রাজশাহীতে ছাত্রদলের দুগ্রুপের সংঘর্ষ, সভাপতির বাসায় ভাঙচুর

  রাজশাহী ব্যুরো ৩০ আগস্ট ২০১৮, ১৯:৫৮ | অনলাইন সংস্করণ

ছাত্রদল সভাপতির বাসায় ভাঙচুর
মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি আসাদুজ্জামার রনির বাসায় ভাঙচুর-ছবি: যুগান্তর

রাজশাহীর আদালতপাড়ায় ছাত্রদলের দুগ্রুপের সংঘর্ষে অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে মামলার হাজিরা দিয়ে বেরিয়ে আসার সময় রাজশাহী মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সামনে তারা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

রাজপাড়া থানার ওসি হাফিজুর রহমান হাফিজ জানান, নাশকতার একটি মামলায় আদালতে হাজিরা দিতে যান মহানগর বিএনপির সভাপতি ও সাবেক রাসিক মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল এবং সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলনসহ দলটির নেতাকর্মীরা।

মামলার হাজিরা দিয়ে আদালত থেকে বেরিয়ে আসার সময় শহীদ মিনারের সামনে ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। এতে অন্তত পাঁচজন আহত হন।

খবর পেয়ে পুলিশ ও বিএনপির নেতারা গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। পরে আহতদের মধ্যে জ্যাকি ও লুকেন নামের দুজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়।

এদিকে এ ঘটনার পর বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে নগরীর রামচন্দ্রপুর বাসার রোডে ছাত্রদলের একপক্ষের ২৫-৩০ জন নেতাকর্মীরা মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি আসাদুজ্জামার রনির বাসায় হামলা চালায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

ওসি বলেন, সম্প্রতি নগর ছাত্রদলের নয়টি ইউনিটের নতুন কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে দলীয় কার্যালয়ে তালা ঝোলানোসহ ভাঙচুর ও মারামারি হয়। এর জের ধরে আদালতের সামনে ছাত্রদলের দুগ্রুপের নেতাকর্মীরা এ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন বলে ধারণা করছেন এ পুলিশ কর্মকর্তা।

আসাদুজ্জামান জনি জানান, নগরের রামচন্দ্রপুর বাসার রোডের নিজ বাসায় ছিলেন তিনি। মোটরসাইকেল নিয়ে গিয়ে ছাত্রদলের কয়েকজন নেতাকর্মী প্রথমে তাদের বাসায় প্রবেশের চেষ্টা করেন। বাসায় প্রবেশ করতে না পেরে তারা বাইরে থেকে ইটপাটকেল মারে। এতে তার বাসার জানালার কাচ ভেঙে যায়। এ সময় তারা গালিগালাজ করে।

তিনি আরও বলেন, মহানগর ছাত্রদলের সিনিয়র সহসভাপতি মুর্তুজা ফামিনের নেতৃত্বে এ হামলায় অংশ নেন সাংগঠনিক সম্পাদক খন্দকার মাকসুদুর রহমান সৌরভ এবং সদস্য কনকসহ ২৫-৩০ জন। এ সময় তারা আমাকে হত্যার হুমকি দেন বলেও দাবি করেন জনি।

এ ব্যাপারে বোয়ালিয়া মডেল থানার ওসি আমান উল্লাহ বলেন, পুলিশ ছাত্রদল নেতা জনির বাড়ি যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই নেতাকর্মীরা দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। তাই কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি। তবে ছাত্রদল নেতা জনি হামলাকারীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিলে তা তদন্ত করে দেখা হবে।

 

 

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter