পটিয়ায় সাবেক মেয়রের স্ত্রীকে হত্যায় ছেলে গ্রেফতার
jugantor
পটিয়ায় সাবেক মেয়রের স্ত্রীকে হত্যায় ছেলে গ্রেফতার

  চট্টগ্রাম ব্যুরো  

১৮ আগস্ট ২০২২, ১৬:০৬:১২  |  অনলাইন সংস্করণ

চট্টগ্রামের পটিয়া পৌরসভার সাবেক মেয়র ও জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা প্রয়াত সামশুল আলম মাস্টারের স্ত্রী জেসমিন আক্তারকে (৫০) গুলি করে হত্যার ঘটনায় ছেলেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৭। বুধবার রাতে চট্টগ্রাম নগরীর একটি এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার যুবকের নাম মাঈনুদ্দীন মো. মাইনু (২৯)। তিনি সামশুল আলম মাস্টারের মেজ ছেলে। গ্রেফতারের সময় হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত অস্ত্রটিও উদ্ধার করেছে র‌্যাব। চট্টগ্রাম র‌্যাব-৭-এর সহকারী পরিচালক (গণমাধ্যম) নুরুল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে গত মঙ্গলবার বেলা সোয়া দুইটার দিকে জেসমিন আক্তারকে গুলি করে হত্যা করা হয়। পটিয়া পৌরসভার সবজারপাড়ায় নিজ বাড়ির শয়নকক্ষে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর থেকে মাঈনুদ্দীন পলাতক ছিলেন।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুরে সামশুল আলমের স্ত্রী জেসমিন আক্তার ও মেয়ে শায়লা শারমিন ব্যাংক থেকে সামশুলের রেখে যাওয়া টাকা তুলতে গেলে মাঈনুদ্দীন ক্ষুব্ধ হন। এ সময় মাঈনুদ্দীন প্রথমে বোন শায়লাকে গুলি করেন এবং পরে মা জেসমিনকে লক্ষ্য করে গুলি করেন। প্রথম গুলিটি ফসকে গেলেও দ্বিতীয় গুলিটি জেসমিনের চোখের নিচে লাগে। পরে মাঈনুদ্দীন সেখান থেকে সটকে পড়েন।

গুলির শব্দ পেয়ে স্থানীয়রা জেসমিন আক্তারকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করেন। তাকে প্রথমে পটিয়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। তবে হাসপাতালে যাওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে শায়লা শারমিন বাদী হয়ে ভাই মাঈনুদ্দীনকে আসামি করে পটিয়া থানায় হত্যা মামলা করেন।

পটিয়ায় সাবেক মেয়রের স্ত্রীকে হত্যায় ছেলে গ্রেফতার

 চট্টগ্রাম ব্যুরো 
১৮ আগস্ট ২০২২, ০৪:০৬ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

চট্টগ্রামের পটিয়া পৌরসভার সাবেক মেয়র ও জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা প্রয়াত সামশুল আলম মাস্টারের স্ত্রী জেসমিন আক্তারকে (৫০) গুলি করে হত্যার ঘটনায় ছেলেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৭। বুধবার রাতে চট্টগ্রাম নগরীর একটি এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার যুবকের নাম মাঈনুদ্দীন মো. মাইনু (২৯)। তিনি সামশুল আলম মাস্টারের মেজ ছেলে। গ্রেফতারের সময় হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত অস্ত্রটিও উদ্ধার করেছে র‌্যাব। চট্টগ্রাম র‌্যাব-৭-এর সহকারী পরিচালক (গণমাধ্যম) নুরুল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে গত মঙ্গলবার বেলা সোয়া দুইটার দিকে জেসমিন আক্তারকে গুলি করে হত্যা করা হয়। পটিয়া পৌরসভার সবজারপাড়ায় নিজ বাড়ির শয়নকক্ষে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর থেকে মাঈনুদ্দীন পলাতক ছিলেন।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার দুপুরে সামশুল আলমের স্ত্রী জেসমিন আক্তার ও মেয়ে শায়লা শারমিন ব্যাংক থেকে সামশুলের রেখে যাওয়া টাকা তুলতে গেলে মাঈনুদ্দীন ক্ষুব্ধ হন। এ সময় মাঈনুদ্দীন প্রথমে বোন শায়লাকে গুলি করেন এবং পরে মা জেসমিনকে লক্ষ্য করে গুলি করেন। প্রথম গুলিটি ফসকে গেলেও দ্বিতীয় গুলিটি জেসমিনের চোখের নিচে লাগে। পরে মাঈনুদ্দীন সেখান থেকে সটকে পড়েন।

গুলির শব্দ পেয়ে স্থানীয়রা জেসমিন আক্তারকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করেন। তাকে প্রথমে পটিয়ার একটি বেসরকারি হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। তবে হাসপাতালে যাওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে শায়লা শারমিন বাদী হয়ে ভাই মাঈনুদ্দীনকে আসামি করে পটিয়া থানায় হত্যা মামলা করেন। 
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন