শ্রেণিকক্ষের অভাবে গাছতলায় পাঠদান
jugantor
শ্রেণিকক্ষের অভাবে গাছতলায় পাঠদান

  খোরশেদ আলম, কাপাসিয়া (গাজীপুর)  

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২০:৫২:৫৯  |  অনলাইন সংস্করণ

গাজীপুরের কাপাসিয়ায় শ্রেণিকক্ষের অভাবে গাছতলায় পাঠদান দেয়া হচ্ছে। ঘটনাটি উপজেলার বারিষাব ইউনিয়নের ৩৭নং ডাওরা জেবি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ১৯৬৪ সালে এলাকার শিক্ষা অনুরাগী কিছু ব্যক্তি স্ব-উদ্যোগে প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠিত করেন। প্রতিষ্ঠানটিতে ২৪০ জন শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছে। শিক্ষার্থীরা ভালো ফলাফলও অব্যাহত রেখেছে। কিন্তু প্রতিষ্ঠানটির অবকাঠানোর কোনো উন্নয়ন হয়নি। বিদ্যালয়ে ৫-৭টি কক্ষ থাকার কথা থাকলেও রয়েছে মাত্র ৩টি। এ কারণেই শিক্ষার্থীদের খোলা আকাশের নিচে ক্লাস করতে হচ্ছে।

শ্রেণিকক্ষ সংকটের কারণে সহকারি শিক্ষিকা আকলিমা বিদ্যালয়ের আঙিনায় গাছের নিচে বেঞ্চ পেতে ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পাঠদান করান।
এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আতাউল হক যুগান্তরকে বলেন, শ্রেণিকক্ষের অভাবে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা কার্যক্রম চালাতে খুবই অসুবিধা হচ্ছে। ২০১৮ সালে মাটি পরীক্ষা করে নিলেও কি কারণে বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মিত হচ্ছে না তা আমার জানা নেই। তবে সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছি যেন বিদ্যালয়ে দ্রুত সময়ের মধ্যে একটি ভবন নির্মাণ করে শিক্ষার সুন্দর পরিবেশ ফিরে আনা হয়।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আনসার উদ্দীন যুগান্তরকে বলেন, শ্রেণিকক্ষ সংকটে শিক্ষা-কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে এ বিষয়ে আমি অবগত। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করেছি, অচিরেই সমস্যার সমাধান হবে। চলমান অর্থবছরেই একটি নতুন ভবন নির্মাণের প্রক্রিয়া চলছে।

শ্রেণিকক্ষের অভাবে গাছতলায় পাঠদান

 খোরশেদ আলম, কাপাসিয়া (গাজীপুর) 
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:৫২ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

গাজীপুরের কাপাসিয়ায় শ্রেণিকক্ষের অভাবে গাছতলায় পাঠদান দেয়া হচ্ছে। ঘটনাটি উপজেলার বারিষাব ইউনিয়নের ৩৭নং ডাওরা জেবি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ১৯৬৪ সালে এলাকার শিক্ষা অনুরাগী কিছু ব্যক্তি স্ব-উদ্যোগে প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠিত করেন। প্রতিষ্ঠানটিতে ২৪০ জন শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছে। শিক্ষার্থীরা ভালো ফলাফলও অব্যাহত রেখেছে। কিন্তু প্রতিষ্ঠানটির অবকাঠানোর কোনো উন্নয়ন হয়নি। বিদ্যালয়ে ৫-৭টি কক্ষ থাকার কথা থাকলেও রয়েছে মাত্র ৩টি। এ কারণেই শিক্ষার্থীদের খোলা আকাশের নিচে ক্লাস করতে হচ্ছে। 

শ্রেণিকক্ষ সংকটের কারণে সহকারি শিক্ষিকা আকলিমা বিদ্যালয়ের আঙিনায় গাছের নিচে বেঞ্চ পেতে ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পাঠদান করান।
এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আতাউল হক যুগান্তরকে বলেন, শ্রেণিকক্ষের অভাবে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা কার্যক্রম চালাতে খুবই অসুবিধা হচ্ছে। ২০১৮ সালে মাটি পরীক্ষা করে নিলেও কি কারণে বিদ্যালয়ে নতুন ভবন নির্মিত হচ্ছে না তা আমার জানা নেই। তবে সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছি যেন বিদ্যালয়ে দ্রুত সময়ের মধ্যে একটি ভবন নির্মাণ করে শিক্ষার সুন্দর পরিবেশ ফিরে আনা হয়।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আনসার উদ্দীন যুগান্তরকে বলেন, শ্রেণিকক্ষ সংকটে শিক্ষা-কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে এ বিষয়ে আমি অবগত। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি অবহিত করেছি, অচিরেই সমস্যার সমাধান হবে। চলমান অর্থবছরেই একটি নতুন ভবন নির্মাণের প্রক্রিয়া চলছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন