কচুক্ষেতে কিশোরের লাশ, পেটের ওপর মোবাইল শরীরে সিগারেটের ছ্যাঁকা
jugantor
কচুক্ষেতে কিশোরের লাশ, পেটের ওপর মোবাইল শরীরে সিগারেটের ছ্যাঁকা

  বগুড়া ব্যুরো  

০৯ আগস্ট ২০২২, ১৬:৪১:৫৬  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ার শাজাহানপুরে ফাহিম ফয়সাল শিশির (১৬) নামে এক এসএসসি পরীক্ষার্থীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে উপজেলার মাঝিড়া ইউনিয়নের সাজাপুর ফকিরপাড়া গ্রামে একটি কচুক্ষেতে তার মরদেহ পাওয়া গেছে।

তার পেটের ওপর মোবাইল রাখা ছিল। এছাড়া তার শরীরে জ্বলন্ত সিগারেটের ছ্যাঁকা দেওয়ার দাগ রয়েছে। সোমবার রাত থেকে সে নিখোঁজ ছিল।

পুলিশ ও স্বজনরা জানান, ফাহিম ফয়সাল শিশির শাজাহানপুর উপজেলার সাজাপুর ফকিরপাড়ার শাহাদত হোসেন সাজু মিয়ার ছেলে। সে স্থানীয় সুলতানগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল। আট বছর আগে বাবা-মার মধ্যে বিচ্ছেদ হওয়ার পর থেকে সে একই গ্রামে মা শাপলা বেগমের কাছে থাকতো। মাঝে মাঝে বাবার বাড়িতেও যেত।

আশুরা উপলক্ষে সোমবার রাতে সাজাপুর ফুলতলা মাদ্রাসায় মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। শিশির তার বন্ধুদের সঙ্গে ওই মিলাদ মাহফিলে গিয়েছিল। রাত ১০টা পর্যন্ত তাকে দেখা গেছে। রাত সাড়ে ১১টায় মিলাদ শেষ হলে সকলে বাড়ি ফিরলেও শিশির নিখোঁজ ছিল।

মঙ্গলবার সকালে বাড়ির কাছে সাজাপুর পশ্চিমপাড়ায় একটি কচুক্ষেতে তার রক্তাক্ত মরদেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়। মোবাইল ফোন পেটের উপর রাখা ছিল। তার শরীরে জ্বলন্ত সিগারেটের ছ্যাঁকা দেওয়ার দাগ ছিল।

স্থানীয়দের ধারনা, পূর্ব কোনো বিরোধের জের ধরে কিশোর বন্ধুরা তাকে হত্যা করেছে। শরীরের দাগ থাকায় ধারনা করা হয়, হত্যার আগে তার শরীরে জ্বলন্ত সিগারেটের ছ্যাঁকা দেওয়া হয়েছে।

শাজাহানপুর থানার ওসি আবদুল্লাহ মামুন জানান, নিহতের শরীরের দাগগুলো ছুরিকাঘাতের মনে হচ্ছে। তারপরও এসব জ্বলন্ত সিগারেটের ছ্যাঁকা কি না তা নিশ্চিত হতে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিকভাবে আত্মীয়-স্বজন দাবি করছেন, জমিজমা নিয়ে বিরোধের জের ধরে ফাহিম ফয়সাল শিশির খুন হয়েছে। মরদেহ উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

কচুক্ষেতে কিশোরের লাশ, পেটের ওপর মোবাইল শরীরে সিগারেটের ছ্যাঁকা

 বগুড়া ব্যুরো 
০৯ আগস্ট ২০২২, ০৪:৪১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

বগুড়ার শাজাহানপুরে ফাহিম ফয়সাল শিশির (১৬) নামে এক এসএসসি পরীক্ষার্থীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে উপজেলার মাঝিড়া ইউনিয়নের সাজাপুর ফকিরপাড়া গ্রামে একটি কচুক্ষেতে তার মরদেহ পাওয়া গেছে।

তার পেটের ওপর মোবাইল রাখা ছিল। এছাড়া তার শরীরে জ্বলন্ত সিগারেটের ছ্যাঁকা দেওয়ার দাগ রয়েছে। সোমবার রাত থেকে সে নিখোঁজ ছিল।

পুলিশ ও স্বজনরা জানান, ফাহিম ফয়সাল শিশির শাজাহানপুর উপজেলার সাজাপুর ফকিরপাড়ার শাহাদত হোসেন সাজু মিয়ার ছেলে। সে স্থানীয় সুলতানগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল। আট বছর আগে বাবা-মার মধ্যে বিচ্ছেদ হওয়ার পর থেকে সে একই গ্রামে মা শাপলা বেগমের কাছে থাকতো। মাঝে মাঝে বাবার বাড়িতেও যেত।

আশুরা উপলক্ষে সোমবার রাতে সাজাপুর ফুলতলা মাদ্রাসায় মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। শিশির তার বন্ধুদের সঙ্গে ওই মিলাদ মাহফিলে গিয়েছিল। রাত ১০টা পর্যন্ত তাকে দেখা গেছে। রাত সাড়ে ১১টায় মিলাদ শেষ হলে সকলে বাড়ি ফিরলেও শিশির নিখোঁজ ছিল।

মঙ্গলবার সকালে বাড়ির কাছে সাজাপুর পশ্চিমপাড়ায় একটি কচুক্ষেতে তার রক্তাক্ত মরদেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়। মোবাইল ফোন পেটের উপর রাখা ছিল। তার শরীরে জ্বলন্ত সিগারেটের ছ্যাঁকা দেওয়ার দাগ ছিল।

স্থানীয়দের ধারনা, পূর্ব কোনো বিরোধের জের ধরে কিশোর বন্ধুরা তাকে হত্যা করেছে। শরীরের দাগ থাকায় ধারনা করা হয়, হত্যার আগে তার শরীরে জ্বলন্ত সিগারেটের ছ্যাঁকা দেওয়া হয়েছে।

শাজাহানপুর থানার ওসি আবদুল্লাহ মামুন জানান, নিহতের শরীরের দাগগুলো ছুরিকাঘাতের মনে হচ্ছে। তারপরও এসব জ্বলন্ত সিগারেটের ছ্যাঁকা কি না তা নিশ্চিত হতে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

তিনি আরও জানান, প্রাথমিকভাবে আত্মীয়-স্বজন দাবি করছেন, জমিজমা নিয়ে বিরোধের জের ধরে ফাহিম ফয়সাল শিশির খুন হয়েছে। মরদেহ উদ্ধার করে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন