পূজার আলোয় উজ্জ্বল বরিশাল
jugantor
পূজার আলোয় উজ্জ্বল বরিশাল

  বরিশাল ব্যুরো  

০১ অক্টোবর ২০২২, ০২:৩৪:১৩  |  অনলাইন সংস্করণ

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সব থেকে বড় শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে নিরাপত্তার প্রসঙ্গে কোনো ফাঁক-ফোকর ও কমতি রাখছে না বরিশাল পুলিশ। ষষ্ঠীর দিন অর্থাৎ রোববার থেকেই পূজা মণ্ডপ ঘিরে থাকবে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা। এদিকে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে আলোকোজ্জ্বল হয়ে উঠেছে পুরো নগরী। মণ্ডপগুলোর ভিতর ও সামনের সড়ক সাজানো হয়েছে বাহারি রঙের আলো দিয়ে।

বৃহস্পতিবার রাতে বরিশাল নগরীর বিভিন্ন পূজা মণ্ডপ ঘুরে বাহারি আলোকসজ্জা দেখা গেছে। আধুনিক নানা বৈদ্যুতিক বাতি দিয়ে সাজানো হয়েছে। বড় বড় মঠ ও মন্দিরে থাকা পুকুরের মধ্যে বৈদ্যুতিক বাতি দিয়ে তৈরি করা হয়েছে পদ্ম সেতু ও পায়রা সেতু। এই আলোকসজ্জায় ঝলমলে হয়ে উঠেছে বরিশাল নগর।

নগরীর সর্ববৃহৎ পূজা মণ্ডপ শ্রী শ্রী শংকর মঠ পূজা উদযাপন কমিটির সহ সাধারণ সম্পাদক সবুজ দাস বলেন, করোনার প্রকোপ কাটিয়ে স্বাভাবিক অবস্থায় অনেকটাই ফিরেছি আমরা। তাই এ বছর বড় ভাবে পূজা উদযাপনের উদ্যোগ নিয়েছি। আধুনিক লাইট দিয়ে মূল মন্দির সাজানো হয়েছে। এছাড়া মন্দিরের মধ্যের ও বাইরের প্রায় আধা কিলোমিটার সড়কে আলোকসজ্জায় করা হয়েছে। পুকুরের মধ্যে টিউব লাইট দিয়ে তৈরি করা হয়েছে পদ্মা সেতু। পাশাপাশি এলইডি লাইট দিয়ে তৈরি করা হয়েছে দুইটি বিশাল তোড়ন।

নগরীতে পূজা উপলক্ষে আলোকসজ্জা দেখতে বের হওয়া শ্রাবন্তী নন্দী বলেন, দুর্গাপূজা এলে পুরো নগরীর সড়ক আলোতে ঝলমল করে ওঠে। আর সেই ঝলমলে নগরী দেখতেই পরিবার নিয়ে বের হয়েছি। ৬টি পূজা মণ্ডপের আলোকসজ্জা ঘুরে দেখেছি রিকশায় চরে। নতুন বাজার, অষ্টকোনা মঠ, জগন্নাথ মন্দির, শংকর মঠ, কাটপট্টি চার্চওয়ার্ড ও পাষানময়ী কালিমাতার মন্দিরে ঘুরেছি।

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের দক্ষিণ বিভাগের অতিরিক্ত উপ কমিশনার ফজলুল করিম বলেন, বন্দর ও কোতোয়ালি মডেল থানা এলাকা মিলিয়ে অধিক গুরুত্বপূর্ণ পূজা মণ্ডপ রয়েছে ১১টি। সেই পূজা মণ্ডপগুলোতে ৫ জন করে স্থায়ী পুলিশ থাকবে, পাশাপাশি পুলিশ সদস্যদের সহায়তা করবে আনসার সদস্যরাও।

তিনি বলেন, মহানগরের সকল পূজা মণ্ডপেই মোবাইল টিম থাকবে। পাশাপাশি সাদা পোশাকধারী পুলিশ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবে। আমরা মাদকের বিরুদ্ধে বেশ শক্ত অবস্থানে রয়েছি।

বরিশাল জেলার পুলিশ সুপার ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, বরিশাল জেলা পুলিশের থানাগুলোর আওতায় ৫৩২টি পূজা মণ্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজা নির্বিঘ্ন করতে এসব মণ্ডপগুলোর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ও অধিক গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনায় স্থায়ীভাবে মোট ৬০০ পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করবে। কেউ যদি পূজা মণ্ডপে অরাজকতা করার চেষ্টা করে তাহলে তা কঠোর হাতে দমন করা হবে।

পূজার আলোয় উজ্জ্বল বরিশাল

 বরিশাল ব্যুরো 
০১ অক্টোবর ২০২২, ০২:৩৪ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সব থেকে বড় শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে নিরাপত্তার প্রসঙ্গে কোনো ফাঁক-ফোকর ও কমতি রাখছে না বরিশাল পুলিশ। ষষ্ঠীর দিন অর্থাৎ রোববার থেকেই পূজা মণ্ডপ ঘিরে থাকবে ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা। এদিকে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে আলোকোজ্জ্বল হয়ে উঠেছে পুরো নগরী। মণ্ডপগুলোর ভিতর ও সামনের সড়ক সাজানো হয়েছে বাহারি রঙের আলো দিয়ে।

বৃহস্পতিবার রাতে বরিশাল নগরীর বিভিন্ন পূজা মণ্ডপ ঘুরে বাহারি আলোকসজ্জা দেখা গেছে। আধুনিক নানা বৈদ্যুতিক বাতি দিয়ে সাজানো হয়েছে। বড় বড় মঠ ও মন্দিরে থাকা পুকুরের মধ্যে বৈদ্যুতিক বাতি দিয়ে তৈরি করা হয়েছে পদ্ম সেতু ও পায়রা সেতু। এই আলোকসজ্জায় ঝলমলে হয়ে উঠেছে বরিশাল নগর।

নগরীর সর্ববৃহৎ পূজা মণ্ডপ শ্রী শ্রী শংকর মঠ পূজা উদযাপন কমিটির সহ সাধারণ সম্পাদক সবুজ দাস বলেন, করোনার প্রকোপ কাটিয়ে স্বাভাবিক অবস্থায় অনেকটাই ফিরেছি আমরা। তাই এ বছর বড় ভাবে পূজা উদযাপনের উদ্যোগ নিয়েছি। আধুনিক লাইট দিয়ে মূল মন্দির সাজানো হয়েছে। এছাড়া মন্দিরের মধ্যের ও বাইরের প্রায় আধা কিলোমিটার সড়কে আলোকসজ্জায় করা হয়েছে। পুকুরের মধ্যে টিউব লাইট দিয়ে তৈরি করা হয়েছে পদ্মা সেতু। পাশাপাশি এলইডি লাইট দিয়ে তৈরি করা হয়েছে দুইটি বিশাল তোড়ন।

নগরীতে পূজা উপলক্ষে আলোকসজ্জা দেখতে বের হওয়া শ্রাবন্তী নন্দী বলেন, দুর্গাপূজা এলে পুরো নগরীর সড়ক আলোতে ঝলমল করে ওঠে। আর সেই ঝলমলে নগরী দেখতেই পরিবার নিয়ে বের হয়েছি। ৬টি পূজা মণ্ডপের আলোকসজ্জা ঘুরে দেখেছি রিকশায় চরে। নতুন বাজার, অষ্টকোনা মঠ, জগন্নাথ মন্দির, শংকর মঠ, কাটপট্টি চার্চওয়ার্ড ও পাষানময়ী কালিমাতার মন্দিরে ঘুরেছি।

বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের দক্ষিণ বিভাগের অতিরিক্ত উপ কমিশনার ফজলুল করিম বলেন, বন্দর ও কোতোয়ালি মডেল থানা এলাকা মিলিয়ে অধিক গুরুত্বপূর্ণ পূজা মণ্ডপ রয়েছে ১১টি। সেই পূজা মণ্ডপগুলোতে ৫ জন করে স্থায়ী পুলিশ থাকবে, পাশাপাশি পুলিশ সদস্যদের সহায়তা করবে আনসার সদস্যরাও।

তিনি বলেন, মহানগরের সকল পূজা মণ্ডপেই মোবাইল টিম থাকবে। পাশাপাশি সাদা পোশাকধারী পুলিশ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করবে। আমরা মাদকের বিরুদ্ধে বেশ শক্ত অবস্থানে রয়েছি।

বরিশাল জেলার পুলিশ সুপার ওয়াহিদুল ইসলাম বলেন, বরিশাল জেলা পুলিশের থানাগুলোর আওতায় ৫৩২টি পূজা মণ্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজা নির্বিঘ্ন করতে এসব মণ্ডপগুলোর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ ও অধিক গুরুত্বপূর্ণ বিবেচনায় স্থায়ীভাবে মোট ৬০০ পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করবে। কেউ যদি পূজা মণ্ডপে অরাজকতা করার চেষ্টা করে তাহলে তা কঠোর হাতে দমন করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন