শরীয়তপুরে ব্রিজ ভরাট করে বালুর ব্যবসা কৃষি কর্মকর্তার

  শরীয়তপুর প্রতিনিধি ১৫ জুলাই ২০১৮, ১৬:০৬ | অনলাইন সংস্করণ

বালুর ব্যবসা
ছবি: যুগান্তর

শরীয়তপুরের ভেদরগঞ্জে ব্রিজ ভরাট করে রমরমা বালুর ব্যবসা করছেন উপজেলা উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান।

উপজেলার সখিপুর ইউনিয়নের একটি ব্রিজের নিচের অংশ ভরাট করে ফেলায় আশেপাশের কয়েকশ একর কৃষি জমির পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা হুমকির মুখে পড়েছে বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।

ওই কৃষি কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান দক্ষিন সখিপুর এলাকার বাসিন্দা এমদাদুল সরকারের ছেলে।

সরেজমিনে গেলে স্থানীয়রা জানান, প্রায় ১০ বছর আগে ভেদরগঞ্জ উপজেলায় উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন জাহিদুর রহমান। এলাকায় চাকরি করার সুযোগ পেয়ে এক বছর না যেতেই বাড়ির পাশের বাজারে শুরু করেন বিভিন্ন প্রকার ওষধ ও কীটনাশকের ব্যবসা।

এর কিছুদিন পরই শুরু করেন রড, সিমেন্ট ও বালুর ব্যবসা। আর ওই বালু রাখার জন্য কৌশলে প্রথমে তিনি ব্রিজটির পূর্বপাশে একটি আমবাগান ও পশ্চিম পাশে একটি ফসলের গোডাউন নির্মাণ করেন।

এর ফলে ব্রিজটির নিচ দিয়ে পানি প্রবাহ বন্ধ হয়ে যায়। পরে সুযোগমত ব্রিজটি দখল করে বালুর ব্যবসা শুরু করেন এ কৃষি কর্মকর্তা।

তবে পানি নিষ্কাশনের জন্য ব্যবহৃত ব্রিজের মুখ বন্ধ করে বালু ফেলায় সেখানে হুমকির মুখে পড়ে ধান, পাট ও গম উৎপাদনকারী আশেপাশের ফসলি জমিগুলো।

আর বর্ষার সময় পানি আটকে নষ্ট হয় ধান, পাটসহ নানা ধরনের ফসল। তবে জাহিদুর রহমান একজন কৃষি কর্মকর্তা হওয়া সত্তেও এসব বিষয়ে তার নেই কোনো ভ্রুক্ষেপ।

স্থানীয় কৃষক ওয়াসিম বেপারীসহ আরও অনেকে যুগান্তরকে বলেন, একপাশে বাগান আরেক পাশে গুদামঘর বানিয়ে আগেই ব্রিজটির নিচ দিয়ে পানি চলাচল বন্ধ করে দিয়েছেন তিনি।

আর এখন সেখানে শুরু করেছেন বালুর ব্যবসা। আমরা অনেক বলার পরও জাহিদুর রহমান কোনো কর্ণপাত করেন নি। যার ফলে সামান্য বৃষ্টিতেই আশেপাশের জমি পানির নিচে তলিয়ে ফসল নষ্ট হয়ে যায়।

এমন অভিযোগ রয়েছে আরও অনেক কৃষকদের। কিন্তু ক্ষমতার জোরে তিনি কারও কথায় পাত্তা দেন না বলে জানান স্থানীয়রা।

বিষয়টি স্বীকার করে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা জাহিদুর রহমান বলেন, আমি কিছুদিনের মধ্যে বালু সরিয়ে নেব।

ভেদরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন বলেন, এ বিষয়ে আমার কোনো বক্তব্য নেই। বিষয়টি জেনে তারপর জানাব।

ভেদরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাব্বির আহমেদ বলেন, যে কোনো পরিচয়ে কেউ যদি কোনো প্রকার অপকর্ম করে থাকে তবে তার বিরুদ্ধে অবশ্যই আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter