নরসিংদীতে বিএনপি নেতার পদত্যাগ নাটক, প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন
jugantor
নরসিংদীতে বিএনপি নেতার পদত্যাগ নাটক, প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

  নরসিংদী প্রতিনিধি  

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৪:৪০:৫০  |  অনলাইন সংস্করণ

নরসিংদীতে ইউনিয়ন বিএনপির কমিটিতে পদ না পাওয়ায় দল থেকে পদত্যাগের নাটক সাজিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে যুবদলের এক নেতার বিরুদ্ধে।

নবগঠিত কমিটির ২৩ নেতার নাম উল্লেখ করে পদত্যাগের এ নাটক সাজানো হয় বলেও অভিযোগ করা হয়। এ ঘটনার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন আলোকবালী ইউনিয়ন বিএনপির নেতাকর্মীরা।

মঙ্গলবার দুপুরে নরসিংদী জেলা বিএনপির কার্যালয় চিনিশপুরে এ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নরসিংদী সদর থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন।

তিনি জানান, ইউনিয়ন বিএনপির নেতাকর্মীদের চাঙা ও শক্তিশালী করার লক্ষ্যে শাহ আলম চৌধুরীকে আহ্বায়ক ও আব্দুল কাইয়ুম সরকারকে সদস্য সচিব করে ৪০ সদস্যবিশিষ্ট আলোকবালী ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে সদর থানা যুবদলের এক নেতা ক্ষিপ্ত হন।

এলাকার নেতৃত্ব হাতে নিতে তিনি আলোকবালী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদকের পদ চেয়েছিলেন। দলের ঊর্ধ্বতন নেতারা রাজপথের আন্দোলন-সংগ্রামের ত্যাগী ও হামলা মামলার শিকার এমন নেতাদের কমিটিতে স্থান দিয়েছেন। তাই বর্তমান কমিটির সভাপতি ও সদস্য সচিব ব্যতীত ২৩ জনের নাম লিখে পদত্যাগের নাটক সাজিয়েছেন এবং তা গণমাধ্যমে প্রকাশ করেন।

বাস্তবে নবগঠিত কমিটির কেউ পদত্যাগ করেননি। এমনকি পদত্যাগপত্রে যাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে, তারা সবাই আজকের সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত রয়েছেন। ব্যক্তিস্বার্থে দলকে ক্ষতিগ্রস্ত করতেই এমন কর্মকাণ্ড চালিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন আলোকবালী ইউনিয়ন বিএনপির আহ্বায়ক শাহ আলম চৌধুরী, সদস্য সচিব কাইয়ুম সরকার, যুগ্ম আহ্বায়ক মানিক মিয়া, সাইদুর রহমান মোমেন, জয়নাল আবেদীন সরকার, কালু মেম্বার, সদস্য তারেক সরকার, মান্নান মেম্বার।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও জেলা বিএনপির আহ্বায়ক খায়রুল কবির খোকন বলেন, বিএনপি একটি বড় দল। এখানে অনেক নেতাকর্মীর সমাগম রয়েছে। তাই পদপদবির প্রত্যাশীও অনেক বেশি। সবাইকে তো পদ দেওয়া যায় না। দলের জন্য যারা নিবেদিত প্রাণ এবং দুঃসময়ে দলের জন্য কাজ করে তাদেরই কমিটিতে স্থান দেওয়া হয়েছে।

২৩ নেতার পদত্যাগের গুঞ্জন উড়িয়ে দিয়ে তিনি বলেন, এটি মিথ্যা। আমার কাছে কেউ পদত্যাগপত্র জমা দেয়নি। পদত্যাগে যাদের নাম শোনা গেছে, আমি তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। পদত্যাগের ব্যাপারে তারা কিছু জানেই না। গুটিকয়েক পদবঞ্চিত নেতা এলাকায় রিউমার ছড়াচ্ছে।

নরসিংদীতে বিএনপি নেতার পদত্যাগ নাটক, প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

 নরসিংদী প্রতিনিধি 
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:৪০ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নরসিংদীতে ইউনিয়ন বিএনপির কমিটিতে পদ না পাওয়ায় দল থেকে পদত্যাগের নাটক সাজিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে যুবদলের এক নেতার বিরুদ্ধে। 

নবগঠিত কমিটির ২৩ নেতার নাম উল্লেখ করে পদত্যাগের এ নাটক সাজানো হয় বলেও অভিযোগ করা হয়। এ ঘটনার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছেন আলোকবালী ইউনিয়ন বিএনপির নেতাকর্মীরা। 

মঙ্গলবার দুপুরে নরসিংদী জেলা বিএনপির কার্যালয় চিনিশপুরে এ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নরসিংদী সদর থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন। 

তিনি জানান, ইউনিয়ন বিএনপির নেতাকর্মীদের চাঙা  ও শক্তিশালী করার লক্ষ্যে শাহ আলম চৌধুরীকে আহ্বায়ক ও আব্দুল কাইয়ুম সরকারকে সদস্য সচিব করে ৪০ সদস্যবিশিষ্ট আলোকবালী ইউনিয়ন বিএনপির কমিটি ঘোষণা করা হয়। এতে সদর থানা যুবদলের এক নেতা ক্ষিপ্ত হন। 

এলাকার নেতৃত্ব হাতে নিতে তিনি আলোকবালী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদকের পদ চেয়েছিলেন। দলের ঊর্ধ্বতন নেতারা রাজপথের আন্দোলন-সংগ্রামের ত্যাগী ও হামলা মামলার শিকার এমন নেতাদের কমিটিতে স্থান দিয়েছেন। তাই বর্তমান কমিটির সভাপতি ও সদস্য সচিব ব্যতীত ২৩ জনের নাম লিখে পদত্যাগের নাটক সাজিয়েছেন এবং তা গণমাধ্যমে প্রকাশ করেন। 

বাস্তবে নবগঠিত কমিটির কেউ পদত্যাগ করেননি। এমনকি পদত্যাগপত্রে যাদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে, তারা সবাই আজকের সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত রয়েছেন। ব্যক্তিস্বার্থে দলকে ক্ষতিগ্রস্ত করতেই এমন কর্মকাণ্ড চালিয়েছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। 

এ সময় উপস্থিত ছিলেন আলোকবালী ইউনিয়ন বিএনপির আহ্বায়ক শাহ আলম চৌধুরী, সদস্য সচিব কাইয়ুম সরকার, যুগ্ম আহ্বায়ক মানিক মিয়া, সাইদুর রহমান মোমেন, জয়নাল আবেদীন সরকার, কালু মেম্বার, সদস্য তারেক সরকার, মান্নান মেম্বার। 

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও জেলা বিএনপির আহ্বায়ক খায়রুল কবির খোকন বলেন, বিএনপি একটি বড় দল। এখানে অনেক নেতাকর্মীর সমাগম রয়েছে। তাই পদপদবির প্রত্যাশীও অনেক বেশি। সবাইকে তো পদ দেওয়া যায় না। দলের জন্য যারা নিবেদিত প্রাণ এবং দুঃসময়ে দলের জন্য কাজ করে তাদেরই কমিটিতে স্থান দেওয়া হয়েছে। 

২৩ নেতার পদত্যাগের গুঞ্জন উড়িয়ে দিয়ে তিনি বলেন, এটি মিথ্যা। আমার কাছে কেউ পদত্যাগপত্র জমা দেয়নি। পদত্যাগে যাদের নাম শোনা গেছে, আমি তাদের সঙ্গে কথা বলেছি। পদত্যাগের ব্যাপারে তারা কিছু জানেই না। গুটিকয়েক পদবঞ্চিত নেতা এলাকায় রিউমার ছড়াচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন