ইয়াবা সেবনে বাধা, সাভারে মাদক ব্যবসায়ীর হাত ধরে পালাল গৃহবধূ

প্রকাশ : ০৮ জুন ২০১৮, ১৮:৩৩ | অনলাইন সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট, সাভার

ঢাকা ম্যাপ

ঢাকার সাভারে ইয়াবা সেবনে বাধা দেয়ায় এবার এক মাদক ব্যবসায়ীর হাত ধরে পালিয়ে গেছে শরিফা আক্তার নামের এক গৃহবধূ। তিনি সাভারের ব্যবসায়ী রাজ্জাক সিকদারের স্ত্রী। এ ঘটনায় এলাকায় বেশ চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে।

সাভার পৌর এলাকার ডগরমোড়া মহল্লায় চাঞ্চল্যকর এই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ওই গৃহবধূর স্বামী রাজ্জাক সিকদার সাভার ও আশুলিয়া থানায় শুক্রবার পৃথক দুটি অভিযোগ দিলে পুলিশ তা সাধারণ ডায়েরি করে মামলা তদন্ত করছে।

রাজ্জাক সিকদার অভিযোগ করেন, আমার দ্বিতীয় স্ত্রী ছিল শরিফা আক্তার মানিকগঞ্জের সিংগাইর থানাধীন আজিমপুর গ্রামের ফেলু ফকিরের মেয়ে। প্রায় ১১বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। শরিফুল নামের তাদের ১০ বছরের একটি পুত্রসন্তানও রয়েছে।

তিনি বলেন, সাভার পৌর এলাকার ডগরমোড়াস্থ একটি বাড়িতে পরিবারসহ ভাড়া থাকেন তিনি। মাদক ব্যবসায়ী ফরহাদ হোসেন মিন্টু সাবলেট হিসেবে তার বাড়িতে বসবাসের সুযোগ নিয়ে আমার স্ত্রী শরিফা আক্তারের সঙ্গে গোপন প্রণয়ে জড়িয়ে পড়েন।

রাজ্জাক সিকদার বলেন, পরবর্তীতে আমি আমার ছেলে শরিফুলের কাছে তাদের অবৈধ সম্পর্কের কথা জানতে পারি। এ সময় খবর নিয়ে জানতে পারি যে, সে ফরহাদের সঙ্গে বসে ইয়াবা ট্যাবলেট গ্রহণ করে। আমি এর প্রতিবাদ করে স্ত্রীকে সাবধান করে ফরহাদকে এলাকা ছেড়ে চলে যেতে বলি এবং এর পরও মেলামেশা করলে বা মাদক সেবন করলে তাদের দুজনকে আইনের আওতায় আনার হুমকি দেই।

তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে কাউকে কিছু না বলে আমার স্ত্রী গলে মাদক ব্যবসায়ী ফরহাদ হোসেন মিন্টুর হাত ধরে চলে যায়। এ সময় সে আমার বাড়ি থেকে নগদ টাকা, স্বর্ণালংকারসহ ঘরের মূল্যবান মালামালও নিয়ে যায়। এ ঘটনায় আমি সাভার ও আশুলিয়া থানায় পৃথক দুটি অভিযোগ দায়ের করি।

পুলিশ জানায়, জামালপুরের মেলান্দহ থানাধীন চিনিতলা গ্রামের শাহজাহান খানের ছেলে ফরহাদ হোসেন মিন্টু এলাকায় জামায়াতের রাজনীতির সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিল। স্থানীয় থানায় তার নামে হরতালে গাড়ি ভাঙচুর, চেক জালিয়াতিসহ অন্তত চারটি মামলা রয়েছে। এলাকা থেকে পালিয়ে এসে সে সাভার এলাকায় রাজ্জাক সিকদার ফ্ল্যাটে সাবলেট ভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করে।

ফরহাদ হোসেন মিন্টু মাদক আসক্ত ও ইয়াবা ট্যাবলেট ব্যবসায় জড়িত ছিল। সাইফুল এবং লিটন নামের তার গ্রাম সম্পর্কের দুই ভাতিজাকে দিয়ে সাভার, আশুলিয়াসহ এর আশপাশের এলাকায় ইয়াবা ট্যাবলেটের বিক্রির ব্যবসা করাতো সে। 

সাভার মডেল থানার ওসি মোহসিনুল কাদির জানান, স্ত্রী পালিয়ে যাওয়ার ঘটনায় সাধারণ ডায়েরি হয়েছে। সব বিষয় গভীরভাবে খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলেও তিনি জানান।