মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে ২৪ চা বাগানে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি
jugantor
মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে ২৪ চা বাগানে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি

  চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি  

১২ আগস্ট ২০২২, ১৫:৩৯:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

চা শ্রমিকদের মজুরি ১২০ থেকে বাড়িয়ে ৩০০ টাকা করার দাবিতে তিন দিন দুই ঘণ্টা করে কর্মবিরতি পালনের পর ফলপ্রসূ আলোচনা না হওয়ায় আগামীকাল শনিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতির ডাক দিয়েছে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন।

বৃহস্পতিবার গভীর রাত পর্যন্ত শ্রীমঙ্গলে শ্রম অধিদপ্তরে চা শ্রমিক ১০ নেতার সঙ্গে শ্রম দপ্তরের আলোচনা ব্যর্থ হলে শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নৃপেন পাল এ কর্মবিরতির ঘোষণা দেন।

এর আগে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের ডাকে ৯ আগস্ট থেকে ১১ আগস্ট পর্যন্ত প্রতিদিন দুই ঘণ্টা এ কর্মবিরতি পালন করে হবিগঞ্জের চুনারুাটের ২৪টি বাগানসহ সারাদেশের চা বাগান শ্রমিকরা। বাগান মালিকদের তিন দিনের সময় দিয়ে তারা এ কর্মবিরতি শুরু করেছিলেন।

বৃহস্পতিবার শ্রম দপ্তরের উপপরিচালক নাহিদুল ইসলামের দপ্তরে উপজেলার ২৪টি চা বাগানের ১০ প্রতিনিধি আলোচনায় বসেন। শ্রমিক নেতাদের নিয়ে আলোচনা করে মজুরি বাড়ানোর জন্য আগামী ২৮ আগস্ট পুনরায় আলোচনায় বসার সময় চান শ্রম অধিদপ্তর। কিন্তু সেখানে কোনো মালিকপক্ষ ছিলেন না। ফলে আলোচনা ব্যর্থ হয়। রাতে চা শ্রমিক ইউনিয়ন শনিবার থেকে সব চা বাগানে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতির ঘোষণা দেন।

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নৃপেন পাল বলেন, শ্রম অধিদপ্তর আলোচনার নামে সময়ক্ষেপণ করেছে। তারা আগামী ২৯ আগস্ট ত্রিপক্ষীয় আলোচনার সময় চেয়েছে। কিন্তু আমরা তাতে রাজি হইনি।

শুক্রবার উপজেলার সব চা বাগানে ২ ঘণ্টা কর্মবিরতি পালন শেষে এক সমাবেশে তিনি সব চা বাগান একযোগে বন্ধের ঘোষণা দেন।

মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে ২৪ চা বাগানে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি

 চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি 
১২ আগস্ট ২০২২, ০৩:৩৯ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

চা শ্রমিকদের মজুরি ১২০ থেকে বাড়িয়ে ৩০০ টাকা করার দাবিতে তিন দিন দুই ঘণ্টা করে কর্মবিরতি পালনের পর ফলপ্রসূ আলোচনা না হওয়ায় আগামীকাল শনিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতির ডাক দিয়েছে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়ন। 

বৃহস্পতিবার গভীর রাত পর্যন্ত শ্রীমঙ্গলে শ্রম অধিদপ্তরে চা শ্রমিক ১০ নেতার সঙ্গে শ্রম দপ্তরের আলোচনা ব্যর্থ হলে শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নৃপেন পাল এ কর্মবিরতির ঘোষণা দেন। 

এর আগে বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের ডাকে ৯ আগস্ট থেকে ১১ আগস্ট পর্যন্ত প্রতিদিন দুই ঘণ্টা এ কর্মবিরতি পালন করে হবিগঞ্জের চুনারুাটের ২৪টি বাগানসহ সারাদেশের চা বাগান শ্রমিকরা।  বাগান মালিকদের তিন দিনের সময় দিয়ে তারা এ কর্মবিরতি শুরু করেছিলেন। 

বৃহস্পতিবার শ্রম দপ্তরের উপপরিচালক নাহিদুল ইসলামের দপ্তরে উপজেলার ২৪টি চা বাগানের ১০ প্রতিনিধি আলোচনায় বসেন। শ্রমিক নেতাদের নিয়ে আলোচনা করে মজুরি বাড়ানোর জন্য আগামী ২৮ আগস্ট পুনরায় আলোচনায় বসার সময় চান শ্রম অধিদপ্তর। কিন্তু সেখানে কোনো মালিকপক্ষ ছিলেন না। ফলে আলোচনা ব্যর্থ হয়। রাতে চা শ্রমিক ইউনিয়ন শনিবার থেকে সব চা বাগানে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতির ঘোষণা দেন। 

বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক নৃপেন পাল বলেন, শ্রম অধিদপ্তর আলোচনার নামে সময়ক্ষেপণ করেছে।  তারা আগামী ২৯ আগস্ট ত্রিপক্ষীয় আলোচনার সময় চেয়েছে। কিন্তু আমরা তাতে রাজি হইনি। 

শুক্রবার উপজেলার সব চা বাগানে ২ ঘণ্টা কর্মবিরতি পালন শেষে এক সমাবেশে তিনি সব চা বাগান একযোগে বন্ধের ঘোষণা দেন। 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন