কাঁদলেন শাকিল পত্নী, কাঁদালেন সবাইকে!
jugantor
কাঁদলেন শাকিল পত্নী, কাঁদালেন সবাইকে!

  গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২২:৩৫:৪৭  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী কবি মাহবুবুল হক শাকিলের ষষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ময়মনসিংহের গৌরীপুরে উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) স্মরণসভা, দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন শাকিলের সহধর্মিণী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট নীলুফার আনজুম পপি। তিনি বক্তব্য দিতে গিয়ে আবেগে কাঁদলেন; কাঁদালেন উপস্থিত সবাইকে। তিনি বলেন, বিয়ের প্রথম রাতে শাকিল আমাকে বলেছিল- বাড়িতে ছাত্রলীগ নেতাকর্মী এলে, যা থাকে তাই দিয়ে আপ্যায়ন করে দিও।

স্মরণসভা সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক সোমনাথ সাহা। বক্তব্য রাখেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. হেলাল উদ্দিন আহাম্মেদ, আওয়ামী লীগ নেতা মো. রুহুল আমিন, আবুল কালাম আজাদ, আব্দুল আউয়াল প্রমুখ। মোনাজাত পরিচালনা করেন উপজেলা যুবলীগের নেতা সুলতান মাহমুদ।

স্মরণসভায় ১৬ বছরের দাম্পত্য জীবনের বর্ণনা তুলে ধরেন শাকিলের সহধর্মিণী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট নীলুফার আনজুম পপি। জীবনের প্রথম রাতে শাকিল বলেছিল- শোন, যখন রান্না করবে, তখন একটু বেশি করে রান্না করো। মাছ-মাংস যদি নাও থাকে, ছাত্রলীগের কোন নেতাকর্মী এলে অন্তত ডিম আর ডাল দিয়ে হলেও আপ্যায়ন করে দিও। আমি সেই কথা আজও পালন করে আসছি।

তিনি আরও বলেন, যখন গ্রেনেড হামলা হলো তখন দোলা ভাবি আমাকে ফোন করে বলল, শোনছো গ্রেনেড হামলা হয়েছে, আমি জিজ্ঞাসা করলাম আপার (শেখ হাসিনা) কী অবস্থা, উত্তরে জানালো, আপা ভালো আছেন, শাকিল ভাই নাই- মানে! নাই! তারপর আবারো নামাজে বসে পড়লাম, একটু পরে দরজায় কড়া নাড়ল, দেখি শাকিল এসেছে! তার মানিব্যাগ, মোবাইল সব আপার গাড়িতে!

তিনি আরও বলেন, আমাদের ১৬ বছরের মধ্যে সংসার সেভাবে করা হয়নি। জোট সরকারের নির্যাতন-হামলা, ওয়ান-ইলেভেন সরকারের নানা ঘটনায় সে তো শুধু কাজ নিয়েই থাকত, এখনো মনে হয় সে কাজে আছে!

শাকিলের স্মৃতিময় বর্ণনা করতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন শাকিল পত্নী অ্যাডভোকেট নীলুফার আনজুম পপি। স্মরণসভায় উপস্থিত নেতাকর্মীও চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি।

কাঁদলেন শাকিল পত্নী, কাঁদালেন সবাইকে!

 গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:৩৫ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ সহকারী কবি মাহবুবুল হক শাকিলের ষষ্ঠ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ময়মনসিংহের গৌরীপুরে উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে মঙ্গলবার (৬ ডিসেম্বর) স্মরণসভা, দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন শাকিলের সহধর্মিণী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট নীলুফার আনজুম পপি। তিনি বক্তব্য দিতে গিয়ে আবেগে কাঁদলেন; কাঁদালেন উপস্থিত সবাইকে। তিনি বলেন, বিয়ের প্রথম রাতে শাকিল আমাকে বলেছিল- বাড়িতে ছাত্রলীগ নেতাকর্মী এলে, যা থাকে তাই দিয়ে আপ্যায়ন করে দিও।

স্মরণসভা সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক সোমনাথ সাহা। বক্তব্য রাখেন- উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা ডা. হেলাল উদ্দিন আহাম্মেদ, আওয়ামী লীগ নেতা মো. রুহুল আমিন, আবুল কালাম আজাদ, আব্দুল আউয়াল প্রমুখ। মোনাজাত পরিচালনা করেন উপজেলা যুবলীগের নেতা সুলতান মাহমুদ।

স্মরণসভায় ১৬ বছরের দাম্পত্য জীবনের বর্ণনা তুলে ধরেন শাকিলের সহধর্মিণী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট নীলুফার আনজুম পপি। জীবনের প্রথম রাতে শাকিল বলেছিল- শোন, যখন রান্না করবে, তখন একটু বেশি করে রান্না করো। মাছ-মাংস যদি নাও থাকে, ছাত্রলীগের কোন নেতাকর্মী এলে অন্তত ডিম আর ডাল দিয়ে হলেও আপ্যায়ন করে দিও। আমি সেই কথা আজও পালন করে আসছি।

তিনি আরও বলেন, যখন গ্রেনেড হামলা হলো তখন দোলা ভাবি আমাকে ফোন করে বলল, শোনছো গ্রেনেড হামলা হয়েছে, আমি জিজ্ঞাসা করলাম আপার (শেখ হাসিনা) কী অবস্থা, উত্তরে জানালো, আপা ভালো আছেন, শাকিল ভাই নাই- মানে! নাই! তারপর আবারো নামাজে বসে পড়লাম, একটু পরে দরজায় কড়া নাড়ল, দেখি শাকিল এসেছে! তার মানিব্যাগ, মোবাইল সব আপার গাড়িতে!

তিনি আরও বলেন, আমাদের ১৬ বছরের মধ্যে সংসার সেভাবে করা হয়নি। জোট সরকারের নির্যাতন-হামলা, ওয়ান-ইলেভেন সরকারের নানা ঘটনায় সে তো শুধু কাজ নিয়েই থাকত, এখনো মনে হয় সে কাজে আছে!

শাকিলের স্মৃতিময় বর্ণনা করতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন শাকিল পত্নী অ্যাডভোকেট নীলুফার আনজুম পপি। স্মরণসভায় উপস্থিত নেতাকর্মীও চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন