বিদ্যালয়ের ভবন বিক্রি, অতঃপর...
jugantor
বিদ্যালয়ের ভবন বিক্রি, অতঃপর...

  সোনাগাজী (ফেনী) প্রতিনিধি  

০৩ অক্টোবর ২০২২, ২২:৫৪:৫১  |  অনলাইন সংস্করণ

ফেনীর সোনাগাজীতে প্রায় ১০ লাখ টাকা মূল্যের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পুরাতন ভবন মাত্র ৪২ হাজার টাকায় বিক্রির অভিযোগ উঠেছে।

কোনো নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে একটি চক্র নিজাম উদ্দিন নামে এক ব্যক্তির কাছে গোপনে বিক্রি করে দিয়েছে ভবনটি। এ নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজমান।

স্থানীয়দের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে রোববার বিকালে কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন ইউএনও। নিলাম কমটির সদস্যরা একে অপরকে দুষলেন আর অনিয়মের কথা স্বীকার করে নিলাম বাতিলের সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানিয়েছেন।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস, ইউএনও অফিস ও উপজেলা প্রকৌশল অফিস সূত্রে জানা গেছে, পৌর শহরের সোনাগাজী মাদরাসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণ কাজের দরপত্র ঘোষণা হয়। নতুন ভবন নির্মাণের নিমিত্তে পুরাতন ভবনটি ভাঙার জন্য গোপনে নিলামের জন্য উপজেলা প্রকৌশলী অফিসের মাধ্যমে ৩ লাখ ৭৭ হাজার ৭৪১ টাকা প্রাক্কলিত মূল্য নির্ধারণ করা হয়। সেখানে সরকারি কোষাগারে ভ্যাট ও আয়করসহ মাত্র ৪২ হাজার ৯৪০ টাকা জমা দেওয়া হয়েছে। বাকি ৩ লাখ ৩৪ হাজার ৮০১ টাকা ভাঙার খরচ নির্ধারণ করা হয়েছে। নিলাম কমিটির সভাপতি ইউএনও, সদস্য সচিব উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার, সদস্যরা হলেন উপজেলা প্রকৌশলী এবং ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক।

কমিটির চার গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির চোখ ফাঁকি দিয়ে কিভাবে এমন ঘটনা ঘটল তা নিয়ে চলছে না গুঞ্জন। এ ব্যপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম মনজুরুল হক বলেন, আমি এ উপজেলায় যোগদান করেছি বেশি দিন হয়নি। আমাকে ভুল তথ্য দিয়ে কমিটির সভার সিদ্ধান্ত ছাড়াই শিক্ষা অফিস আমার কাছ থেকে নতুন ভবন ভাঙার কার্যাদেশ নিয়েছেন। স্থানীয়দের অভিযোগের ভিত্তিতে রোববার কাজ বন্ধ করে দিয়েছি। মঙ্গলবার উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ও উপজেলা প্রকৌশলীকে ডাকা হয়েছে। তাদের মতামত ও কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করে অনিয়মের সত্যতা মিললে নিলাম বাতিল করা হবে। প্রাথমিকভাবে অনিয়মের সত্যতা মিলেছে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. নজরুল ইসলাম অনিয়মের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমি দীর্ঘদিন ধরে আসুস্থ্। অসুস্থতার মধ্যেও আমি গত মাসে কাজে যোগদান করেছি। আমার অফিসের উচ্চমান সহকারী লাকি বালা দাস ও আমার আরেক সহকর্মী ভুল তথ্য দিয়ে গোপনে আমার মাধ্যমে কাজটি করিয়েছে। আমি এ প্রক্রিয়ায় হারাম একটা টাকাও লাভবান হইনি। ইউএনও মহোদয়ের সাথে আলোচনা করে নিলাম বাতিল করা হবে।

নিলাম কমিটির সদস্য ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হুমায়ূন কবির অনিয়মের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমি বিষয়টি জানার পর প্রতিবাদও করেছি। এর জন্য দায়ী উপজেলা প্রকৌশল ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিস। এ অনিয়মে আরও কতিপয় ব্যক্তি জড়িত। বর্তমানে আমি তিন মাসের ট্রেনিংয়ে আছি। কমিটির অপর সদস্য উপজেলা প্রকৌশলী মো. মনির হোসেন খানকে ট্রেনিংয়ে থাকায় তাকে বারবার চেষ্টা করে এবং মুঠোফোনেও পাওয়া যায়নি।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসহকারী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম বলেন, এটা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের কাজ। অনিয়ম করলে শিক্ষা অফিস করেছে। পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি, প্রচার ও প্রচারণার বিষয়টি প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক অভিভাবক জানান, পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি ও কোন প্রকার প্রচার প্রচারণা ছাড়াই কতিপয় ব্যক্তি ও সরকারি কর্মকর্তারা ব্যক্তিগত লাভবানের উদ্দেশ্যে নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে কোনো ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নামে নিলাম বরাদ্দ না দিয়ে চরচান্দিয়ার নিজাম উদ্দিন নামে এক ব্যক্তির কাছে নামমাত্র মূল্যে বিক্রি করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে নিজাম উদ্দিন মাসুদের মুঠোফোনে ফোন দিয়ে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি ব্যস্ত আছেন বলে লাইন কেটে দেন এবং বলেন বিষয়টি পরে জানাবেন।

এ ব্যাপারে পৌর কাউন্সিলর জামাল উদ্দিন নয়ন বলেন, স্থানীয়দের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারলাম যথাযথ নিয়ম অনুসরণ না করে নিজাম উদ্দিনের কাছে ভবনটি বিক্রি করা হয়েছে। তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক। গোলাম মাওলা নামে এক ব্যক্তি সাড়ে সাত লাখ টাকা দিয়ে ভবনটি কিনতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তার কাছে চাওয়া হয়েছিল সাড়ে আট লাখ টাকা। কিন্তু এখন জানতে পারলাম রাষ্ট্রীয় কোষাগারে মাত্র ৪২ হাজার টাকা যোগ হয়েছে। তাহলে বাকি টাকা গেল কোথায়? কারা খেল?

বিদ্যালয়ের ভবন বিক্রি, অতঃপর...

 সোনাগাজী (ফেনী) প্রতিনিধি 
০৩ অক্টোবর ২০২২, ১০:৫৪ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ফেনীর সোনাগাজীতে প্রায় ১০ লাখ টাকা মূল্যের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পুরাতন ভবন মাত্র ৪২ হাজার টাকায় বিক্রির অভিযোগ উঠেছে।

কোনো নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে একটি চক্র নিজাম উদ্দিন নামে এক ব্যক্তির কাছে গোপনে বিক্রি করে দিয়েছে ভবনটি। এ নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষ বিরাজমান।

স্থানীয়দের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে রোববার বিকালে কাজ বন্ধ করে দিয়েছেন ইউএনও। নিলাম কমটির সদস্যরা একে অপরকে দুষলেন আর অনিয়মের কথা স্বীকার করে নিলাম বাতিলের সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানিয়েছেন। 

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস, ইউএনও অফিস ও উপজেলা প্রকৌশল অফিস সূত্রে জানা গেছে, পৌর শহরের সোনাগাজী মাদরাসা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণ কাজের দরপত্র ঘোষণা হয়। নতুন ভবন নির্মাণের নিমিত্তে পুরাতন ভবনটি ভাঙার জন্য গোপনে নিলামের জন্য উপজেলা প্রকৌশলী অফিসের মাধ্যমে ৩ লাখ ৭৭ হাজার ৭৪১ টাকা প্রাক্কলিত মূল্য নির্ধারণ করা হয়। সেখানে সরকারি কোষাগারে ভ্যাট ও আয়করসহ মাত্র ৪২ হাজার ৯৪০ টাকা জমা দেওয়া হয়েছে। বাকি ৩ লাখ ৩৪ হাজার ৮০১ টাকা ভাঙার খরচ নির্ধারণ করা হয়েছে। নিলাম কমিটির সভাপতি ইউএনও, সদস্য সচিব উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার, সদস্যরা হলেন উপজেলা প্রকৌশলী এবং ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। 

কমিটির চার গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির চোখ ফাঁকি দিয়ে কিভাবে এমন ঘটনা ঘটল তা নিয়ে চলছে না গুঞ্জন। এ ব্যপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম মনজুরুল হক বলেন, আমি এ উপজেলায় যোগদান করেছি বেশি দিন হয়নি। আমাকে ভুল তথ্য দিয়ে কমিটির সভার সিদ্ধান্ত ছাড়াই শিক্ষা অফিস আমার কাছ থেকে নতুন ভবন ভাঙার কার্যাদেশ নিয়েছেন। স্থানীয়দের অভিযোগের  ভিত্তিতে রোববার কাজ বন্ধ করে দিয়েছি। মঙ্গলবার উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ও উপজেলা প্রকৌশলীকে ডাকা হয়েছে। তাদের মতামত ও কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করে অনিয়মের সত্যতা মিললে নিলাম বাতিল করা হবে। প্রাথমিকভাবে অনিয়মের সত্যতা মিলেছে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মো. নজরুল ইসলাম অনিয়মের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমি দীর্ঘদিন ধরে আসুস্থ্। অসুস্থতার মধ্যেও আমি গত মাসে কাজে যোগদান করেছি। আমার অফিসের উচ্চমান সহকারী লাকি বালা দাস ও আমার আরেক সহকর্মী ভুল তথ্য দিয়ে গোপনে আমার মাধ্যমে কাজটি করিয়েছে। আমি এ প্রক্রিয়ায় হারাম একটা টাকাও লাভবান হইনি। ইউএনও মহোদয়ের সাথে আলোচনা করে নিলাম বাতিল করা হবে। 

নিলাম কমিটির সদস্য ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হুমায়ূন কবির অনিয়মের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমি বিষয়টি জানার পর প্রতিবাদও করেছি। এর জন্য দায়ী উপজেলা প্রকৌশল ও প্রাথমিক শিক্ষা অফিস। এ অনিয়মে আরও কতিপয় ব্যক্তি জড়িত। বর্তমানে আমি তিন মাসের ট্রেনিংয়ে আছি। কমিটির অপর সদস্য উপজেলা প্রকৌশলী মো. মনির হোসেন খানকে ট্রেনিংয়ে থাকায় তাকে বারবার চেষ্টা করে এবং মুঠোফোনেও পাওয়া যায়নি। 

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসহকারী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম বলেন, এটা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের কাজ। অনিয়ম করলে শিক্ষা অফিস করেছে। পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি, প্রচার ও প্রচারণার বিষয়টি প্রাথমিক শিক্ষা অফিসের। 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক অভিভাবক জানান, পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি ও কোন প্রকার প্রচার প্রচারণা ছাড়াই কতিপয় ব্যক্তি ও সরকারি কর্মকর্তারা ব্যক্তিগত লাভবানের উদ্দেশ্যে নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে কোনো ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নামে নিলাম বরাদ্দ না দিয়ে চরচান্দিয়ার নিজাম উদ্দিন নামে এক ব্যক্তির কাছে নামমাত্র মূল্যে বিক্রি করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে নিজাম উদ্দিন মাসুদের মুঠোফোনে ফোন দিয়ে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি ব্যস্ত আছেন বলে লাইন কেটে দেন এবং বলেন বিষয়টি পরে জানাবেন। 

এ ব্যাপারে পৌর কাউন্সিলর জামাল উদ্দিন নয়ন বলেন, স্থানীয়দের মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারলাম যথাযথ নিয়ম অনুসরণ না করে নিজাম উদ্দিনের কাছে ভবনটি বিক্রি করা হয়েছে। তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের বিরুদ্ধে শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক। গোলাম মাওলা নামে এক ব্যক্তি সাড়ে সাত লাখ টাকা দিয়ে ভবনটি কিনতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তার কাছে চাওয়া হয়েছিল সাড়ে আট লাখ টাকা। কিন্তু এখন জানতে পারলাম রাষ্ট্রীয় কোষাগারে মাত্র ৪২ হাজার টাকা যোগ হয়েছে। তাহলে বাকি টাকা গেল কোথায়? কারা খেল?

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন