খুলনায় কোটাবিরোধী সমাবেশে পুলিশ-যুবলীগের হামলা, আহত ১০

প্রকাশ : ০৪ জুলাই ২০১৮, ১৮:১২ | অনলাইন সংস্করণ

  খুলনা ব্যুরো

খুলনায় কোটাবিরোধী সমাবেশে পুলিশের বাধা। ছবি: যুগান্তর

খুলনায় কোটাবিরোধী সমাবেশে পুলিশ ও যুবলীগ যৌথভাবে হামলা ও লাঠিচার্জ করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশের লাঠিচার্জে প্রগতিশীল ছাত্র জোটের কোটাবিরোধী সমাবেশ পণ্ড হয়ে যায়। লাঠিচার্জের পর ছাত্রনেতারা বিভিন্ন দিক ছুটাছুটি করে ছত্রভঙ্গ হয়ে যান। 

বুধবার দুপুর ১টার দিকে নগরীর শহীদ হাদিস পার্কের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ সময় প্রগতিশীল ছাত্র জোটের ১০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। 

সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের খুলনা জেলা সভাপতি সুজিত মণ্ডল জানান, দেশব্যাপী কোটা সংস্কারের দাবিতে ছাত্রদের ওপর পুলিশ ও ছাত্রলীগের হামলা এবং মারপিটের ঘটনার প্রতিবাদে শহীদ হাদিস পার্কের গেটে প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। 

এ সময় পুলিশ তাদের সমাবেশে বাধা দেয়। পরে তারা ব্যানার কেড়ে নিয়ে ধাক্কাধাক্কি ও নেতাকর্মীদের ওপর লাঠিচার্জ করে ধাওয়া দেয়। পুলিশের ধাওয়ায় তারা আওয়ামী লীগ অফিসের সামনে গেলে পুলিশের সঙ্গে যুবলীগের কর্মীরা যোগ দিয়ে তাদের ওপর হামলা করে। 

এ সময় লাঠিচার্জে প্রগতিশীল ছাত্র জোটের কেন্দ্রীয় নেতা রুহুল আমিন, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের খুলনা জেলা সভাপতি সুজিত মণ্ডলসহ ১০ জন আহত হন। একপর্যায়ে ছাত্রজোটের নেতাকর্মীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে যান। 

এদিকে যুবলীগের নেতাকর্মীদের হামলা বিষয়ে মহানগর যুবলীগের আহ্বায়ক আনিসুর রহমান পপলু যুগান্তরকে জানান, আমি ঘটনার সময় আদালতে ছিলাম। এ ধরনের কোনো বিষয় আমার জানা নেই। 

খুলনা থানার ওসি হুমায়ুন কবীর যুগান্তরকে বলেন, সমাবেশের কারণে সড়কে যানবাহন ও লোক চলাচল বিঘিœত হচ্ছিল। সে কারণে তাদের সরিয়ে দেয়া হয়েছে। তবে কোনো লাঠিচার্জ বা কাউকে আটক করা হয়নি।