স্কুল থেকে বিদ্যুৎ লাইন নিয়ে বাড়িতে সংযোগ!
jugantor
স্কুল থেকে বিদ্যুৎ লাইন নিয়ে বাড়িতে সংযোগ!

  ফরিদপুর ব্যুরো  

০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২২:২৫:৫৩  |  অনলাইন সংস্করণ

ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার চরযশোরদী ইউনিয়নের চাঁদহাট বাজার উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বিদ্যুতের লাইন নিয়ে নিজ বাড়িতে ব্যবহার করার অভিযোগ উঠেছে হাফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত হাফিজুর ওই বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদ কমিটির সদস্য। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা গেছে, চাঁদহাট বাজার উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বিদ্যুৎ সংযোগের লাইন নিয়ে অবৈধভাবে গত ছয় মাস ধরে নিজের বাড়িতে চালিয়ে আসছেন হাফিজুর। তার বাড়িটি বিদ্যালয়ের পাশে হওয়ার সুবাদে তিনি এ সুবিধা ভোগ করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, বিদ্যালয়ের উত্তর পাশের দুটি ভবনের মধ্যে সংযুক্ত বৈদ্যুতিক তার কেটে অভিনব কায়দায় পার্শ্ববর্তী হাফিজুরের বাড়িতে অবৈধপন্থায় বিদ্যুৎ সংযোগ নেওয়া হয়েছে। তবে গত ছয় মাস ধরে হাফিজুর বিদ্যালয় থেকে বিদ্যুতের লাইন নিয়ে চালিয়ে আসলেও স্কুল কর্তৃপক্ষ কিছুই জানেন না বলে দাবি করেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন।

বিদ্যালয়ের আশপাশের বাসিন্দারা জানান, বিদ্যালয় থেকে যেই বাড়িতে বিদ্যুতের অবৈধ লাইন নেওয়া হয়েছে, সেই বাড়িটি ওই বিদ্যালয়ের সদস্য হাফিজুর রহমানের। তারা বলেন, এ ব্যাপারে স্কুল কর্তৃপক্ষ খুবই উদাসীন। তারা হফিজুরকে কিছুই বলে না, কোনো ব্যবস্থাও নেয় না।

বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, আমাদের বিদ্যালয় থেকে এতদিন ধরে এভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ নেওয়া হয়েছে, এটা আমার জানা ছিল না। বিষয়টি জানার পর স্কুলের পেছনে গিয়ে দেখি- একটা তার টানানো। এখন থেকে ওই অবৈধ লাইনটি খুলে ফেলা হবে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ও বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদ কমিটির আরেক সদস্য মো. ইমারত হোসেন দুলাল বলেন, কাউকে না জানিয়ে হাফিজুর ৬ মাস ধরে স্কুলের বিদ্যুৎ অবৈধভাবে ব্যবহার করে আসছেন। বিষয়টি আমি জানতে পেরেছি।

অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ নেওয়ার কথা স্বীকার করে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ কমিটির সদস্য হাফিজুর রহমান বলেন, দুই মাস আগে আমার ভাতিজারা ব্যাডমিন্টন খেলার উদ্দেশ্যে স্কুল থেকে লাইন নিয়েছিল। তা এখন আর আমি চালাই না।

বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ কমিটির সভাপতি আরিফুর রহমান পথিক তালুকদার বলেন, বিদ্যুৎ লাইন নেওয়ার ব্যাপারে আমি কিছু জানি না। আমি বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখছি।

চরযশোরদি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান সাহেব ফকির বলেন, বিদ্যালয় সরকারি সম্পদ। এখান থেকে অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ নেওয়া চরম অন্যায় কাজ।

স্কুল থেকে বিদ্যুৎ লাইন নিয়ে বাড়িতে সংযোগ!

 ফরিদপুর ব্যুরো 
০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:২৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার চরযশোরদী ইউনিয়নের চাঁদহাট বাজার উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বিদ্যুতের লাইন নিয়ে নিজ বাড়িতে ব্যবহার করার অভিযোগ উঠেছে হাফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে। অভিযুক্ত হাফিজুর ওই বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদ কমিটির সদস্য। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা গেছে, চাঁদহাট বাজার উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বিদ্যুৎ সংযোগের লাইন নিয়ে অবৈধভাবে গত ছয় মাস ধরে নিজের বাড়িতে চালিয়ে আসছেন হাফিজুর। তার বাড়িটি বিদ্যালয়ের পাশে হওয়ার সুবাদে তিনি এ সুবিধা ভোগ করছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

স্থানীয়রা জানান, বিদ্যালয়ের উত্তর পাশের দুটি ভবনের মধ্যে সংযুক্ত বৈদ্যুতিক তার কেটে অভিনব কায়দায় পার্শ্ববর্তী হাফিজুরের বাড়িতে অবৈধপন্থায় বিদ্যুৎ সংযোগ নেওয়া হয়েছে। তবে গত ছয় মাস ধরে হাফিজুর বিদ্যালয় থেকে বিদ্যুতের লাইন নিয়ে চালিয়ে আসলেও স্কুল কর্তৃপক্ষ কিছুই জানেন না বলে দাবি করেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন।

বিদ্যালয়ের আশপাশের বাসিন্দারা জানান, বিদ্যালয় থেকে যেই বাড়িতে বিদ্যুতের অবৈধ লাইন নেওয়া হয়েছে, সেই বাড়িটি ওই বিদ্যালয়ের সদস্য হাফিজুর রহমানের। তারা বলেন, এ ব্যাপারে স্কুল কর্তৃপক্ষ খুবই উদাসীন। তারা হফিজুরকে কিছুই বলে না, কোনো ব্যবস্থাও নেয় না।

বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, আমাদের বিদ্যালয় থেকে এতদিন ধরে এভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ নেওয়া হয়েছে, এটা আমার জানা ছিল না। বিষয়টি জানার পর স্কুলের পেছনে গিয়ে দেখি- একটা তার টানানো। এখন থেকে ওই অবৈধ লাইনটি খুলে ফেলা হবে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ও বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদ কমিটির আরেক সদস্য মো. ইমারত হোসেন দুলাল বলেন, কাউকে না জানিয়ে হাফিজুর ৬ মাস ধরে স্কুলের বিদ্যুৎ অবৈধভাবে ব্যবহার করে আসছেন। বিষয়টি আমি জানতে পেরেছি।

অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ নেওয়ার কথা স্বীকার করে বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ কমিটির সদস্য হাফিজুর রহমান বলেন, দুই মাস আগে আমার ভাতিজারা ব্যাডমিন্টন খেলার উদ্দেশ্যে স্কুল থেকে লাইন নিয়েছিল। তা এখন আর আমি চালাই না।

বিদ্যালয় পরিচালনা পর্ষদ কমিটির সভাপতি আরিফুর রহমান পথিক তালুকদার বলেন, বিদ্যুৎ লাইন নেওয়ার ব্যাপারে আমি কিছু জানি না। আমি বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখছি।

চরযশোরদি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান সাহেব ফকির বলেন, বিদ্যালয় সরকারি সম্পদ। এখান থেকে অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ নেওয়া চরম অন্যায় কাজ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন