মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানকে সভার মধ্যে হেনস্তার অভিযোগ ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে
jugantor
মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানকে সভার মধ্যে হেনস্তার অভিযোগ ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে

  রামু (কক্সবাজার) প্রতিনিধি  

২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ২৩:১৮:২৮  |  অনলাইন সংস্করণ

কক্সবাজারের রামু উপজেলার ফঁতেখারকুল ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভুট্টোর বিরুদ্ধে উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফসানা জেসমিন পপিকে হেনস্তার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় উপজেলা পরিষদের মিলনায়তনে মাসিক সমন্বয় সভায় এ ঘটনা ঘটে।

উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আফসানা জেসমিন পপি জানান, তিনি ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নে ভিজিডির তালিকায় তিনজন হতদরিদ্রের নাম জমা দেন। পরবর্তী সময়ে তার দেওয়া ওই উপকারভোগীর নামগুলো তালিকা থেকে কেটে দেন ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভুট্টো। ওই বিষয়ে সমন্বয় সভায় অভিযোগ উত্থাপন করলে ইউপি চেয়ারম্যান ক্ষিপ্ত হয়ে বক্তব্য চলাকালে তাকে তুই-তোকারি করে অশোভন ও অমার্জিত আচরণের একপর্যায়ে মাইক্রোফোন ছুড়ে মারতে উদ্যত হন। এ সময় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোহেল সরওয়ার কাজল, ইউএনও ফাহমিদা মুস্তফাসহ ইউপি চেয়ারম্যানরা কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়েন। পরে উপস্থিত সবার অনুরোধে স্বাভাবিক হয় পরিস্থিতি।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পপি কান্নাজড়িত কণ্ঠে সাংবাদিকদের বলেন, দীর্ঘদিন থেকে ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভুট্টো মানসিকভাবে তাকে হেনস্তা করে আসছিলেন। এমনকি গত কয়েক দিন আগেও উপজেলা প্রশাসনের এক কর্মকর্তা ও এক জনপ্রতিনিধির সামনেও খারাপ প্রস্তাবের ইঙ্গিত দিয়েছেন চেয়ারম্যান ভুট্টো।

এদিকে সমন্বয় সভায় তর্কাতর্কির একপর্যায়ে ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভুট্টো উপজেলা পরিষদ চত্বরে তার ইটভাটার শতাধিক শ্রমিককে লাটিসোটাসহ নিয়ে আসতে বলেন বলে জানান সভায় উপস্থিত একাধিক ব্যক্তি। এতে পরিস্থিতি আরও ঘোলাটে হয়। পরে রামু থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে ফঁতেখারকুল ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভুট্টোর সঙ্গে মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন করে ও খুদেবার্তা পাঠিয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করেও সাড়া মেলেনি।

মাসিক সমন্বয় সভায় এমন অপ্রীতিকর ঘটনা কাম্য নয় বলে মন্তব্য করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহমিদা মুস্তফা। এরকম একটি অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতির সম্মুখীন হওয়ার জন্য তিনি প্রস্তুত ছিলেন না বলে জানান।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানকে সভার মধ্যে হেনস্তার অভিযোগ ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে

 রামু (কক্সবাজার) প্রতিনিধি 
২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ১১:১৮ পিএম  |  অনলাইন সংস্করণ

কক্সবাজারের রামু উপজেলার ফঁতেখারকুল ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভুট্টোর বিরুদ্ধে উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আফসানা জেসমিন পপিকে হেনস্তার অভিযোগ উঠেছে। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় উপজেলা পরিষদের মিলনায়তনে মাসিক সমন্বয় সভায় এ ঘটনা ঘটে।

উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আফসানা জেসমিন পপি জানান, তিনি ফতেখাঁরকুল ইউনিয়নে ভিজিডির তালিকায় তিনজন হতদরিদ্রের নাম জমা দেন। পরবর্তী সময়ে তার দেওয়া ওই উপকারভোগীর নামগুলো তালিকা থেকে কেটে দেন ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভুট্টো। ওই বিষয়ে সমন্বয় সভায় অভিযোগ উত্থাপন করলে ইউপি চেয়ারম্যান ক্ষিপ্ত হয়ে বক্তব্য চলাকালে তাকে তুই-তোকারি করে অশোভন ও অমার্জিত আচরণের একপর্যায়ে মাইক্রোফোন ছুড়ে মারতে উদ্যত হন। এ সময় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোহেল সরওয়ার কাজল, ইউএনও ফাহমিদা মুস্তফাসহ ইউপি চেয়ারম্যানরা কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়েন। পরে উপস্থিত সবার অনুরোধে স্বাভাবিক হয় পরিস্থিতি।

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পপি কান্নাজড়িত কণ্ঠে সাংবাদিকদের বলেন, দীর্ঘদিন থেকে ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভুট্টো মানসিকভাবে তাকে হেনস্তা করে আসছিলেন। এমনকি গত কয়েক দিন আগেও উপজেলা প্রশাসনের এক কর্মকর্তা ও এক জনপ্রতিনিধির সামনেও খারাপ প্রস্তাবের ইঙ্গিত দিয়েছেন চেয়ারম্যান ভুট্টো।

এদিকে সমন্বয় সভায় তর্কাতর্কির একপর্যায়ে ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভুট্টো উপজেলা পরিষদ চত্বরে তার ইটভাটার শতাধিক শ্রমিককে লাটিসোটাসহ নিয়ে আসতে বলেন বলে জানান সভায় উপস্থিত একাধিক ব্যক্তি। এতে পরিস্থিতি আরও ঘোলাটে হয়। পরে রামু থানা পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে।

অভিযোগের বিষয়ে জানতে ফঁতেখারকুল ইউপি চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম ভুট্টোর সঙ্গে মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন করে ও খুদেবার্তা পাঠিয়ে যোগাযোগের চেষ্টা করেও সাড়া মেলেনি।

মাসিক সমন্বয় সভায় এমন অপ্রীতিকর ঘটনা কাম্য নয় বলে মন্তব্য করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহমিদা মুস্তফা। এরকম একটি অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতির সম্মুখীন হওয়ার জন্য তিনি প্রস্তুত ছিলেন না বলে জানান।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন