পানি খাওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে দুই ভাই খুন!
jugantor
পানি খাওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে দুই ভাই খুন!

  দেওয়ানগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি  

১৫ আগস্ট ২০২২, ০২:০০:৩২  |  অনলাইন সংস্করণ

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে দুই সহোদর খুন হয়েছেন। ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ১০ জনকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে রোববার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার দেওয়ানগঞ্জ ইউনিয়নের ব্রহ্মপুত্র নদ তীরবর্তী চরাঞ্চল তিলকপুর কাউনেরচর গ্রামে।

নিহতরা হলেন- সওদাগরের বড় ছেলে তিন সন্তানের জনক হাবিবুর রহমান (৪০) এবং ছোট ছেলে সোলায়মান হোসেন (৩৫)।

স্থানীয়রা জানান, ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন, গোষ্ঠীগত দ্বন্দ্ব, পাওনা টাকা ও পানি খাওয়াকে কেন্দ্র করে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

নিহত হাবিবুর রহমানের ছেলে ফখরুল ওই গ্রামের ইউনুছের ছেলে ইমরানের কাছে টাকা পেত। ফখরুলসহ কয়েকজন পাওনা টাকা চাইতে ইমরানের কাছে গেলে দুইপক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বাধে। ইমরানের লোকজন দেশীয় অস্ত্রসহ হাবিবুর ও সোলায়মানের বুকে ও পেটে ফালা দিয়ে আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়। সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হন।

নিহতের স্বজন মিছিরন যুগান্তরকে জানান, ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে একটি নির্মাণাধীন ভবনে রাজমিস্ত্রির কাজ করত দুইপক্ষের লোকজন। কাজের বকেয়া পাওনা টাকা, পানি খাওয়া নিয়ে ওই খানে তর্কবিতর্ক হয়। বিষয়টি হালুয়াঘাটেই মীমাংসা হয়। হালুয়াঘাট থেকে বাড়িতে আসলে ওই ঘটনার জের নিয়ে তিন দিন আগে কাউনেরচর বাজারে পুনরায় তর্কবির্তক হয়। এর জের ধরেই রোববার বাড়ির পাশেই এ সংঘর্ষ হয়।

নিহতের ছেলে কলেজপড়ুয়া মিজান জানান, তার বাবা ও চাচাকে গেল্লার ছেলে সাদা ফকিরসহ তার লোকজন দা-ফালা নিয়ে আক্রমণ করে খুন করে। সহকারী পুলিশ সুপার সুমন মিয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

দেওয়ানগঞ্জ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল চন্দ্র ধর যুগান্তরকে জানান, ঘটনাস্থল থেকে ১০ জনকে আটক করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

পানি খাওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে দুই ভাই খুন!

 দেওয়ানগঞ্জ (জামালপুর) প্রতিনিধি 
১৫ আগস্ট ২০২২, ০২:০০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

জামালপুরের দেওয়ানগঞ্জে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে দুই সহোদর খুন হয়েছেন। ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ১০ জনকে আটক করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে রোববার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার দেওয়ানগঞ্জ ইউনিয়নের ব্রহ্মপুত্র নদ তীরবর্তী চরাঞ্চল তিলকপুর কাউনেরচর গ্রামে।

নিহতরা হলেন- সওদাগরের বড় ছেলে তিন সন্তানের জনক হাবিবুর রহমান (৪০) এবং ছোট ছেলে সোলায়মান হোসেন (৩৫)।

স্থানীয়রা জানান, ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন, গোষ্ঠীগত দ্বন্দ্ব, পাওনা টাকা ও পানি খাওয়াকে কেন্দ্র করে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

নিহত হাবিবুর রহমানের ছেলে ফখরুল ওই গ্রামের ইউনুছের ছেলে ইমরানের কাছে টাকা পেত। ফখরুলসহ কয়েকজন পাওনা টাকা চাইতে ইমরানের কাছে গেলে দুইপক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বাধে। ইমরানের লোকজন দেশীয় অস্ত্রসহ হাবিবুর ও সোলায়মানের বুকে ও পেটে ফালা দিয়ে আঘাত করলে ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়। সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হন। 

নিহতের স্বজন মিছিরন যুগান্তরকে জানান, ময়মনসিংহের হালুয়াঘাটে একটি নির্মাণাধীন ভবনে রাজমিস্ত্রির কাজ করত দুইপক্ষের লোকজন। কাজের বকেয়া পাওনা টাকা, পানি খাওয়া নিয়ে ওই খানে তর্কবিতর্ক হয়। বিষয়টি হালুয়াঘাটেই মীমাংসা হয়। হালুয়াঘাট থেকে বাড়িতে আসলে ওই ঘটনার জের নিয়ে তিন দিন আগে কাউনেরচর বাজারে পুনরায় তর্কবির্তক হয়। এর জের ধরেই রোববার বাড়ির পাশেই এ সংঘর্ষ হয়। 

নিহতের ছেলে কলেজপড়ুয়া মিজান জানান, তার বাবা ও চাচাকে গেল্লার ছেলে সাদা ফকিরসহ তার লোকজন দা-ফালা নিয়ে আক্রমণ করে খুন করে। সহকারী পুলিশ সুপার সুমন মিয়া ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

দেওয়ানগঞ্জ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শ্যামল চন্দ্র ধর যুগান্তরকে জানান, ঘটনাস্থল থেকে ১০ জনকে আটক করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন