মানিকগঞ্জে সেতুর পিলারে বাঁশের সাঁকো!

প্রকাশ : ১৫ জুলাই ২০১৮, ১৮:৪০ | অনলাইন সংস্করণ

  মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আরসিসি পিলারের ওপরে বাঁশের সাঁকো পাড় হয় শিক্ষার্থীসহ কয়েক হাজার মানুষ। ছবি: মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি

মানিকগঞ্জের হরিরামপুর উপজেলার বয়রা ও চালা ইউনিয়নের মাঝামাঝি যাত্রাপুর এলাকায় ইছামতি নদীর ওপর আরসিসি পিলারের ওপরে বাঁশের সাঁকো! জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শত শত শিক্ষার্থীসহ প্রতিদিন স্কুল-কলেজে যাতায়াত করে। এ ছাড়া প্রতিদিন কয়েক হাজার লোক এই ঝুঁকিপূর্ণ সেতু পাড় হয়ে হাট-বাজারসহ দৈনন্দিন কাজে যাতায়াত করছে।

এই ইছামতি নদীর ওপর পাকাসেতুর দাবি ছিল ৪ ইউনিয়নবাসীর। দীর্ঘদিনেও এ দাবি বাস্তবায়ন না হওয়ায় বাধ্য হয়ে ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাঁকোতে পার হচ্ছে এলাকাবাসী।

জানা গেছে, সেতুটি নির্মিত হলে হরিরামপুর উপজেলার বয়ড়া, চালা, বলড়া, ভাড়ারিয়া এই চার ইউনিয়নবাসীর জেলার সঙ্গে তৈরি হবে সহজ ও উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা।

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আরসিসি পিলারের ওপরে বাঁশের সাঁকো পাড় হয় শিক্ষার্থীসহ কয়েক হাজার মানুষ। ছবি: মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি

যারা বাঁশের সাঁকো কিংবা বর্ষা মৌসুমে নৌকা দিয়ে ইছামতি নদী পার হন। খেয়া নৌকায় ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হতে গিয়ে নৌকাডুবির ঘটনাও ঘটে মাঝেমধ্যে।

আবার বাঁশের সাঁকো পার হতে গিয়েও দুর্ঘটনার শিকার হতে হয়েছেন অনেকে। বড় ধরনের কোনো দুর্ঘটনা না হলেও গত পাঁচ বছরে ছোট-বড় মিলিয়ে দুই শতাধিক দুর্ঘটনা ঘটেছে।

সেতুটি হলে যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতির পাশাপাশি হরিরামপুর উপজেলার যাত্রাপুর, খলিলপুর, পশ্চিম খলিলপুর, আগরাইল, লাউতা, সট্টি, খাবাশপুর, দরিকান্দি, কাণ্ঠাপাড়া, বয়রা, দিয়াবাড়িসহ ১৫ গ্রামের হাজার হাজার মানুষের ভাগ্যেরও উন্নয়ন ঘটবে।

জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আরসিসি পিলারের ওপরে বাঁশের সাঁকো পাড় হয় শিক্ষার্থীসহ কয়েক হাজার মানুষ। ছবি: মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি

সংশ্লিষ্ট এলাকার মানুষ হরিরামপুর উপজেলা সদরে সরাসরি আসা-যাওয়া করতে পারবেন। সহজ হয়ে উঠবে শিক্ষা, চিকিৎসা, বাণিজ্যসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে। বিশেষ  করে  ৪৭ বছরের পুরনো যাত্রাপুর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের দুই শতাধিক ছাত্রছাত্রীর চলাচলের সমস্যা দূর হবে।

এ ব্যাপারে হরিরামপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আবুল বাসার সবুজ জানান, ব্রিজটি খুবই জনগুরুত্বপূর্ণ। ত্রাণ ও পুনর্বাসন অধিদফতর থেকে একটি প্রকল্প নেয়া হয়েছিল কিন্তু ব্রিজের দৈর্ঘ্য বেশি হওয়ায় তারা ব্রিজটি করতে অপারগতা প্রকাশ করেছে।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল হুদা চৌধুরী শাতিল জানান, অর্থের অভাবে প্রকল্প নেয়া যাচ্ছে না। বিষয়টি নিয়ে এমপির সঙ্গে যোগাযোগ করলে সঠিক তথ্য পাবেন।