বড়লেখায় ৩ দিনেও জ্ঞান ফেরেনি মৃত ঘোষিত কলেজছাত্রীর

  বড়লেখা প্রতিনিধি ০৮ আগস্ট ২০১৮, ২০:০১ | অনলাইন সংস্করণ

উৎসুক জনতার ভিড়
উৎসুক জনতার ভিড়-ছবি: যুগান্তর

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় সাপের কামড়ে নিহত কলেজছাত্রী শিবানী রানী দাসকে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করার পরও ৩ দিন ধরে জীবিত করার জন্য ঝাড়ফুঁক করছেন ওঝারা।

চিকিৎসকের মৃত ঘোষিত শিবানীকে বাঁচিয়ে তোলার আশ্বাসে ওঝাদের একগ্রুপ সটকে পড়ে আরেক গ্রুপ ঝাড়ফুঁক শুরু করে।

এদিকে সাপেকাটা কলেজছাত্রীর বাড়িতে হাজার হাজার উৎসুক জনতার ভিড় অব্যাহত রয়েছে।

শিবানী রানী দাস উপজেলার দাসেরবাজার ইউনিয়নের সুনামপুর গ্রামের মনোরঞ্জন দাসের মেয়ে। তিনি সিলেট এমসি কলেজের মাস্টার্সের ছাত্রী এবং স্থানীয় একটি বেসরকারি স্কুলের শিক্ষিকা ছিলেন।

জানা গেছে, রোববার রাতে নিজ বাড়িতে সাপের কামড়ে আহত হন শিবানী দাস। ওই রাতেই আহতাবস্থায় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

সোমবার সকাল ৮টায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিকালে শিবানীর লাশ বাড়িতে নেয়া হলে বিভিন্ন স্থান থেকে ওঝারা জড়ো হয়ে তাকে জীবিত করার আশ্বাসে রাতেই শুরু করে ঝাড়ফুঁক।

এ খবর ছড়িয়ে পড়লে লোকজন ভিড় করতে থাকে ওই বাড়িতে। ভিড় সামলাতে শেষ পর্যন্ত ঘটনাস্থলে অবস্থান নেয় পুলিশ।

সরেজমিনে বুধবার বিকালে ওই বাড়িতে গিয়ে দেখা গেছে, নিহত কলেজছাত্রীর লাশ আগের মতই বাড়ির উঠানে রয়েছে। সোমবার রাতে ঝাড়ফুঁক শুরু করা ওঝারা ইতিমধ্যে বিদায় নিয়েছে।

নতুন আগত নারী ওঝা নিজেকে বিষরী (সনাতন সম্প্রদায়ের দেবী) পরিচয় দিয়ে মৃত শিবানীর লাশ নদীতে ভাসিয়ে দিতে নির্দেশ দেয়। সৎকার করলে পরিবারের বড় ধরণের ক্ষয়ক্ষতির ভয়ভীতি প্রদর্শন করায় নিরীহ পরিবারটি দোটানায় পড়েছে।

এদিকে বুধবার বিকালে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে পুলিশের একটি দল। অবশেষে ধর্মীয় রীতিতে সৎকারের জন্য শিবানীর পরিবার আবেদন করায় পুলিশ লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে।

নিহত শিবানীর দাদা প্রনথ চন্দ্র দাস বলেন, ডাক্তার মৃত ঘোষণার পর ওঝারা ঝাড়ফুঁকে জীবিত করার আশ্বাস দেন। গত ৩ দিনেও তারা আমার বোনের জ্ঞান ফেরাতে পারেনি।

এক নারী ওঝা নদীতে ভাসিয়ে দিতে বলছেন। সৎকার করলে পরিবারের নানা ক্ষতির ভীতি দেখাচ্ছেন। এ অবস্থায় ভাসিয়ে দিবেন না ধর্মীয় মতে সৎকার করবেন এ নিয়ে দোটানায় আছি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ সোহেল মাহমুদ জানান, চিকিৎসকের মৃত ঘোষিত ব্যক্তিকে ঝাড়ফুঁকে জীবিত করার নজির নেই। ধর্মীয় রীতি অনুসারে নিহত কলেজছাত্রীর লাশের সৎকার করতে পরিবারের সদস্যদের বলা হয়েছে।

 

 

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter