চুরি করা স্বর্ণালঙ্কার বিক্রি করতে গিয়ে গৃহপরিচারিকা গ্রেফতার
jugantor
চুরি করা স্বর্ণালঙ্কার বিক্রি করতে গিয়ে গৃহপরিচারিকা গ্রেফতার

  ফরিদপুর ব্যুরো  

০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০০:৩০:০৬  |  অনলাইন সংস্করণ

মালিকের বাসা থেকে চুরি করা সোনা ও হীরা দোকানে বিক্রি করতে গিয়ে গ্রেফতার হয়েছেন রেনু আক্তার (৩৬) নামের এক গৃহপরিচারিকা।

মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) বিকালে ফরিদপুর শহরের নিলটুলীর স্বর্ণকারপট্টির একটি দোকানে তাকে আটকের পর পুলিশে দেওয়া হয়।

আটক রেনু শহরের কমলাপুর এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করেন। তার স্বামীর নাম লিটন শেখ।

পুলিশ জানায়, শহরের কমলাপুর এলাকার মো. আব্দুস সালাম খলিফার বাসায় দীর্ঘদিন গৃহপরিচারিকার কাজ করে আসছিলেন রেনু আক্তার।

তিনি পরিবারের কাছে বিশ্বস্ত ছিলেন। মাঝে মধ্যেই তাকে বাসায় একা রেখে পরিবারের লোকজন বিভিন্ন জায়গায় বেড়াতে যেতেন।

গত রোববার বাসার লোকজন বাইরে বেড়াতে যান। ফাঁকা বাসা পেয়ে রেনু আক্তার আলমারি ভেঙ্গে স্বর্ণালঙ্কার ও হীরা চুরি করে পালিয়ে যান। বাসায় এসে এমন পরিস্থিতি দেখে সালামের স্ত্রী পলি আক্তার ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় অভিযোগ দেন।

মঙ্গলবার বিকালে শহরের স্বর্ণকারপট্টির নয়ন জুয়েলার্সে চুরি করা ওইসব স্বর্ণ ও হীরা বিক্রি করতে আসেন রেনু আক্তার।

মূল্যবান স্বর্ণাণঙ্কার ও হীরা দেখে জুয়েলার্সের মালিকের সন্দেহ হয়। তিনি রেনু আক্তারকে দোকানে বসিয়ে রেখে কৌশলে থানায় খবর দেন। পুলিশ এসে রেনুকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার ওসি এম এ জলিল বলেন, দোকানির সহযোগিতায় চুরির মালামালসহ গৃহপরিচারিকাকে আটক করা হয়েছে। রেনুর দেওয়া তথ্যে তার ভাড়া বাসা থেকে আরও স্বর্ণালঙ্কার ও হিরা উদ্ধার করা হয়। যা তিনি মাটির নিচে লুকিয়ে রেখেছিলেন।

ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুমন রঞ্জন সরকার বলেন, ওই গৃহপরিচারিকার কাছ থেকে উদ্ধার স্বর্ণালঙ্কার ও হীরা বাজার মূল্য ১৮ লাখ টাকার বেশি। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। গৃহপরিচারিকা রেনু আক্তারকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

চুরি করা স্বর্ণালঙ্কার বিক্রি করতে গিয়ে গৃহপরিচারিকা গ্রেফতার

 ফরিদপুর ব্যুরো 
০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:৩০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

মালিকের বাসা থেকে চুরি করা সোনা ও হীরা দোকানে বিক্রি করতে গিয়ে গ্রেফতার হয়েছেন রেনু আক্তার (৩৬) নামের এক গৃহপরিচারিকা।

মঙ্গলবার (২৯ নভেম্বর) বিকালে ফরিদপুর শহরের নিলটুলীর স্বর্ণকারপট্টির একটি দোকানে তাকে আটকের পর পুলিশে দেওয়া হয়।

আটক রেনু শহরের কমলাপুর এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করেন। তার স্বামীর নাম লিটন শেখ।

পুলিশ জানায়, শহরের কমলাপুর এলাকার মো. আব্দুস সালাম খলিফার বাসায় দীর্ঘদিন গৃহপরিচারিকার কাজ করে আসছিলেন রেনু আক্তার।

তিনি পরিবারের কাছে বিশ্বস্ত ছিলেন। মাঝে মধ্যেই তাকে বাসায় একা রেখে পরিবারের লোকজন বিভিন্ন জায়গায় বেড়াতে যেতেন।

গত রোববার বাসার লোকজন বাইরে বেড়াতে যান। ফাঁকা বাসা পেয়ে রেনু আক্তার আলমারি ভেঙ্গে স্বর্ণালঙ্কার ও হীরা চুরি করে পালিয়ে যান। বাসায় এসে এমন পরিস্থিতি দেখে সালামের স্ত্রী পলি আক্তার ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় অভিযোগ দেন।

মঙ্গলবার বিকালে শহরের স্বর্ণকারপট্টির নয়ন জুয়েলার্সে চুরি করা ওইসব স্বর্ণ ও হীরা বিক্রি করতে আসেন রেনু আক্তার।

মূল্যবান স্বর্ণাণঙ্কার ও হীরা দেখে জুয়েলার্সের মালিকের সন্দেহ হয়। তিনি রেনু আক্তারকে দোকানে বসিয়ে রেখে কৌশলে থানায় খবর দেন। পুলিশ এসে রেনুকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে ফরিদপুর কোতোয়ালি থানার ওসি এম এ জলিল বলেন, দোকানির সহযোগিতায় চুরির মালামালসহ গৃহপরিচারিকাকে আটক করা হয়েছে। রেনুর দেওয়া তথ্যে তার ভাড়া বাসা থেকে আরও স্বর্ণালঙ্কার ও হিরা উদ্ধার করা হয়। যা তিনি মাটির নিচে লুকিয়ে রেখেছিলেন।

ফরিদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুমন রঞ্জন সরকার বলেন, ওই গৃহপরিচারিকার কাছ থেকে উদ্ধার স্বর্ণালঙ্কার ও হীরা বাজার মূল্য ১৮ লাখ টাকার বেশি। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। গৃহপরিচারিকা রেনু আক্তারকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন