অভিযোগের প্রেক্ষিতে ঈশ্বরদীতে পরিবেশ কর্মকর্তারা

প্রকাশ : ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৯:০৯ | অনলাইন সংস্করণ

  ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি

অভিযোগের প্রেক্ষিতে ঈশ্বরদীতে পরিবেশ কর্মকর্তারা। ছবি: যুগান্তর

পরিবেশ নিয়ে রাষ্ট্রীয়ভাবেই অনেক সতর্কতা অবলম্বন করা হলেও ঈশ্বরদী উপজেলার সলিমপুর ইউনিয়নে গড়ে ওঠা অটোরাইচ মিলগুলো কোনো নিয়মনীতি মেনে চলছে না। ফলে এলাকাবাসীর স্বাস্থ্যঝুঁকিসহ নানাবিধ সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে।

এদিকে এলাকাবাসীর সম্মিলিত অভিযোগ ও পত্রপত্রিকায় এ সংক্রান্ত খবর প্রকাশের পর পরিবেশ অধিদফতরের বগুড়া অফিসের সিনিয়র কেমিস্ট আসাদুজ্জামান, আতাউর রহমান ও মাসুদ রানা বুধবার দুপুরে সরেজমিন এলাকা পরিদর্শন করেন।

পরিদর্শনকারী এই দল বড়ইচরা ও ভেলুপাড়ায় অবস্থিত অটোরাইস মিল পরিবেশ অধিদফতরের নিয়মনীতি না মেনে উন্মুক্ত স্থানে দূষিত বর্জ্য ফেলার বিষয়টি প্রত্যক্ষ করেন। এখানে অটোরাইস মিলের দুর্গন্ধযুক্ত বিষাক্ত পানি, ধানের তুষ, ছাই, ধোঁয়া ও মেশিনের বিকট শব্দে পরিবেশের বিপর্যয় ঘটেছে।

পরিদর্শনের পর এলাকাবাসীর উদ্যোগে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন, ঈশ্বরদী উপজেলা পরিবেশ রক্ষা কমিটির সভাপতি মজিবর রহমান, ঈশ্বরদী পৌর কাউন্সিলর আবুল হাসেম, কাউন্সিলর ফিরোজা বেগম, সলিমপুর ইউপি সদস্য রোজিনা বেগম, বাংলাদেশ কৃষক উন্নয়ন সোসাইটির সভাপতি জাতীয় কৃষক সিদ্দিকুর রহমান কূল ময়েজ, সাধারন সম্পাদক ও জাতীয় কৃষক কিতাব মণ্ডল, রেজাউল করিম রেজা, মহির উদ্দিন, দুলাল মণ্ডল, সহসভাপতি মুক্তার হোসেন, সাধারন সম্পাদক আনসারুল ইসলাম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক কমিশনার হায়দার আলী, উপদেষ্টা জুলহাস উদ্দিন ও আব্দুস সাত্তার।

পরিবেশ অধিদফতরের কর্মকর্তারা বলেন, অভিযোগ পেয়ে আমরা ঈশ্বরদীর বড়ইচারার অটোমিল পরিদর্শনে এসেছি। এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে সরেজমিন পরিদর্শন করেছি। অভিযোগকারী ও ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলেছি। কারও কোনো কিছু ক্ষতি করে শিল্পকারখানা স্থাপন সম্ভব নয়। আমরা আপনাদের কথা ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করব।