প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীদের নিপীড়নের অভিযোগ
jugantor
প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীদের নিপীড়নের অভিযোগ

  নওগাঁ প্রতিনিধি  

০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২২:৫১:১৭  |  অনলাইন সংস্করণ

নওগাঁর পত্নীতলায় হাসেম বেগপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষক মো. সেকেন্দার আলীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন ওই বিদ্যালয়ের ১১ জন অভিভাবক।

মঙ্গলবার দুপুরে তারা এ অভিযোগ করেন। অভিযোগের অনুলিপি উপজেলা চেয়ারম্যান, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে প্রেরণ করা হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার পত্নীতলা ইউনিয়নের হাসেম বেগপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. সেকেন্দার আলী দীর্ঘ দিন ধরে ছাত্রীদের একা তার কক্ষে ডেকে এনে স্পর্শকাতর স্থানে হাত নিয়ে যৌন হয়রানি করে আসছেন। এ বিষয়ে মুখ খুললেই মেয়েদের শারীরিক নির্যাতন করাসহ ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন। দুই সপ্তাহ আগে ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণির দুই ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করায় তারা পরিবারের লোকজন সম্মানের ভয়ে তাদের স্কুলে পাঠাচ্ছেন না। এতে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে ওই দুই শিক্ষার্থীর ভবিষ্যৎ। এ রকম অভিযোগ রয়েছে অনেক ছাত্রীর।

হাসেম বেগপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি মো. রুবেল হোসেন বলেন, ছাত্রীদের যৌন হয়রানির বিষয়টি শুনেছি। অভিযোগ সত্য হলে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে হাসেম বেগপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সেকেন্দার আলী বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে পত্নীতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. রুমানা আফরোজ বলেন, অভিভাবকের কাছ থেকে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেলে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মোখলেসুর রহমান বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীদের নিপীড়নের অভিযোগ

 নওগাঁ প্রতিনিধি 
০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:৫১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

নওগাঁর পত্নীতলায় হাসেম বেগপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রীদের যৌন হয়রানির অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষক মো. সেকেন্দার আলীর বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন ওই বিদ্যালয়ের ১১ জন অভিভাবক।

মঙ্গলবার দুপুরে তারা এ অভিযোগ করেন। অভিযোগের অনুলিপি উপজেলা চেয়ারম্যান, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে প্রেরণ করা হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার পত্নীতলা ইউনিয়নের হাসেম বেগপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. সেকেন্দার আলী দীর্ঘ দিন ধরে ছাত্রীদের একা তার কক্ষে ডেকে এনে স্পর্শকাতর স্থানে হাত নিয়ে যৌন হয়রানি করে আসছেন। এ বিষয়ে মুখ খুললেই মেয়েদের শারীরিক নির্যাতন করাসহ ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন। দুই সপ্তাহ আগে ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণির দুই ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করায় তারা পরিবারের লোকজন সম্মানের ভয়ে তাদের স্কুলে পাঠাচ্ছেন না। এতে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে ওই দুই শিক্ষার্থীর ভবিষ্যৎ। এ রকম অভিযোগ রয়েছে অনেক ছাত্রীর।

হাসেম বেগপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি মো. রুবেল হোসেন বলেন, ছাত্রীদের যৌন হয়রানির বিষয়টি শুনেছি। অভিযোগ সত্য হলে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ ব্যাপারে হাসেম বেগপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সেকেন্দার আলী বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে পত্নীতলা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছা. রুমানা আফরোজ বলেন, অভিভাবকের কাছ থেকে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেলে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. মোখলেসুর রহমান বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন