গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন

২৩৬ কোটি টাকা ঋণ মাথায় নিয়ে মেয়র জাহাঙ্গীরের যাত্রা শুরু

  গাজীপুর প্রতিনিধি ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১:৩৪ | অনলাইন সংস্করণ

অভিষেক অনুষ্ঠানে দুই মন্ত্রী ও নতুন মেয়র
স্থানীয় সরকারমন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়কমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আ ক ম মোজাম্মেল হকের সঙ্গে নতুন মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম

২৩৬ কোটে টাকা ঋণ মাথায় নিয়ে দেশের সর্ববৃহৎ সিটি কর্পোরেশন গাজীপুরের মেয়র হিসেবে এক জাঁকজমক অভিষেক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দায়িত্ব নিয়েছেন মো. জাহাঙ্গীর আলম।

মঙ্গলবার বেলা ১১টা থেকে শুরু হয়ে অনুষ্ঠান চলে রাত পর্যন্ত।

সিটি কর্পোরেশনের ৫৭টি ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের নেতাকর্মী থেকে শুরু করে মসজিদের ইমাম, মোয়াজ্জিন, মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষকসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার ৩২ হাজার লোকের আমন্ত্রণ ছিল ওই অনুষ্ঠানে।

অপেক্ষাকৃত তরুণ এ মেয়রকে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন ও গাজীপুর জেলা প্রশাসন এ জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ওই অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন গাজীপুরের জেলা প্রশাসক ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ুন কবীর।

দিনব্যাপী দুই পর্বের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

বেলা ১১টায় দায়িত্বভার অর্পণ ও গ্রহণ, দুপুর দেড়টায় মধ্যাহ্নভোজের পর বিকাল ৩টায় মূল অনুষ্ঠান দ্বিতীয় অধিবেশন শুরু হওয়ার কথা থাকলেও মূলত অনুষ্ঠান শুরু হয় বিকাল সাড়ে ৫টায়।

বিকালে জেলা শহরের রাজবাড়ি ময়দানে বিশাল প্যান্ডেলে প্রায় ৩০ হাজার নেতাকর্মী ও অতিথিদের উপস্থিতিতে তিনি মেয়রের দায়িত্ব নিলেন। দায়িত্ব গ্রহণের পর মেয়র জাহাঙ্গীর আলম তার বক্তৃতায় আগামী ৫ বছরে নগরীতে কী উন্নয়ন হবে, তার একটি পরিকল্পনা তুলে ধরেন।

নির্বাচনী ইশতেহার অনুযায়ী জনগণকে দেয়া প্রতিটি প্রতিশ্রুতি তিনি রক্ষার চেষ্টা করবেন বলেও নগরবাসীকে আশ্বস্ত করেন। মেয়র জাহাঙ্গীর আলম সিটি কর্পোরেশনের নিজস্ব উৎস, সরকারি অর্থায়ন ও বিদেশি সহযোগিতায় গাজীপুরকে গ্রিন ও ক্লিন সিটি হিসেবে গড়তে তুলতে সবার সহযোগিতা কামনা করেছেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন একটি নুতন সিটি কর্পোরেশন হিসেবে সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হবে। নগরীর উন্নয়নের জন্য গত অর্থবছরে ১৭ কোটি বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল। চলতি অর্থবছরে ওই বরাদ্দের তিন গুণ করে ৫১ কোটি টাকা বরাদ্দের ঘোষণা দেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিন তারিখ ধরে উন্নয়নের রোডম্যাপ তৈরি করেন। ২০২১ সালের মধ্যে দেশকে আমরা মধ্যম আয়ের দেশে রূপান্তরিত করব। তিনি শিল্পপ্রতিষ্ঠানকে সহযোগিতা করার আহ্বান জানিয়ে মেয়র জাহাঙ্গীর আলমকে বলেন- শিল্প স্থাপনকে সহযোগিতা করবে, আর তারা যে ট্যাক্স দেবে তা দিয়ে সিটির উন্নয়ন করা যাবে।

জাহাঙ্গীর আলম তার বক্তব্যে বলেন, আমি নগরবাসীকে বলেছিলাম একটি সুন্দর পরিকল্পিত নগরী উপহার দেব। নগরবাসী আমাকে বিশ্বাস করেছে, সেই বিশ্বাসের মর্যাদা আমি রাখব ইনশাআল্লাহ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নৌকাকে ভালোবেসে গাজীপুরের জনগণ আমাকে যে আশায় ভোট দিয়ে বিজয়ী করেছে, আমি তাদের এই আশার প্রতিফলন ও প্রতিদান দেয়ার চেষ্টা করব। সবাইকে নিয়েই একটি বাসযোগ্য শহর গড়ে তুলব। সব মানুষ যেন নিরাপদে ঘুমাতে পারে এবং কর্মস্থলে যেতে পারে সে ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়া হবে।

সিটি কর্পোরেশনের কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী নগরীর কোনো নাগরিকের কাছে অনৈতিক কিছু দাবি করলে তাকে জানাতে বলেন এবং তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে হুশিয়ারি দেন নতুন মেয়র।

মেয়র জাহাঙ্গীর আলম আগামী ৫ বছর তিনি কি কি করতে চান, দেশি-বিদেশি বিভিন্ন উন্নয়নসহযোগীদের সহযোগিতায় তিনি নগরীকে কী ধরনের সেবা প্রদান করবেন, তার বিস্তারিত পরিকল্পনা বা এর একটি নমুনা থ্রিডি আকারে প্রচার করা হয়।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়কমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আ ক ম মোজাম্মেল হক, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন, মহিলা শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, সংসদ সদস্য জাহিদ আহসান রাসেল, স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার ওয়াই এম বেলালুর রহমান, গাজীপুর জেলা পরিষেদের চেয়ারম্যান আখতারউজ্জামান, ঢাকা উত্তরের ভারপ্রাপ্ত মেয়র জামাল মোস্তফা, গাজীপুরের পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আজমত উল্লাহ খান, গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. ইকবাল হোসেন সবুজ।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কে এম রাহাতুল ইসলাম।

উল্লেখ্য, গাজীপুর দেশের ঐতিহাসিক শহরগুলোর মধ্যে অন্যতম। ভাওয়াল জমিদার ১৮ শতকের প্রথম দিকে এ শহরের গোড়াপত্তন ঘটান। ২০১৩ সালের ১৬ জানুয়ারি গাজীপুর ও টঙ্গী পৌরসভা এবং ৬টি ইউনিয়ন (কাশিমপুর, কোনাবাড়ী, বাসন, কাউলতিয়া, গাছা ও পূবাইলসহ ৩২৯ দশমিক ৫৩ বর্গকিলোমিটার এলাকা) নিয়ে গঠিত হয় গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন।

সিটি কর্পোরেশনের ৫৭টি ওয়ার্ডে মোট ভোটার ১১ লাখ ৩৭ হাজার ৭৩৭ জন। এর মধ্যে ৫ লাখ ৭৯ হাজার ৯৩৫ জন পুরুষ এবং ৫ লাখ ৬৭ হাজার ৮০১ জন নারী। এই সিটিতে বিভিন্ন জেলার প্রায় ৩৫ লাখ লোকের বসবাস।

গত ২৬ জুন শিল্প-অধ্যুষিত এই বৃহৎ সিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। মো. জাহাঙ্গীর আলম ৪ লাখ ১০ ভোট পেয়ে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনে মেয়র নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি মনোনীত হাসান উদ্দিন সরকার পান ১ লাখ ৯৭ হাজার ৬১১ ভোট।

ঘটনাপ্রবাহ : গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন ২০১৮

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter