সাপের কামড়ের পর ঝাড়ফুঁক, প্রাণ গেল কিশোরীর
jugantor
সাপের কামড়ের পর ঝাড়ফুঁক, প্রাণ গেল কিশোরীর

  মীরসরাই ( চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি  

১৯ আগস্ট ২০২২, ০০:৩৮:০৯  |  অনলাইন সংস্করণ

মীরসরাই উপজেলার সদর ইউনিয়নে সাপের কামড়ে তাহমিনা আক্তার লিজা (১৬) নামের এক কিশোরীর মৃত্যু হয়েছে। সাপের কামড়ের পর ওই কিশোরীকে ওঝার কাছে নিয়ে হয়েছিল বলে জানা গেছে।

বুধবার (১৭ আগস্ট) রাত সাড়ে ৮টা দিকে উপজেলার ৯নং সদর ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামের জেবল হক মেস্ত্রি বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। লিজা ওই বাড়ির মো. লিটনের মেয়ে।

লিজার মামা আনোয়ার হোসেন বলেন, বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে রান্না করতে লাকড়ি নেওয়ার সময় বিষাক্ত একটি সাপ তার হাতে কামড় দেয়। এরপর তাকে মীরসরাই স্টেশন এলাকায় নন্দন কুমার নামে এক ওঝার কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। ওঝা ঝাড়ফুঁক করে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। বাড়িতে যাওয়ার পর হাতে দেওয়া বাঁধন খুলে দিলে মেয়েটির শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হয়। এরপর রাতে তাকে মস্তাননগরের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওঝার কাছে নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে আনোয়ার হোসেন বলেন, এর আগে লিজার বাবাকে সাপে কামড় দিয়েছিল। তখন ওঝা নন্দন কুমারের চিকিৎসায় ভালো হন। সেজন্য লিজাকেও তার কাছে নেওয়া হয়েছিল।

এ বিষয়ে মীরসরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মিনহাজ উদ্দিন বলেন, সাপে কামড়ানোর পর পর ভিকটিমকে অবশ্যই হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে। চিকিৎসক রোগীর শারীরিক অবস্থা বুঝে চিকিৎসা দেবেন। রোগীর অবস্থা যদি খারাপ হয় তাহলে চট্টগ্রাম মেডিকেলে পাঠাবেন। এক্ষেত্রে ওঝার কাছে নিয়ে ঝাড়ফুঁক করা বোকামি।

সাপের কামড়ের পর ঝাড়ফুঁক, প্রাণ গেল কিশোরীর

 মীরসরাই ( চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি 
১৯ আগস্ট ২০২২, ১২:৩৮ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মীরসরাই উপজেলার সদর ইউনিয়নে সাপের কামড়ে তাহমিনা আক্তার লিজা (১৬) নামের এক কিশোরীর মৃত্যু হয়েছে। সাপের কামড়ের পর ওই কিশোরীকে ওঝার কাছে নিয়ে হয়েছিল বলে জানা গেছে।

বুধবার (১৭ আগস্ট) রাত সাড়ে ৮টা দিকে উপজেলার ৯নং সদর ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামের জেবল হক মেস্ত্রি বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। লিজা ওই বাড়ির মো. লিটনের মেয়ে।

লিজার মামা আনোয়ার হোসেন বলেন, বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে রান্না করতে লাকড়ি নেওয়ার সময় বিষাক্ত একটি সাপ তার হাতে কামড় দেয়। এরপর তাকে মীরসরাই স্টেশন এলাকায় নন্দন কুমার নামে এক ওঝার কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। ওঝা ঝাড়ফুঁক করে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। বাড়িতে যাওয়ার পর হাতে দেওয়া বাঁধন খুলে দিলে মেয়েটির শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হয়। এরপর রাতে তাকে মস্তাননগরের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ওঝার কাছে নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে আনোয়ার হোসেন বলেন, এর আগে লিজার বাবাকে সাপে কামড় দিয়েছিল। তখন ওঝা নন্দন কুমারের চিকিৎসায় ভালো হন। সেজন্য লিজাকেও তার কাছে নেওয়া হয়েছিল।

এ বিষয়ে মীরসরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মিনহাজ উদ্দিন বলেন, সাপে কামড়ানোর পর পর ভিকটিমকে অবশ্যই হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে। চিকিৎসক রোগীর শারীরিক অবস্থা বুঝে চিকিৎসা দেবেন। রোগীর অবস্থা যদি খারাপ হয় তাহলে চট্টগ্রাম মেডিকেলে পাঠাবেন। এক্ষেত্রে ওঝার কাছে নিয়ে ঝাড়ফুঁক করা বোকামি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন