অটোরিকশায় বাসের ধাক্কা, খালা-ভাগ্নিসহ নিহত ৩
jugantor
অটোরিকশায় বাসের ধাক্কা, খালা-ভাগ্নিসহ নিহত ৩

  তারাগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি  

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২২:২৭:৪২  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুরের তারাগঞ্জে শ্যামলী পরিবহন বাসের ধাক্কায় ব্যটারিচালিত অটোরিকশার যাত্রী খালা-ভাগ্নি ও অটোরিকশাচালকসহ ৩ জন নিহত ও ৫ জন গুরুতর আহত হয়েছে।

বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কের উপজেলার যমুনেশ্বরী বরাতি ব্রিজ নামক এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- উপজেলার ইকরচালি সরকারপাড়া গ্রামের ভুট্টু মিয়ার মেয়ে ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থী সুরাইয়া (১২), সুরাইয়ার খালা উপজেলার ইকরচালি ইউনিয়নের দোলাপাড়া গ্রামের মাসুদ রানার স্ত্রী স্মৃতি বেগম (২২) এবং একই গ্রামের নজির হোসেনের ছেলে অটোচালক জাহাঙ্গীর আলম (৪৫)।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, সকাল সাড়ে ১০টায় ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাটি ৮ জন যাত্রী নিয়ে ইকরচালি বাজার থেকে তারাগঞ্জ বাজারের উদ্দেশে আসছিল। পথে যমুনেস্বরী নদীর বারাতি সেতুর কাছে আসলে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা দিনাজপুর গামী শ্যামলী পরিবহন বাসটি যাত্রীবাহী অটোরিকশার পিছনে ধাক্কা দেয়। এসময় ঘটনাস্থলেই সুমাইয়া নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়। অটোরিকশার চালকসহ ৫ জন আহত হয়। আহতদের প্রথমে উপজেলা হাসপাতাল ও পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকাল ৩টায় সুরাইয়ার খালা স্মৃতি বেগম ও ৫টায় আটোচালক জাহাঙ্গীর আলম মারা যায়।
বুধবার বিকাল ৫টায় তারাগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহাবুব মোরশেদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া আটোরিকশা ও শ্যামলী পরিবহনের বাসটি থানায় হেফাজতে রয়েছে। শ্যামলী পরিবহনের চালক ও হেলপার পালিয়েছে।

অটোরিকশায় বাসের ধাক্কা, খালা-ভাগ্নিসহ নিহত ৩

 তারাগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি 
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১০:২৭ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

রংপুরের তারাগঞ্জে শ্যামলী পরিবহন বাসের ধাক্কায় ব্যটারিচালিত অটোরিকশার যাত্রী খালা-ভাগ্নি ও অটোরিকশাচালকসহ ৩ জন নিহত ও ৫ জন গুরুতর আহত হয়েছে।

বুধবার সকাল সাড়ে ১০টায় রংপুর-দিনাজপুর মহাসড়কের উপজেলার যমুনেশ্বরী বরাতি ব্রিজ নামক এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- উপজেলার ইকরচালি সরকারপাড়া গ্রামের ভুট্টু মিয়ার মেয়ে ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থী সুরাইয়া (১২), সুরাইয়ার খালা উপজেলার ইকরচালি ইউনিয়নের দোলাপাড়া গ্রামের মাসুদ রানার স্ত্রী স্মৃতি বেগম (২২) এবং একই গ্রামের নজির হোসেনের ছেলে অটোচালক জাহাঙ্গীর আলম (৪৫)।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, সকাল সাড়ে ১০টায় ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাটি ৮ জন যাত্রী নিয়ে ইকরচালি বাজার থেকে তারাগঞ্জ বাজারের উদ্দেশে আসছিল। পথে যমুনেস্বরী নদীর বারাতি সেতুর কাছে আসলে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা দিনাজপুর গামী শ্যামলী পরিবহন বাসটি যাত্রীবাহী অটোরিকশার পিছনে ধাক্কা দেয়। এসময় ঘটনাস্থলেই সুমাইয়া নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়। অটোরিকশার চালকসহ ৫ জন আহত হয়। আহতদের প্রথমে উপজেলা হাসপাতাল ও পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বিকাল ৩টায় সুরাইয়ার খালা স্মৃতি বেগম ও ৫টায় আটোচালক জাহাঙ্গীর আলম মারা যায়।
বুধবার বিকাল ৫টায় তারাগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাহাবুব মোরশেদ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, সড়ক দুর্ঘটনায় দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া আটোরিকশা ও শ্যামলী পরিবহনের বাসটি থানায় হেফাজতে রয়েছে। শ্যামলী পরিবহনের চালক ও হেলপার পালিয়েছে।
 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন