কুড়িগ্রামের বন্যার পানিতে ডুবে বৃদ্ধের মৃত্যু

  কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২১:৫৬ | অনলাইন সংস্করণ

কুড়িগ্রাম

কুড়িগ্রামে ধরলা, তিস্তা, ব্রহ্মপুত্র ও দুধকুমারসহ প্রধান নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ২০টি ইউনিয়নের অর্ধশত চরগ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে এক হাজার পরিবারের ৫ হাজার মানুষ।

মঙ্গলবার সকালে সদর উপজেলার হলোখানা ইউনিয়নের মাস্টারের হাট এলাকায় বন্যার পানিতে ডুবে আবদুস ছাত্তার (৬৫) নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ধরলায় ১২৩ সেন্টিমিটার, ব্রহ্মপুত্রে সেন্টিমিটার, ও দুধকুমারে ২০ সেন্টিমিটার, ও তিস্তায় ৩৮ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। ধরলা নদীর পানি বিপৎসীমার খুব কাছাকাছি অবস্থান করছে।

ধরলা নদীর অববাহিকার হলোখানা, ভোগডাঙা, মোঘলবাসা, বড়ভিটা, শিমুলবাড়ি, বেগমগঞ্জ, পাঁচগাছিসহ ২০টি ইউনিয়নের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দি হয়েছে প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ। এসব এলাকার ৫ শতাধিক হেক্টর আমন ক্ষেতসহ সবজি, পাট, কলাসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষেত নিমজ্জিত হয়েছে।

পানি বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে সদর উপজেলার সারোডাব, মোঘলবাসা, যাত্রাপুর, ভোগডাঙা, উলিপুরের থেতরাই, চিলমারীর জোড়গাছ কয়েকটি এলাকায় দেখা দিয়েছে তীব্র ভাঙন। সারোডোব এলাকায় ধরলার তীব্র ভাঙনে ২৪ ঘণ্টায় ৫টি পরিবার গৃহহীন হয়েছে। হুমকির মুখে রয়েছে আরও ২০-২৫টি পরিবার। তিস্তার ভাঙনে উলিপুরের নাগরাকুড়া টি বাঁধে ধ্বস দেখা দিয়েছে এবং হোকডাঙা গ্রামটি বিলীনের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী শফিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, ভারতের পশ্চিমবঙ্গে ভারিবর্ষণের কারণে ধরলা ও তিস্তায় পানি বেড়েছে। উজানের ঢল ও ভারিবৃষ্টি অব্যাহত থাকলে বন্যার আশঙ্কা আছে।

কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আমিন আল পারভেজ, জানান, নদ-নদীর পানি বাড়ার দিকে নজর রাখা হচ্ছে। প্রয়োজনে লোকজনকে নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হবে।

মঙ্গলবার সকালে সদর উপজেলার হলোখানা ইউনিয়নের মাস্টারের হাট এলাকায় বন্যার পানিতে ডুবে আবদুস ছাত্তার (৬৫) নামে এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে বলে নিশ্চিত করেন তিনি।

 

 

জেলার খবর
অনুসন্ধান করুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter