ভারতীয় গরু আমদানিতে উত্তরাঞ্চলের খামারি ও চাষিরা হতাশ

  চৌহালী প্রতিনিধি ১৩ আগস্ট ২০১৮, ১৪:১৭ | অনলাইন সংস্করণ

এনায়েতপুরের এক খামারে প্রাকৃতিক উপায়ে মোটাতাজাকরে লালিত গরু।
এনায়েতপুরের এক খামারে প্রাকৃতিক উপায়ে মোটাতাজাকরে লালিত গরু। ছবি : যুগান্তর

ঈদুল আজহা সামনে রেখে বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে ভারতীয় গরু-মহিষের আমদানিতে দেশি উত্তরাঞ্চলের খামারি ও চাষিদের মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে। এ কারণে তারা দেশি গরুর দাম কমে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন।

এ প্রসঙ্গে বড়সারুটিয়া গ্রামের গরু ব্যবসায়ী হাফিজুল ইসলাম ও আব্দুল হাকিম বলেন, দীর্ঘ দিন বন্ধ থাকার পর রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ সীমান্ত দিয়ে ভারতীয় গরু-মহিষ আসছে। অনেক বৈধ ব্যবসায়ী রাজস্ব দিয়ে করিডরের মাধ্যমে পশু আমদানি করছেন।

সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিস সূত্রে জানা যায়, আসন্ন ঈদ সামনে রেখে যমুনার চরাঞ্চলে খামারিরা প্রতিযোগিতামূলকভাবে প্রাকৃতিক উপায়ে বিপুলসংখ্যক গরু মোটাতাজা করছেন।

তথ্যানুযায়ী, এ অঞ্চলে ছোট-বড় এক হাজার ৫০০ গরুর খামার রয়েছে। সে হিসাবে প্রায় ৪০ হাজার গরু প্রাকৃতিক উপায়ে মোটাতাজা করা হচ্ছে। যার বর্তমান গড় বাজারমূল্য প্রায় ৩২ কোটি টাকা।

চৌহালীর চৌদ্দরশি চরের খামারি মর্তুজা আলী জানান, গরুকে প্রাকৃতিক পন্থায় মোটাতাজা ও সুস্থ রাখতে খড়, নালিগুড়, ভাতের মাড়, তাজা ঘাস, খৈল, গম, ছোলা, খেসারি, মাসকলাই, মটরের ভুসিসহ নানা পুষ্টিকর খাবার দেয়া হয়। এ ধরনের গরুর গোশত খেয়ে অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকি থাকে না। তবে কিছু অসাধু মৌসুমি ব্যবসায়ী কৃত্রিম উপায়ে গরু মোটাতাজা করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ ব্যাপারে এনায়েতপুরের কয়েকজন গরু ব্যবসায়ী জানান, বেশি লাভের আশায় নানা বিষাক্ত ওষুধ ব্যবহার করে কিছু অসাধু ব্যবসায়ী রোগাক্রান্ত গরু অল্প টাকায় কিনে মোটাতাজা করছেন। এ ক্ষেত্রে তারা ভারত থেকে চোরাই পথে আসা ডেক্সিন, স্টেরয়েড, হরমোন ও উচ্চমাত্রার রাসায়নিক ব্যবহার করছেন।

তবে এবারের ঈদুল আজহা উপলক্ষে কৃত্রিম পদ্ধতিতে গরু মোটাতাজাকরণের হার আগের বছরগুলোর চেয়ে অনেক কমে গেছে বলে মতামত দেন অনেক খামারি।

চৌহালী উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. একেএসএম মোশারফ হোসেন বলেন, চরের প্রতিটি বাড়িতেই কোরবানি উপলক্ষে প্রাকৃতিক উপায়ে ষাঁড় মোটাতাজা করা হচ্ছে। কিন্তু স্টেরয়েডের মাধ্যমে কোনো গরু মোটাতাজা করার খবর পাওয়া যায়নি।

 

 

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.