক হোসনেয়ারা বেগম বলেন, ফাওয়াজ ও ফাহমিদ দুইজনই আমার স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্র। বৃহস্পতিবার তারা স্কুলে এসেছিল। ছুটি শেষে বাড়িতে গিয়ে গোসল করতে নেমে দুইজনই মারা যায়। বিষয়টি অত্যন্ত হৃদয়বিদারক। 

চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শুভ রঞ্জন চাকমা বলেন, ফাহমিদ ও ফাওয়াজ আপন চাচাতো-জেঠাতো ভাই। তারা সাঁতার জানতো না। বাড়ির পাশের পুকুরে গোসল করতে নেমে তাদের মৃত্যু হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন