রূপপুর প্রকল্পে রুশ তরুণের মৃত্যু
jugantor
রূপপুর প্রকল্পে রুশ তরুণের মৃত্যু

  ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি  

০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:১০:১২  |  অনলাইন সংস্করণ

নির্মাণাধীন ঈশ্বরদী উপজেলার রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের গ্রিন সিটিতে এক রাশিয়ান তরুণ কর্মচারীর মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার বিকালে সের্গেই প্লেসাকত (৩২) নামের এই বিদেশি অসুস্থ বোধ করলে তাকে প্রকল্পের চিকিৎসক ইনজেকশন ও স্যালাইন দিয়ে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

সের্গেই প্লেসাকত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ‘এনার্গোস্পেটসমতাঝ’ এ কর্মরত ছিলেন। প্রকল্পের আবাসন গ্রিন সিটির ১৬ নম্বর ভবনের ১১ তলায় ১১৫ নম্বর কক্ষে তিনি থাকতেন। তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যেতে পারেন বলে ধারণা করছেন প্রকল্পের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

ঈশ্বরদী থানার ওসি অরবিন্দ সরকার জানান, মঙ্গলবার থেকেই এ বিদেশির শরীর খারাপ লাগছিল বলে প্রতিবেশীদের কাছ থেকে জানতে পেরেছি। বুধবার দুপুরে অবস্থার অবনতি হলে প্রকল্পের চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখানে বিকাল ৪টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

ওসি বলেন, মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানার জন্য আমরা তদন্ত করছি। ময়নাতদন্তের পর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে।

প্রকল্পের সাইট ডিরেক্টর প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম জানান, দুপুরের দিকে গ্রিন সিটির ১১৫ নম্বর কক্ষে প্লেসাকত অচেতন ছিল। তাকে পাবনায় হাসপাতালে পাঠানো হয়। হাসপাতালে নেওয়ার পর ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। হার্ট ফেইলর হয়ে মৃত্যু ঘটতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

রূপপুর প্রকল্পে রুশ তরুণের মৃত্যু

 ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি 
০১ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:১০ এএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নির্মাণাধীন ঈশ্বরদী উপজেলার রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের গ্রিন সিটিতে এক রাশিয়ান তরুণ কর্মচারীর মৃত্যু হয়েছে। 

বুধবার বিকালে সের্গেই প্লেসাকত (৩২) নামের এই বিদেশি অসুস্থ বোধ করলে তাকে প্রকল্পের চিকিৎসক ইনজেকশন ও স্যালাইন দিয়ে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন। 

সের্গেই প্লেসাকত ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ‘এনার্গোস্পেটসমতাঝ’ এ কর্মরত ছিলেন। প্রকল্পের আবাসন গ্রিন সিটির ১৬ নম্বর ভবনের ১১ তলায় ১১৫ নম্বর কক্ষে তিনি থাকতেন। তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যেতে পারেন বলে ধারণা করছেন প্রকল্পের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

ঈশ্বরদী থানার ওসি অরবিন্দ সরকার জানান, মঙ্গলবার থেকেই এ বিদেশির শরীর খারাপ লাগছিল বলে প্রতিবেশীদের কাছ থেকে জানতে পেরেছি। বুধবার দুপুরে অবস্থার অবনতি হলে প্রকল্পের চিকিৎসক প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে পাবনা জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন। সেখানে বিকাল ৪টার দিকে তার মৃত্যু হয়। 

ওসি বলেন, মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানার জন্য আমরা তদন্ত করছি। ময়নাতদন্তের পর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে।

প্রকল্পের সাইট ডিরেক্টর প্রকৌশলী আশরাফুল ইসলাম জানান, দুপুরের দিকে গ্রিন সিটির ১১৫ নম্বর কক্ষে প্লেসাকত অচেতন ছিল। তাকে পাবনায় হাসপাতালে পাঠানো হয়। হাসপাতালে নেওয়ার পর ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। হার্ট ফেইলর হয়ে মৃত্যু ঘটতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন