ঘুষের টাকা নেন বিকাশেও!

  আলামিন প্রধান, ফতুল্লা থেকে ১৪ জুলাই ২০১৮, ১৪:১৫ | অনলাইন সংস্করণ

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার সহকারী পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সদানন্দ রায়

নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার সহকারী পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সদানন্দ রায়ের বিরুদ্ধে ব্যাপক ঘুষ-দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। ঘুষের এ টাকা তিনি শুধু নগদেই নয়, বিকাশেও নেন বলে জানান ভুক্তভোগীরা।

দাবিকৃত ঘুষ না দিলেই অধস্তন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বদলির হুমকি দেন সদানন্দ রায়। এতে অতিষ্ঠ হয়ে সম্প্রতি চার কর্মকর্তা স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ বিভাগ এবং স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, সহকারী পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সদানন্দ রায় ২০১০ সালে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলায় যোগদান করেন। এর পর থেকে মাঠপর্যায়ের কাজ পরিদর্শন করতে গেলে তাকে নগদ অথবা বিকাশে ঘুষের টাকা দিতে হয়।

টাকা না দিলে ঢাকা বিভাগের বাইরে অন্য জেলায় বদলি করে দেয়ার হুমকি দিয়ে আসেন তিনি। এর মধ্যে পরিবার কল্যাণ পরিদর্শিকা সঞ্জু রানী দে ও রাশিদা খানমের কাছ থেকে ভিজিটের ভয় দেখিয়ে একটি সাফারি স্যুট ও ৫ হাজার টাকা নেন সদানন্দ রায়। এ ছাড়া বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে মাসিক হারে টাকা আদায় করেন। তা ছাড়া বিএভিএস ক্লিনিক থেকে নবায়নের কথা বলে ২০ হাজার টাকা নেন। শুধু তাই নয়, ভয় দেখিয়ে বিভিন্ন এনজিওর কাছ থেকেও তিনি ঘুষ আদায় করেন বলে অভিযোগ রয়েছে। অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়, চাকরি দেয়ার কথা বলে তিনজনের কাছ থেকে ছয় লাখ টাকা নিয়েছেন সদানন্দ রায়। গত উন্নয়ন মেলায় ব্যয় দেখিয়ে উপজেলার ১৯০ কর্মকর্তা-কর্মচারীর কাছ থেকে ৪০০-৫০০ টাকা করে চাঁদা আদায় করেছেন।

এসব অভিযোগ উল্লেখ করে উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা সহকারী শফিউদ্দিন, পরিদর্শিকা মালেহা, পরিদর্শক ওয়াহিদুজ্জামান, সহকারী রেশমা আক্তার বিভিন্ন দফতরে অভিযোগ করেছেন।

এ ছাড়া কর্মকর্তা-কর্মচারীরা জানান, কয়েক দিন ধরে সিলেকশন গ্রেডের নামে তাদের কাছ থেকে ৪০-৫০ হাজার টাকা করে তুলছেন সদানন্দ রায়।

এ ব্যাপারে সদানন্দ রায়কে প্রশ্ন করা হলে তিনি যুগান্তরকে বলেন, আমার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ করা হয়েছে, তা মোটেও সত্য নয়। আমার ওপরে এখানে আরও তিনজন অফিসার আছেন। যদি কোনো দুর্নীতি করে থাকি, তা হলে আমার ঊর্ধ্বতন অফিসাররা অবশ্যই জানতেন এবং ব্যবস্থা নিতেন।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter