স্কুলছাত্র শিহাব হত্যা, আত্মসমর্পণের পর চার শিক্ষক কারাগারে
jugantor
স্কুলছাত্র শিহাব হত্যা, আত্মসমর্পণের পর চার শিক্ষক কারাগারে

  টাঙ্গাইল প্রতিনিধি  

১১ আগস্ট ২০২২, ০২:০৯:২৪  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলে সৃষ্টি একাডেমিক স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র শিহাব মিয়া হত্যা মামলার আসামি চার শিক্ষক আত্মসমর্পণ করলে তাদের কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। বুধবার বিকালে টাঙ্গাইলের ভারপ্রাপ্ত জেলা ও দায়রা জজ মাসুদ পারভেজের আদালতে তারা আত্মসমর্পণ করেন।

আত্মসমর্পণ করা চার শিক্ষক হলেন বিপ্লব চন্দ্র সরকার (৩০), আসলাম হোসেন ওরফে আশরাফ (৩০), মাসুম ওরফে মো. মাসুদ রানা (৪০) ও বিজন কুমার সাহা (৪০)।

টাঙ্গাইল আদালতের পিপি এস আকবর খান জানান, আত্মসমর্পণ করা চার আসামি গত ৩০ জুন উচ্চ আদালতে জামিন প্রার্থনা করেছিলেন। আদালত তাদের ছয় সপ্তাহের মধ্যে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণের আদেশ দিয়েছিলেন। বুধবার তারা টাঙ্গাইল জেলা ও দায়রা জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী রাসেল রানা জানান, আসামিদের টাঙ্গাইল জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ২০ জুন শহরের বিশ্বাস বেতকা এলাকায় সৃষ্টি একাডেমিক স্কুলের ছাত্রাবাসের সাত তলার বাথরুম থেকে শিহাব মিয়া নামক পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় প্রথমে টাঙ্গাইল সদর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়। ২৬ জুন ডাক্তারি পরীক্ষার প্রতিবেদনে শিহাবকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়।

এর আগে এই মামলার আসামি আবু বক্কর সিদ্দিক নামক এক শিক্ষককে পুলিশ গ্রেফতার করে। রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদের পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

নিহত শিহাব মিয়া টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার বেরবাড়ি গ্রামের ইলিয়াস হোসেনের ছেলে। সে ছাত্রাবাসে থেকে সৃষ্টি একাডেমিক স্কুলে পড়াশোনা করতো।

স্কুলছাত্র শিহাব হত্যা, আত্মসমর্পণের পর চার শিক্ষক কারাগারে

 টাঙ্গাইল প্রতিনিধি 
১১ আগস্ট ২০২২, ০২:০৯ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

টাঙ্গাইলে সৃষ্টি একাডেমিক স্কুলের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র শিহাব মিয়া হত্যা মামলার আসামি চার শিক্ষক আত্মসমর্পণ করলে তাদের কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। বুধবার বিকালে টাঙ্গাইলের ভারপ্রাপ্ত জেলা ও দায়রা জজ মাসুদ পারভেজের আদালতে তারা আত্মসমর্পণ করেন।

আত্মসমর্পণ করা চার শিক্ষক হলেন বিপ্লব চন্দ্র সরকার (৩০), আসলাম হোসেন ওরফে আশরাফ (৩০), মাসুম ওরফে মো. মাসুদ রানা (৪০) ও বিজন কুমার সাহা (৪০)।

টাঙ্গাইল আদালতের পিপি এস আকবর খান জানান, আত্মসমর্পণ করা চার আসামি গত ৩০ জুন উচ্চ আদালতে জামিন প্রার্থনা করেছিলেন। আদালত তাদের ছয় সপ্তাহের মধ্যে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণের আদেশ দিয়েছিলেন। বুধবার তারা টাঙ্গাইল জেলা ও দায়রা জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী রাসেল রানা জানান, আসামিদের টাঙ্গাইল জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত ২০ জুন শহরের বিশ্বাস বেতকা এলাকায় সৃষ্টি একাডেমিক স্কুলের ছাত্রাবাসের সাত তলার বাথরুম থেকে শিহাব মিয়া নামক পঞ্চম শ্রেণির এক ছাত্রের লাশ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় প্রথমে টাঙ্গাইল সদর থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়। ২৬ জুন ডাক্তারি পরীক্ষার প্রতিবেদনে শিহাবকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়।

এর আগে এই মামলার আসামি আবু বক্কর সিদ্দিক নামক এক শিক্ষককে পুলিশ গ্রেফতার করে। রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদের পর তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

নিহত শিহাব মিয়া টাঙ্গাইলের সখীপুর উপজেলার বেরবাড়ি গ্রামের ইলিয়াস হোসেনের ছেলে। সে ছাত্রাবাসে থেকে সৃষ্টি একাডেমিক স্কুলে পড়াশোনা করতো।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন