স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মীসভায় যুবলীগের হামলার অভিযোগ, আহত ৩০
jugantor
স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মীসভায় যুবলীগের হামলার অভিযোগ, আহত ৩০

  ফরিদপুর ব্যুরো  

২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২৩:০৩:৩৭  |  অনলাইন সংস্করণ

ফরিদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মী সভায় হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এসএম জিলানীসহ আহত হয়েছে কমপক্ষে ৩০ নেতাকর্মী।

ভাংচুর করা হয়েছে অনুষ্ঠানস্থলের চেয়ার-টেবিল। হামলায় পণ্ড হয়ে যায় স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মীসভা। ফরিদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মী সভা বুধবার বেলা সাড়ে তিনটায় শহরের অম্বিকা হলে অনুষ্ঠিত হয়।

স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতারা অভিযোগ করে বলেন, যুবলীগের নেতৃত্বে শতাধিক লোকজন লাঠিসোটা নিয়ে অনুষ্ঠানস্থলে হামলা করে। এসময় হামলাকারীরা অনুষ্ঠানস্থলের ভেতরে প্রবেশ করে এলোপাথারী ভাবে মারপিট ও ভাংচুর শুরু করে। বেশ কয়েক মিনিট ধরে চালানো হয় এ হামলা।

হামলাকারীদের পিটুনীকে স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি এস এম জিলানীসহ স্থানীয় ৩০ নেতা-কর্মী আহত হয়। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

পরে স্থানীয় এক বিএনপি নেতার বাসায় সংবাদ সম্মেলন করে এ হামলার জন্য যুবলীগকে দায়ী করে বক্তব্য রাখেন স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি এস এম জিলানী।

তিনি বলেন, শান্তিপূর্ণ কর্মী সভায় জেলা যুবলীগের নেতৃত্বে হামলা চালানো হয়। হামলাকারীরা রামদা, হকিষ্টিসহ লাঠি নিয়ে তাদের উপর হামলা করে। তারা অম্বিকা হলরুমে ঢুকে বেপরোয়া ভাবে মারপিট শুরু করে এবং মঞ্চ ও চেয়ার ভাংচুর করে। হামলায় তিনিসহ দলের অর্ধ শতাধিক নেতাকর্মী আহত হন। এ ন্যাক্কারজনক হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান তিনি।

এ হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন ফরিদপুর জেলা বিএনপির আহবায়ক সৈয়দ মোদাররেস আলী ইছা, সদস্য সচিব একেএম কিবরিয়া স্বপন, সেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক সৈয়দ জুলফিকার হোসেন জুয়েল।

স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মীসভায় যুবলীগের হামলার অভিযোগ, আহত ৩০

 ফরিদপুর ব্যুরো 
২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১১:০৩ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ফরিদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মী সভায় হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি এসএম জিলানীসহ আহত হয়েছে কমপক্ষে ৩০ নেতাকর্মী।

ভাংচুর করা হয়েছে অনুষ্ঠানস্থলের চেয়ার-টেবিল। হামলায় পণ্ড হয়ে যায় স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মীসভা। ফরিদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মী সভা বুধবার বেলা সাড়ে তিনটায় শহরের অম্বিকা হলে অনুষ্ঠিত হয়।

স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতারা অভিযোগ করে বলেন, যুবলীগের নেতৃত্বে শতাধিক লোকজন লাঠিসোটা নিয়ে অনুষ্ঠানস্থলে হামলা করে। এসময় হামলাকারীরা অনুষ্ঠানস্থলের ভেতরে প্রবেশ করে এলোপাথারী ভাবে মারপিট ও ভাংচুর শুরু করে। বেশ কয়েক মিনিট ধরে চালানো হয় এ হামলা। 

হামলাকারীদের পিটুনীকে স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি এস এম জিলানীসহ স্থানীয় ৩০ নেতা-কর্মী আহত হয়। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। 

পরে স্থানীয় এক বিএনপি নেতার বাসায় সংবাদ সম্মেলন করে এ হামলার জন্য যুবলীগকে দায়ী করে বক্তব্য রাখেন স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি এস এম জিলানী। 

তিনি বলেন, শান্তিপূর্ণ কর্মী সভায় জেলা যুবলীগের নেতৃত্বে হামলা চালানো হয়। হামলাকারীরা রামদা, হকিষ্টিসহ লাঠি নিয়ে তাদের উপর হামলা করে। তারা অম্বিকা হলরুমে ঢুকে বেপরোয়া ভাবে মারপিট শুরু করে এবং মঞ্চ ও চেয়ার ভাংচুর করে। হামলায় তিনিসহ দলের অর্ধ শতাধিক নেতাকর্মী আহত হন। এ ন্যাক্কারজনক হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান তিনি।

এ হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন ফরিদপুর জেলা বিএনপির আহবায়ক সৈয়দ মোদাররেস আলী ইছা, সদস্য সচিব একেএম কিবরিয়া স্বপন, সেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক সৈয়দ জুলফিকার হোসেন জুয়েল।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন