ছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষণ, যুবক কারাগারে
jugantor
ছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষণ, যুবক কারাগারে

  যশোর ব্যুরো  

০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ২০:২১:৩৪  |  অনলাইন সংস্করণ

যশোরে দশম শ্রেণির ছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে আটকে রেখে জোর করে ধর্ষণের অভিযোগে শাহরিয়ার সুজন (২৫) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার রাতে ওই শিক্ষার্থীর বাবা যশোর কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেন। রাতেই অভিযুক্ত যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত যুবক শাহরিয়ার সুজন যশোর শহরের খালধার রোড এলাকার বাসিন্দা আব্দুল মতলেবের ছেলে।

মামলার বাদী ভিকটিমের বাবা জানান, তার মেয়ের সঙ্গে সুজনের মোবাইল ফোনে পরিচয় ঘটে। পরবর্তীতে সেটি প্রেম-ভালোবাসায় রূপ নেয়। প্রায় সময়ই তারা একে অন্যের সঙ্গে মোবাইলে কথা বলত।

তিনি বলেন, গত ৬ ডিসেম্বর সকাল ১০টার দিকে সুজন তার মেয়েকে বিয়ে করবে বলে নিউমার্কেট শিশু হাসপাতালের সামনে মোবাইলে ডেকে নিয়ে আসে। বিয়ে করবে বলে সারা দিন মোটরসাইকেলে ঘুরিয়ে বিয়ে না করে রাত ৮টার দিকে তার বাসায় নিয়ে যায়। সারারাত সেখানে আমার মেয়েকে ধর্ষণ করে। এ সময় মেয়ে বাধা দিলে সুজন তাকে মারপিট করে। পর দিন ৭ ডিসেম্বর সকালে বিয়ে না করে আমার মেয়েকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়।

এ বিষয়ে যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) একেএম শফিকুল আলম চৌধুরী বলেন, বুধবার রাতে মামলা হলে তাকে গ্রেফতার করি। মেয়ের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। আদালত ২২ ধারায় ওই শিক্ষার্থীর জবানবন্দি নিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, আসামিকে দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়। আদালত তাকে জেলহাজতে প্রেরণ করেছেন।

ছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে ধর্ষণ, যুবক কারাগারে

 যশোর ব্যুরো 
০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:২১ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

যশোরে দশম শ্রেণির ছাত্রীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে আটকে রেখে জোর করে ধর্ষণের অভিযোগে শাহরিয়ার সুজন (২৫) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার রাতে ওই শিক্ষার্থীর বাবা যশোর কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা করেন। রাতেই অভিযুক্ত যুবককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত যুবক শাহরিয়ার সুজন যশোর শহরের খালধার রোড এলাকার বাসিন্দা আব্দুল মতলেবের ছেলে।

মামলার বাদী ভিকটিমের বাবা জানান, তার মেয়ের সঙ্গে সুজনের মোবাইল ফোনে পরিচয় ঘটে। পরবর্তীতে সেটি প্রেম-ভালোবাসায় রূপ নেয়। প্রায় সময়ই তারা একে অন্যের সঙ্গে মোবাইলে কথা বলত।

তিনি বলেন, গত ৬ ডিসেম্বর সকাল ১০টার দিকে সুজন তার মেয়েকে বিয়ে করবে বলে নিউমার্কেট শিশু হাসপাতালের সামনে মোবাইলে ডেকে নিয়ে আসে। বিয়ে করবে বলে সারা দিন মোটরসাইকেলে ঘুরিয়ে বিয়ে না করে রাত ৮টার দিকে তার বাসায় নিয়ে যায়। সারারাত সেখানে আমার মেয়েকে ধর্ষণ করে। এ সময় মেয়ে বাধা দিলে সুজন তাকে মারপিট করে। পর দিন ৭ ডিসেম্বর সকালে বিয়ে না করে আমার মেয়েকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়।

এ বিষয়ে যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) একেএম শফিকুল আলম চৌধুরী বলেন, বুধবার রাতে মামলা হলে তাকে গ্রেফতার করি। মেয়ের ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। আদালত ২২ ধারায় ওই শিক্ষার্থীর জবানবন্দি নিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, আসামিকে দুপুরে আদালতে প্রেরণ করা হয়। আদালত তাকে জেলহাজতে প্রেরণ করেছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন