এবার কুমিল্লায় শিক্ষার্থীদের ওপর ট্রাক, স্কুলছাত্রী নিহত

প্রকাশ : ৩১ জুলাই ২০১৮, ২০:০৪ | অনলাইন সংস্করণ

  কুমিল্লা ব্যুরো

ট্রাকচাপায় স্কুলছাত্রী নিহত, প্রতিবাদে শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীর বিক্ষোভ। ছবি: যুগান্তর

রাজধানীর পর এবার কুমিল্লায় স্কুল থেকে বাড়ি ফেরা শিক্ষার্থীদের ওপর উঠিয়ে দেয়া হয়েছে বালুবাহী ট্রাক।

এতে ঘটনাস্থলেই আকলিমা আক্তার নামের দশম শ্রেণির এক ছাত্রী নিহত হয়েছে। ওই দুর্ঘটনায় আহত হয়েছে একই শ্রেণির আরও ২ শিক্ষার্থী।

মঙ্গলবার দুপুরে ২টার দিকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের জেলার চান্দিনা উপজেলার গোমতা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এর আগে রোববার দুপুরে রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনের বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হন।

নিহত আকলিমা আক্তার পার্শ্ববর্তী মুরাদনগর উপজেলার বাবুটি পাড়া গ্রামের জয়নাল আবেদীনের মেয়ে। সে চান্দিনার গোমতা ইসাকিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির মানবিক বিভাগের ছাত্রী ছিল।

হাইওয়ে পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, আকলিমাসহ অন্যান্যরা স্কুলে ক্লাস শেষে মহাসড়কের পাশ দিয়ে বাড়ি ফিরছিল। পথে কুমিল্লাগামী বালুবাহী একটি ট্রাক তাদের ওপর তুলে দেয়। এতে ঘটনাস্থলে আকলিমা আক্তার নিহত হন। এ সময় আহত হয়েছে তামান্না ও মেহেদী হাসান নামের আরও দুই শিক্ষার্থী।

এ ঘটনার পর বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। এ সময় দাউদকান্দির ইলিয়েটগঞ্জ থেকে চান্দিনা পর্যন্ত দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

খবর পেয়ে হাইওয়ে পুলিশ ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ঘাতক ট্রাকচালককে আটক ও বিচারের আশ্বাস দিলে প্রায় এক ঘণ্টা পর শিক্ষার্থীরা সড়ক থেকে অবরোধ তুলে নেন।

ইলিয়েটগঞ্জ হাইওয়ে ফাঁড়ির ইনচার্জ মনিরুল ইসলাম জানান, নিহত ওই স্কুলছাত্রীর শিক্ষক, সহপাঠী ও এলাকাবাসীর দাবি ঘাতক ট্রাকচালককে আইনের আওতায় আনা। পুলিশ তাকে আটক করতে অভিযান চালাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, রোববার দুপুরে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালের সামনের বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হন। নিহত একজনের নাম আবদুল করিম, তিনি শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দ্বাদশ শ্রেণিতে পড়তেন। একই কলেজের আরেক শিক্ষার্থী দিয়া খানম ওরফে মীম। তিনি একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিলেন।

বাসচাপায় আহত হন আরও ১৩ জন। এর মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।
 
পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্য, ঘটনাস্থলের পাশেই শহীদ রমিজউদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজ। ঘটনার সময় ওই কলেজের শিক্ষার্থীরা রেডিসন ব্লু হোটেলের পাশ দিয়ে রাস্তা পার হচ্ছিলেন। অনেকে বাসের জন্য ফুটপাতে দাঁড়িয়ে ছিলেন।

এ সময় জাবালে নূর পরিবহনের একটি বাস এলে শিক্ষার্থীরা তাতে ওঠার চেষ্টা করেন। ওই সময় জাবালে নূর পরিবহনের আরেকটি বাস বাম পাশ দিয়ে ঢুকে শিক্ষার্থীদের চাপা দেন। এতে ঘটনাস্থলে দুই শিক্ষার্থী নিহত হন।

খবর পেয়ে প্রতিষ্ঠানের অন্য শিক্ষার্থীরা এসে সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন এবং বেশ কয়েকটি বাস ভাঙচুর করেন। পরে বিপুলসংখ্যক পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।