স্ত্রীর মামলায় পুলিশ পরিদর্শকের কারাদণ্ড
jugantor
স্ত্রীর মামলায় পুলিশ পরিদর্শকের কারাদণ্ড

  ফরিদপুর ব্যুরো  

১৭ আগস্ট ২০২২, ০০:৩০:১১  |  অনলাইন সংস্করণ

ফরিদপুরে স্ত্রীর করা নারী নির্যাতনের মামলায় এক পুলিশ পরিদর্শককে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার বিকালে ফরিদপুর জেলা নারী ও শিশু বিশেষ ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক প্রদীপ কুমার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শামসুদ্দোহাকে (৪০) ২ বছর ৬ মাস সশ্রম কারাদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা করে রায় প্রদান করেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট শাহ মো. আবু জাফর এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

চলতি বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি ফরিদপুর কোতোয়ালি থানায় বর্ণিত পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যৌতুক দাবি, মারপিট ও নির্যাতনের অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেন তার স্ত্রী। মামলার পর ঢাকার গুলশান থানা পুলিশ যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে মারপিট ও নির্যাতনের অপরাধে দায়ের করা মামলায় রায়েরবাজার এলাকা থেকে পুলিশ পরিদর্শক শামসুদ্দোহাকে গ্রেফতার করে ফরিদপুর কোতোয়ালি থানায় পাঠিয়ে দেন।

গ্রেফতারকৃত পুলিশ কর্মকর্তা শামসুদ্দোহা চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনা থানায় পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর উপজেলার পশ্চিম গোপিনাথ গ্রামের নুরুদ্দিন আহমদের পুত্র।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ৭ আগস্ট ফরিদপুর শহরের গোয়ালচামট এলাকার খন্দকার ফারুক আহমেদের কন্যা ফারজানা খন্দকার তুলির সঙ্গে পুলিশ পরিদর্শক শামসুদ্দোহার বিয়ে হয়।

স্ত্রীর মামলায় পুলিশ পরিদর্শকের কারাদণ্ড

 ফরিদপুর ব্যুরো 
১৭ আগস্ট ২০২২, ১২:৩০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ফরিদপুরে স্ত্রীর করা নারী নির্যাতনের মামলায় এক পুলিশ পরিদর্শককে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মঙ্গলবার বিকালে ফরিদপুর জেলা নারী ও শিশু বিশেষ ট্রাইব্যুনাল আদালতের বিচারক প্রদীপ কুমার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শামসুদ্দোহাকে (৪০) ২ বছর ৬ মাস সশ্রম কারাদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা করে রায় প্রদান করেন।

বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট শাহ মো. আবু জাফর এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

চলতি বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি ফরিদপুর কোতোয়ালি থানায় বর্ণিত পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে যৌতুক দাবি, মারপিট ও নির্যাতনের অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেন তার স্ত্রী। মামলার পর ঢাকার গুলশান থানা পুলিশ যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে মারপিট ও নির্যাতনের অপরাধে দায়ের করা মামলায় রায়েরবাজার এলাকা থেকে পুলিশ পরিদর্শক শামসুদ্দোহাকে গ্রেফতার করে ফরিদপুর কোতোয়ালি থানায় পাঠিয়ে দেন।

গ্রেফতারকৃত পুলিশ কর্মকর্তা শামসুদ্দোহা চুয়াডাঙ্গা জেলার দর্শনা থানায় পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি গোপালগঞ্জ জেলার মুকসুদপুর উপজেলার পশ্চিম গোপিনাথ গ্রামের নুরুদ্দিন আহমদের পুত্র।

উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ৭ আগস্ট ফরিদপুর শহরের গোয়ালচামট এলাকার খন্দকার ফারুক আহমেদের কন্যা ফারজানা খন্দকার তুলির সঙ্গে পুলিশ পরিদর্শক শামসুদ্দোহার বিয়ে হয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন