কালিয়ায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ছবি তোলায় সাংবাদিককে কুপিয়ে জখম

  নড়াইল প্রতিনিধি ১২ আগস্ট ২০১৮, ১৮:২৯ | অনলাইন সংস্করণ

কালিয়ায় অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের ছবি তোলায় সাংবাদিককে কুপিয়ে জখম
হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দৈনিক খবরের জেলা প্রতিনিধি শেখ ফসিয়ার রহমান। ছবি: যুগান্তর

নড়াইলের কালিয়ায় অবৈধভাবে ড্রেজিং মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন ও নদীভাঙনের ছবি তুলতে গেলে সাংবাদিক ও তার সঙ্গে থাকা ব্যক্তিকে কুপিয়ে জখম করেছে অবৈধ বালু উত্তোলনকারী যুবলীগ নেতার লোকজন। এ সময় সাংবাদিকের ক্যামেরা ছিনিয়ে নিয়ে যায় হামলাকারীরা। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। এ ঘটনায় স্থানীয় সাংবাদিক সংগঠন দোষীদের অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন।

আহতরা হলেন, শেখ ফসিয়ার রহমান (৫২) দৈনিক খবরের জেলা প্রতিনিধি ও কালিয়া পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর। তার সঙ্গে থাকা প্রশান্ত কুমার দাশ (২৫)।

হামলাকারীরা হলেন, হাড়িডাঙ্গা গ্রামের মুজিবর মোল্যার ছেলে তারিক মোল্যা,মোশারফ ব্যাপারীর ছেলে বালা, হোসেন থান্দারের ছেলে মিশকাত ও নাওরা গ্রামের মৃত শংকর ঘোষের ছেলে অনির্বাণ ঘোষসহ (ছৈন ঘোষ) ১০-১২ জন। হামলাকারীরা সবাই উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক রবিউল ইসলাম খানের লোক বলে জানা গেছে।

রোববার দুপুর ১টার দিকে ঘটানাস্থল থেকে ফেরার পথে কালিয়া পৌরসভার বড় কালিয়া সড়কের ওপর এ ঘটনা ঘটে।

আহত সাংবাদিক জানান, রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে পেশাগত দায়িত্বপালনের অংশ হিসেবে নবগঙ্গা নদীর নাওরা নামক স্থানে অবৈধভাবে ড্রেজিং মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের ছবি তুলতে যান। একই সঙ্গে অবৈধভাবে বালু উত্তোলনের কারণে নদীর পশ্চিমপাড়ে শুক্ত গ্রামের গুচ্ছ গ্রামের বিশাল অংশজুড়ে ভাঙনেরও ছবি ক্যামেরায় ধারণ করেন।

এ সময় রবিউল ইসলাম খানের সঙ্গীয় বালু ব্যবসায়ী মির্জাপুর গ্রামের আহমেদ শেখের ছেলে তাজু শেখ ছবি তুলতে নিষেধ করেন এবং রবিউলের (যুবলীগ নেতা) সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলতে বলেন। একপর্যায় উভয়ের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়।

এরপর মোটরবাইকে ফেরার পথে শেখ ফসিয়ার রহমানকে গতিরোধ করে ধারালো দা ও লাঠিসোঁটা নিয়ে আক্রমণ করে পিটিয়ে ও মাথায় কুপিয়ে আহত করে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নবগঙ্গা নদীর বৃহাচলা নামক স্থানে বালু উত্তোলনের ইজারা নেয় উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক রবিউল ইসলাম খান। কিন্তু ইজারাকৃত নির্দিষ্ট স্থানে বালু উত্তোলন না করে তার লোকজন অন্যত্র বালু উত্তোলন করছে। ভাঙনের বিপরীতে নিয়মিত ড্রেজিং মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করায় তীব্র আকারে নদী ভাঙছে।

এটি সাংবাদিক ফসিয়ার ক্যামেরায় ধারণ করতে গেলে বালু উত্তোলনকারীরা ক্ষিপ্ত হয়ে তার ওপর হামলা করে হত্যা চেষ্টা করে। এর আগেও এই বালু উত্তোলনকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত একাধিকবার জরিমানা করেন।

কালিয়া উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক রবিউল ইসলাম খান যুগান্তরকে বলেন,‘ কে বা কারা সাংবাদিক ফসিয়ার রহমানকে মারধর করেছে তা আমার জানা নেই। আমি বা আমার কোনো লোকজন এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয়।’

এ প্রসঙ্গে কালিয়া থানার এসআই শিমুল কুমার দাশ যুগান্তরকে বলেন,‘ কালিয়া হাসপাতালে ভর্তি আহত সাংবাদিক ফসিয়ার রহমানের সঙ্গে দেখা করে ঘটনার বিবরণ জানা হয়েছে। সেই মোতাবেক জড়িতদের গ্রেফতারের জোর প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে।’

এ ব্যাপারে নড়াইল পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জসিম উদ্দিন যুগান্তরকে বলেন,‘ ঘটনাটি জানার পরপরই আমি সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশকে দ্রুত আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছি।’

এদিকে পেশাগত দায়িত্বপালন করতে গিয়ে দৈনিক খবরের জেলা প্রতিনিধি ও নড়াইল রিপোর্টার্স ইউনিটির কোষাধ্যক্ষ শেখ ফসিয়ার রহমানের ওপর সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন নড়াইল রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি হুমায়ুন কবির রিন্টু, সাধারণ সম্পাদক মাসুমার রহমান, যুগান্তরের জেলা প্রতিনিধি শাহীদুল ইসলাম শাহী, দৈনিক নয়াদিগন্ত ও একুশে টিভির জেলা প্রতিনিধি ফরহাদ খান, বাংলাদেশ প্রতিদিন ও চ্যানেল নিউজ ২৪ এর জেলা প্রতিনিধি সাজ্জাদ হোসেন, আরটিভির জেলা প্রতিনিধি মোস্তফা কামাল, কালিয়া প্রেসক্লাব সভাপতি ও সমকালের কালিয়া প্রতিনিধি মশিউল হক মিটু প্রমুখ।

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter