গাজীপুরে সেফ হোম থেকে পালাল ১৭ কিশোরী

  গাজীপুর প্রতিনিধি ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:৪৭ | অনলাইন সংস্করণ

গাজীপুরে সেফ হোম থেকে পালাল ১৭ কিশোরী
ফাইল ছবি

গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মোগরখাল এলাকায় মহিলা, শিশু ও কিশোরী হেফাজত থাকা নিরাপদ আবাসন কেন্দ্র (সেফ হোম) থেকে শুক্রবার রাতে ১৭ নিবাসী পালিয়ে যায়। এ ঘটনার পর গাজীপুর ও টাঙ্গাইলের মির্জাপুর থেকে ১২ জনকে আটক করা হয়েছে। এ ঘটনায় জেলা প্রশাসক তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে।

শনিবার দুপুরে মহিলা ও শিশুবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। ঘটনার তদন্তে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে একটি ও জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অপর একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

আটককৃতদের মধ্যে নদী, লুৎফুন, আফিয়া ও চামেলীকে গাজীপুরের জয়দেবপুর থানা পুলিশ বাসন সড়ক এলাকা থেকে এবং তানিয়া, রিনা, লাইজু, লামিয়া, শাবানা, সুরমা, জেসমিন ও বৃষ্টিকে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর থানা পুলিশ স্থানীয় রেলস্টেশন এলাকা থেকে আটক করে।

সেফ হোমের (আবাসন কেন্দ্রের) সুপার জোবাইদা খাতুন জানান, ঢাকা বাইপাস সড়কের পাশে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মোগড়খাল এলাকায় মহিলা, শিশু ও কিশোরী হেফাজতীদের নিরাপদ আবাসন কেন্দ্রে বিভিন্ন মামলার গ্রেফতার হওয়া ৩৪ জন নিবাসী রয়েছে। যাদের সবার বয়স ১৮ বছরের নিচে।

তিনি আরও জানান, গত শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে কয়েক নিবাসী লোহার খাটের পায়া দিয়ে ওই কেন্দ্রের আবাসন ভবনের দ্বিতীয়তলার ২০৫ নম্বর কক্ষের গ্রিল ভেঙে ফেলে। পরে বন্দিরা কৌশলে বিছানার চাদর ও ওড়না বেঁধে বেয়ে নিচে নেমে ১৭ জন নিবাসী বিচ্ছিন্নভাবে পালিয়ে যায়। রাত ১২টার দিকে কেন্দ্রের কর্মকর্তারা তদারকি করতে গিয়ে ২০৫ নম্বর কক্ষে গিয়ে জানালার গ্রিল ভাঙা এবং কোনো নিবাসী দেখতে না পেয়ে রাতেই বিষয়টি থানা পুলিশকে অবহিত করেন। পরে জয়দেবপুর থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের বাসন সড়ক এলাকা থেকে ৩ জন এবং ওই কেন্দ্রের পেছনের দিকের রাস্তা থেকে একজনকে আটক করে।

টাঙ্গাইলের মির্জাপুর থানার ওসি একে এম মিজানুল হক জানান, পলাতকরা সেফ হোম থেকে পালিয়ে রাতে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর রেলস্টেশন থেকে উত্তরবঙ্গগামী একটি ট্রেনে উঠে। ট্রেনে তারেক সালমান নামে এক হোটেল কর্মচারীর সঙ্গে পরিচয় হয়। পরে মির্জাপুর রেলস্টেশনে নেমে শনিবার দুপুর ১২টার দিকে ওই যুবকের সঙ্গে ৮ জন কিশোরী রেলপথ ধরে হাঁটছিল। এ সময়ে আশপাশের লোকজনের কাছে তাদের আচরণ ও কথাবার্তা সন্দেহ হলে পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ তাদের আটক করে।

এদিকে সেফ হোম থেকে বন্দি পালিয়ে পালিয়ে যাওয়ার খবর পেয়ে শনিবার দুপুরে মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি, মহিলা ও শিশু বিষয়ক অধিদফতরের অতিরিক্ত পরিচালক শাহনাজ দিলরুবা খান, গাজীপুরের পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার, গাজীপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী, গাজীপুর জেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা শাহানাজ আক্তারসহ উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা পরিদর্শনে যান।

দুই তদন্ত কমিটি গঠন

সেফ হোম থেকে বন্দি থেকে পালিয়ে যাওয়ার ঘটনা তদন্তে মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে একটি এবং জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অপর একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

মহিলা ও শিশুবিষয়ক অধিদফতরের অতিরিক্ত পরিচালক শাহনাজ দিলরুবা জানান, মহিলা ও শিশু মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সমাজসেবা অধিদফতরের উপপরিচালক ফরিদা ইয়াছমিনকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। সাত কার্যদিবসের মধ্যে তাদের প্রতিবেদনের জমার সময় দেয়া হয়েছে।

গাজীপুর জেলা প্রশাসক দেওয়ান মোহাম্মদ হুমায়ূন কবীর জানান, ঘটনায় জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শনিবার অপর একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। গাজীপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরীকে প্রধান করা হয়েছে। এছাড়া গাজীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. তোফাজ্জল হোসেন ও গাজীপুর জেলা মহিলাবিষয়ক কর্মকর্তা শাহানাজ আক্তারকে সদস্য করা হয়েছে। আগামী তিন কার্যদিবসে তাদের প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

এসপি শামসুন্নাহার জানান, ওই ঘটনার যাতে আর পুনরাবৃত্তি না ঘটে সে সেফ হোমের কর্মকর্তাদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে এবং পলাতকদের আটকে চেষ্টা চলছে।

 

 

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter